প্রবাস | The Daily Ittefaq

‘যারা মৌলবাদ-সাম্প্রদায়িক তকমা পরাতে চায় তাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে’

‘যারা মৌলবাদ-সাম্প্রদায়িক তকমা পরাতে চায় তাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে’
অনলাইন ডেস্ক১০ ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং ১৯:২১ মিঃ
‘যারা মৌলবাদ-সাম্প্রদায়িক তকমা পরাতে চায় তাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে’
 
বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি বলেছেন, গণতান্ত্রিক ও অসাম্প্রদায়িক রাজনীতির আদর্শ প্রতিষ্ঠায় এ দেশের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে যে লড়াই সংগ্রাম করে আসছিলেন, ৭ মার্চের জনসভায় বঙ্গবন্ধু তা আরও স্পষ্ট করেন। তাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশকে যারা মৌলবাদ আর সাম্প্রদায়িক তকমা পরাতে চায় তাদের বিরুদ্ধে প্রবাসীসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আগামী নির্বাচনে যাতে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি ক্ষমতায় আসে সে জন্য কাজ করতে হবে। 
 
তিনি আজ রবিবার সকালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণকে ইউনেস্কো ‘মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ায় ওমানের রাজধানী মাস্কাটের বাংলাদেশ স্কুল থেকে এক বিশাল বর্ণাঢ্য র‌্যালি পূর্ব সমাবেশে এ কথা বলেন। 
 
র‍্যালিতে উপস্থিত ছিলেন ওমানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম সারওয়ার, বাংলাদেশ স্কুলের অধ্যক্ষ মেজর (অব.) নাসিরউদ্দিন, বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব এটিএম নাসির মিয়া, স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ। ওমানের বাংলাদেশী বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থী, বাংলাদেশ অ্যাম্বেসির কর্মকর্তা-কর্মচারী, ওমান প্রবাসীসহ প্রায় ২০০০ বাংলাদেশী অংশ নেন।
 
রাশেদ খান মেনন বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্ব ইতিহাসে যুগসৃষ্টিকারী সেরা ভাষণগুলোর অন্যতম। বাঙালির মুক্তির পথ-নকশা নির্মাণে অনন্য-দূরদর্শী ভাষণ এটি। এ ভাষণের ভাব, ভাষা, শব্দ চয়ন ও সাহসী উচ্চারণ মানব জাতির সংগ্রাম ও আন্দোলনের ইতিহাসের অবস্মিরণীয় উপাদানে পরিণত হয়েছে। প্রতিটি বাক্যে উঠে এসেছে একটি জাতির ইতিহাস, আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকারের সংগ্রাম ও বাঙালি জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার প্রত্যয়ের কথা। এ ভাষণের সৌরভ ও গৌরব বিশ্বের প্রতিটি প্রান্তে ছড়িয়ে দিয়ে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশকে মহিমান্বিত করতে হবে।
 
ইত্তেফাক/আনিসুর
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২০ এপ্রিল, ২০১৮ ইং
ফজর৪:১৪
যোহর১১:৫৮
আসর৪:৩১
মাগরিব৬:২৫
এশা৭:৪১
সূর্যোদয় - ৫:৩৩সূর্যাস্ত - ০৬:২০