রাজধানী | The Daily Ittefaq

একই হাসপাতালে দুই মায়ের ৭ নবজাতকের জন্মদান

একই হাসপাতালে দুই মায়ের ৭ নবজাতকের জন্মদান
ইত্তেফাক রিপোর্ট২২ মে, ২০১৮ ইং ১০:৫৮ মিঃ
একই হাসপাতালে দুই মায়ের ৭ নবজাতকের জন্মদান
রাজধানীর ডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটাল লিমিটেডে একদিনে দুই মায়ের গর্ভে সাতটি নবজাতকের জন্ম হয়েছে। সোমবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে গাইনি বিভাগের অধ্যাপক ডা. কানিজ ফাতেমার অধীনে প্রসূতি মা সনিয়া আক্তারের গর্ভে চারটি ও সোমবার বিকালে অধ্যাপক ডা. রুমানা শেখের অধীনে সুইটি খাতুনের গর্ভে অপর তিন নবজাতক জন্ম গ্রহণ করে। দুই প্রসূতি মা পোস্ট অপারেটিভ বেডে আছেন।
 
হাসপাতালটির গাইনি বিভাগ জানায়, সনিয়া আক্তারের ৪জন নবজাতকের মধ্যে ছেলে শিশু ৩জন ও কন্যাশিশু একজন জন্ম নেয়। সুইটি খাতুনের গর্ভের ৩জন নবজাতকের মধ্যে কন্যা শিশু দুইজন ও ছেলে শিশু একজন।
 
সুইটি খাতুনের গর্ভের নবজাতকরা স্বাভাবিক ও  সনিয়া আক্তারের গর্ভে জন্ম নেয়া নবজাতকরা সিজারের মাধ্যমে জন্মগ্রহণ করে।
 
 
সনিয়া খাতুনের গর্ভে জন্ম নেয়া চারজন নবজাতকের মধ্যে প্রথম জনের ওজন ১ কেজি ৯০০ গ্রাম, দ্বিতীয় জনের ওজন ১ কেজি ৬০০ গ্রাম, তৃতীয় জনের ওজন ১ কেজি ৫৬০ গ্রাম ও ৪র্থ জনের ২ কেজি ১০০ গ্রাম। তবে প্রথম নবজাতকের রক্তশূণ্যতা দেখা দেয়ায় তাকে রক্ত দেয়া হয়েছে। তাদের চারজনকেই ডা. সিরাজুল  ইসলাম মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা. রোজিনা আক্তারের অধীনে চিকিৎসাধীন। নবজাতকরা নিবিড় যত্ম ইউনিটে (এনাআইসিইউ) চিকিৎসাধীন রয়েছে।
 
সুইটি খাতুনের গর্ভে জন্ম নেয়া তিন নবজাতকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তিন জনকেই আইসিইউতে রাখা হয়েছে। এদের প্রথম জনের ওজন ৯০০ গ্রাম, দ্বিতীয় জনের ওজন ৯০০ গ্রাম ও ৩য় জনের ওজন ৭০০ গ্রাম।
 
আজ মঙ্গলবার সকাল ৮টায় ডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের এন্ড হসপিটাল লিমিটেডের এনআইউসিউর মেডিকেল অফিসার ডা. মো সালাউদ্দিন বলেন, সুইট খাতুনের গর্ভে জন্ম নেয়া চার নবজাতকের মধ্যে প্রথম জনের রক্তশূণ্যতা দেখা দেয়ায় রাতেই রক্ত দেয়া হয়েছে। অন্য তিন জন নবজাতক তুলনামূলক ভাল আছে। কিন্তু সনিয়া আক্তারের গর্ভে জন্ম নেয়া তিন জন নবজাতকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তিন নবজাতকের দুজনকেই ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে। এছাড়া তাদের ওজনও কম। এর আগে মিসেস সনিয়া যমজ শিশুর এবরসন হয়েছে।
 
ডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটালে এক সঙ্গে চার জন নবজাতক শিশু জন্ম গ্রহণ করার খবর শুনে রাত ১২টার দিকে হাসপাতালে ছুটে আসেন হাসপাতালটি চিফ ইক্সিকিউটিভ অফিসার (সিইও) ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) মহাসচিব প্রিন্সিপাল অধ্যাপক ডা. এমএ আজিজ।
 
ইত্তেফাক/কেকে
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৩
মাগরিব৫:৫৭
এশা৭:১০
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫২