রাজধানী | The Daily Ittefaq

দেশপ্রেমিকরা কখনোই হতাশ হন না : আনোয়ার হোসেন মঞ্জু

দেশপ্রেমিকরা কখনোই হতাশ হন না : আনোয়ার হোসেন মঞ্জু
বিশেষ প্রতিনিধি১৭ জুলাই, ২০১৭ ইং ০১:৩০ মিঃ
দেশপ্রেমিকরা কখনোই হতাশ হন না : আনোয়ার হোসেন মঞ্জু

পরিবেশ ও বন মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেছেন, যারা দেশপ্রেমিক তারা বাংলাদেশের ভবিষ্যত্ সম্পর্কে কখনোই হতাশ হবেন না। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অনেক পরিবর্তন হয়েছে। দেশের অর্থনীতি ভালো হচ্ছে, মানুষ উত্পাদনমুখী হচ্ছে। এর ফলে পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনতাও বেড়েছে।

গতকাল রবিবার জাতীয় বৃক্ষমেলা-২০১৭ এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এসব কথা বলেন। রাজধানীর আগারগাঁও এ বন অধিদপ্তরের অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত এ সভায় বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার বিজয়ীদের মধ্যে তুলে দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রধান বন সংরক্ষক মোহাম্মদ সফিউল আলম চৌধুরী।

পরিবেশ ও বন মন্ত্রী বলেন, গাছ সম্পর্কে দেশের মানুষের মধ্যে আগ্রহ বেড়েছে। বৃক্ষমেলায় এর আগে এত মানুষ দেখা যেতো না। শিক্ষা এবং অর্থনৈতিক            উন্নয়নের সাথে সাথে মানুষের মধ্যে সচেতনতাও বাড়ছে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, লক্ষ লক্ষ মানুষ এখন চিকিত্সার জন্য দেশের বাইরে যাচ্ছে। ঈদের লম্বা ছুটি অনেকে বিদেশে গিয়ে কাটিয়ে আসছে। দেশে বড় বড় প্রজেক্ট বাস্তবায়ন হচ্ছে। ব্যক্তিখাতে অনেক উদ্যোক্তা তৈরি হচ্ছে। এসব দেশের স্বাধীনতার সুফল বলে তিনি উল্লেখ করেন।

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন এদেশকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না। আসলেই কেউ দাবায়ে রাখতে পারেনি। এটি বঙ্গবন্ধু না দেখলেও আমরা দেখতে পাচ্ছি। তিনি বলেন, একসময় বিদেশি অর্থ ছাড়া আমাদের প্রকল্প বাস্তবায়ন হতো না। কিন্তু এখন পরিস্থিতি ভিন্ন। বিদেশিদের কাছে অর্থ চাইবেন না, প্রয়োজনে আমার কাছে চাইবেন। দেশের অর্থনৈতিক পরিবর্তনের কারণে এটি সম্ভব হয়েছে। জাতীয় বৃক্ষমেলার সময়সীমা আরো একমাস বাড়ানোর বিষয়ে তিনি বলেন, সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের সাথে আলোচনা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য তিনি বন বিভাগকে নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেন, প্রতিটি আবাসিক এলাকায় বেসরকারি খাতে নার্সারী স্থাপন করা যায় কিনা সে বিষয়ে ভেবে দেখতে হবে। এছাড়া দেশের জেলা-উপজেলা পর্যায়েও বৃক্ষমেলার আয়োজন করা যেতে পারে।

পরিবেশ ও বন উপমন্ত্রী আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব বলেন, বৃক্ষরোপণ এখন একটি আন্দোলনে পরিণত হয়েছে। এটিকে সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে হবে। গাছ আমাদের পরম সম্পদ উল্লেখ করে তিনি বলেন, গাছ রোপণ করে দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নেওয়া যায়।

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের সচিব ইসতিয়াক আহমেদ বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে পরিবেশ প্রাধান্য পাচ্ছে। পরিবেশ রক্ষা করতে হলে বৃক্ষ রোপণের কোনো বিকল্প নেই।

ইত্তেফাক/নূহু

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৮ জুলাই, ২০১৭ ইং
ফজর৪:০২
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৩
মাগরিব৬:৪৭
এশা৮:০৭
সূর্যোদয় - ৫:২৬সূর্যাস্ত - ০৬:৪২