রাজধানী | The Daily Ittefaq

‘সব ধর্মের অনুসারীদের জন্য সমন্বিত পারিবারিক আইন দরকার’

মতবিনিময় সভায় বিশেষজ্ঞরা
‘সব ধর্মের অনুসারীদের জন্য সমন্বিত পারিবারিক আইন দরকার’
ইত্তেফাক রিপোর্ট০৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং ১৮:৪৬ মিঃ
‘সব ধর্মের অনুসারীদের জন্য সমন্বিত পারিবারিক আইন দরকার’
আইন কমিশনের চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক বলেছেন, দেশে নারী সংশ্লিষ্ট প্রায় ৩৬টি আইন রয়েছে। দেখা যায় এতো বেশি আইনের কারণে প্রতিকার চাইতে গিয়ে ভোগান্তির শিকার হতে হয়। সময়ের পরিবর্তনে আইনের পরিবর্তন ও অধুনিকায়ন দরকার। সেকারণে আইন কামিশন পারিবারিক আইন আধুনিকায়নের উদ্যোগ নিয়েছে।
 
বুধবার রাজধানীর বিচার প্রশাসন ও প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউটের মিলনায়তনে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। দুইপর্বের মতবিনিময় সভায় বক্তারা দেশের সকল ধর্মের অনুসারীদের জন্য একটি সমন্বিত (ইউনিফর্ম) পারিবারিক আইন প্রণয়নে মতামত দিয়েছেন। যে আইনে সকলের সম্মান ও মর্যাদা সমুন্নত রেখে বিধান প্রণয়ন করতে হবে। আইন কমিশন ও একশন এইডের সমন্বয়ে ‘পারিবারিক আইনসমূহ যুগোপযোগীকরণ প্রকল্প’ শীর্ষক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে।
  
বিচারপতি খায়রুল হক আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ হলো একটি ধর্মনিরেপেক্ষ রাষ্ট্র। আমাদের সকল ধর্মে অনুসারীদের কথা চিন্তা করতে হয়। প্রত্যেক মানুষকে তার নিজের ধর্ম অনুসরন করে পারিবারিক আইন মানতে হয়। যেহেতু বাংলাদেশ মুসলিম প্রধান দেশ, কোনো সন্দেহ নেই। সেকারণে আমাদের নজর মুসলিম পারিবারিক আইনের দিকে। অন্যান্য ধর্মের দিকেও রয়েছে। যে আইনগুলো প্রচলিত রয়েছে, হিন্দুু আইন ঊনিশ শতকের, মুসলিম আইন- ১৯৩৭ সালের, আরও অনেকগুলো রয়েছে, আইনের দিক থেকে আমাদের কোনো কার্পণ্য নেই।’ 
 
অধিক পরিমাণ আইন থাকায় বিচারক আইনজীবী ও বিচার প্রার্থীদের সমস্যায় পড়তে হয় বলে উল্লেখ করেন খায়রুল হক। তিনি বলেন, ‘কোন আইনে প্রতিকার পাওয়া যাবে তা নিয়ে সমস্যায় পড়তে হয়। অনেক সময় আইনের অসম্পূর্ণতার জন্য সাধারণ মানুষকে ভুগতে হয়।’
 
কমিশনের সদস্য বিচারপতি এটি এম ফজলে কবীর বলেন, সকল ধর্মের পারিবারিক আইনগুলো নিয়ে একটি সমন্বিত আইন প্রণয়ন বেশ জরুরি। মুসলমানদের জন্য অনেকগুলো আইন রয়েছে। হিন্দুদের জন্য রয়েছে, কিন্তু বৌদ্ধদের জন্য কোনো পারিবারিক আইন নেই। অনেক স্পর্শ কাতর বিষয় আছে সে দিকে লক্ষ্য রেখে আমাদের আগাতে হবে। আমরা আমাদের ন্যায়বিচার প্রাপ্যতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে পৌঁছাতে চাই।
 
একশন এইডের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির বলেন, পারিবারিক আইনগুলো সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন হয়না বলে নারী পারিবারিক নির্যাতনের শিকার হয়। নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধে আমাদের আইনের বাস্তবায়ন করা জরুরি।
 
মতবিনিময় সভার দ্বিতীয় পর্বে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইন কমিশনের লেজিসলেটিভ ও ড্রাফটসম্যান ফারজানা হোসেন। 
 
ইত্তেফাক/এমআই
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৪ নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ফজর৫:১১
যোহর১১:৫৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩৪
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:১২