প্রবাস | The Daily Ittefaq

তুর্কি পরিবার ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের বৈঠক

তুর্কি পরিবার ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের বৈঠক
অনলাইন ডেস্ক১২ অক্টোবর, ২০১৭ ইং ১৪:৩৭ মিঃ
তুর্কি পরিবার ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের বৈঠক
তুরস্কের পরিবার ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রী ফাতমা বেতুল সায়ান কায়া’র সঙ্গে আঙ্কারায় তার কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার বৈঠক করেছেন সেদেশে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম, আল্লামা সিদ্দীকী। এ বৈঠকে দু’দেশের মধ্যকার দ্বি-পাক্ষিক সম্পর্কের বিভিন্ন বিষয়সহ বাংলাদেশে আশ্রিত মিয়ানমারের উদ্বাস্তু পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়। 
 
এসময় রাষ্ট্রদূত, তুরস্কের পরিবার ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রীকে উদ্বাস্তু পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে তুরস্কের ফার্স্ট লেডীর সাম্প্রতিক বাংলাদেশ সফরের জন্য এবং এ বিষয়ে তুরস্ক সরকারের আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে রাজনৈতিক সমর্থনের জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। এছাড়াও এ সঙ্কটের ঐতিহাসিক পটভূমির প্রতি আলোকপাত করে রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে ভিটেমাটি হারা দুর্দশাগ্রস্ত ও পীড়িত রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা এবং আশ্রয়দানের জন্য সম্ভাব্য সর্বোচ্চ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে, যা একটি অত্যন্ত সাহসী উদ্যোগ হিসেবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় কর্তৃক প্রশংসিত হচ্ছে। 
 
রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, মিয়ানমারের উদ্বাস্তু সঙ্কট সৃষ্টির মূলে রয়েছে মিয়ানমার এবং এ সঙ্কটের সমাধানও নিহিত রয়েছে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের হাতে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতায় বাংলাদেশ এ সমস্যার একটি স্থায়ী ও গ্রহণযোগ্য রাজনৈতিক সমাধানের ব্যাপারে আশাবাদী। তুরস্কের পরিবার ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রীও একটি রাজনৈতিক সমাধানের ব্যাপারে গুরুত্বারোপ করেন। তুরস্কের পরিবার ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রী বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি তুরস্কের রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক সহযোগিতা প্রদানের প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন।  
 
তুরস্ক বর্তমানে ৩.২ মিলিয়ন সিরিয়ান শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়েছে এবং তাদের প্রতিপালন করছে। এ প্রেক্ষাপটে অস্থায়ীভাবে আশ্রিত মিয়ানমারের উদ্বাস্তুদের জীবনমান উন্নয়নে তুরস্কের অভিজ্ঞতা বিনিময় ও সহায়তার ব্যাপারে তুরস্কের পরিবার ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রী আলোকপাত করেন। রাষ্ট্রদূত তাঁর বক্তব্যে সাম্প্রতিক সময়ে  বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে উন্নয়ন, অগ্রগতি  এবং অর্জনের প্রবহমান চিত্র তুলে ধরেন। এছাড়াও, রাষ্ট্রদূত এবং তুরস্কের পরিবার ও সমাজ বিষয়ক মন্ত্রী বাংলাদেশ ও তুরস্কের মধ্যে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক শক্তিশালী করার বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন। তারা একমত হন যে, দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও সাংস্কৃতিক মেলবন্ধন জোরালো করার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। 
 
ইত্তেফাক/সেতু
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৫ নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ফজর৫:০১
যোহর১১:৪৬
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩০
সূর্যোদয় - ৬:২০সূর্যাস্ত - ০৫:০৯