রাজধানী | The Daily Ittefaq

অনৈতিক সাংবাদিক দূর করতে প্রকৃত সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে

অনৈতিক সাংবাদিক দূর করতে প্রকৃত সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে
ইত্তেফাক রিপোর্ট১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ০১:১৫ মিঃ
অনৈতিক সাংবাদিক দূর করতে প্রকৃত সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে
অনৈতিক সাংবাদিক দূর করতে প্রকৃত সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তাহলে সমাজে নামধারী অনৈতিক সাংবাদিকদের দৌড়াত্ম কমবে। পাশাপাশি শক্তিশালী করতে হবে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলকে। রবিবার বাংলাদেশ জার্নালিস্ট ফাউন্ডেশন ফর কনজুমারস অ্যান্ড ইনভেস্টরস (বিজেএফসিআই) এর বার্ষিক সভায় এ কথা বলেন প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ। 
 
জাতীয় প্রেসক্লাবে ওই অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, সাংবাদিকরা এখন ক্রস রোডে আছে। তাদের উচিত নেতৃত্বের মাধ্যমে সমাজে যথাযথ ভূমিকা পালন করতে একসঙ্গে কাজ করা। একই সঙ্গে সাংবাদিকদের দক্ষতা ও আর্থিক স্থিতিশীলতা বাড়াতে সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। পেশাগত সাংবাদিকদের সমাজের জন্য ভালো কাজ করা উচিত।
 
বিজেএফসিআইয়ের বার্ষিক সভায় একটি ন্যায্য আর্থিক সোসাইটি' শীর্ষক আলোচনার আয়োজন করা হয়। বিজেএফসিআই’র চেয়ারম্যান ও ডেইলি অবজারভারের অর্থনৈতিক সম্পাদক সাংবাদিক ফারুক আহমেদ এর সভাপতিত্ব করেন। ওই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এবং জাতীয় প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি সাইফুল আলম বলেন, দেশে সংবাদ কর্মীর সংখ্যা ১০ হাজারের বেশি। এর মধ্যে প্রকৃত সংবাদকর্র্মী কতজন। পুজির শক্তি, রাজনৈতিক ও পেশী শক্তি অনেকটা সাংবাদিকদের তাড়া করছে। সংবাদপত্রের স্বাধীনতার কথা বলা হয়। আসলে কতটা স্বাধীন তা প্রশ্নের মুখে পড়েছে। রাজনৈতিক বিভাজন সাংবাদিকদের অনেক দূর পর্যন্ত নিয়ে গেছে।
 
সাইফুল আলম বলেন, এর থেকে পরিত্রাণ পেতে সাংবাদিকদের ঐক্যের দরকার। পাশাপাশি যৌথ উদ্যোগ দরকার। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উক্তি টেনে তিনি বলেন, রবীন্দ্রনাথ বলেছে বাঙালী শুরু করতে পারে কিন্তু শেষ করতে পারে না। আমি বলবে বাঙালী অনেক কিছু শেষ করতে পেরেছে। মহান মুক্তিযুদ্ধ শুরু করে শেষ করা হয়েছে। এ ধরনের অর্জন আমাদের অনেক আছে। আমি মনে করে পেশাদার সাংবাদিকদের এই সংগঠন বিজেএফসিআই আজ শুরু করেছে এবং এর শেষ হবে একটি আদর্শ প্রতিষ্ঠানের মধ্য দিয়ে। 
 
সাইফুল আলম আরও বলেন, বিজেএফসিআই প্রকৃত পেশাদারী সাংবাদিকদের একটি প্ল্যাটফর্ম এবং এর সদস্যদের দক্ষতা উন্নয়নে জোর দেওয়া উচিত। শুধু দক্ষ সাংবাদিকরাই ভালো সাংবাদিকতা তৈরি করতে পারেন। 
 
ওই অনুষ্ঠানে দৈনিক বাংলাদেশ খবরের সম্পাদক আজিজুল ইসলাম ভুইয়া বলেন, সাংবাদিকদের দক্ষতা বৃদ্ধির পাশাপাশি তাদের আর্থিক স্থিতিশীলতা উন্নত করার জন্য বিজেএফসিআই একটি নতুন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে যাত্রা শুরু করেছে। ভালো কাজ কখনোই ব্যর্থ হয় না। তাই একটি সুষ্ঠু আর্থিক সমাজ গড়ে তোলার জন্য সকল পেশাদার সাংবাদিককে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।
 
বিজেএফসিআইয়ের ফারুক আহমেদ মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। সেখানে তিনি বলেন, আমাদের একটি সুষ্ঠু আর্থিক সমাজের প্রয়োজন। যেখানে সামাজিক ন্যায়বিচার, ভোক্তা অধিকার সুরক্ষা এবং সমণ্বিত বিনিয়োগ অপরিহার্য। ফলে সাংবাদিকতা নীরব হওয়া উচিত নয়।
 
একটি সুষ্ঠু আর্থিক সমাজ গড়ে তোলার জন্য, সাংবাদিকতা একটি তাৎক্ষণিক স্বল্পমেয়াদী অস্ত্র হতে পারে। তিনি বলেন, বিজেএফসিআই সাংবাদিকতা জোরদার করতে চায়। আমরা সবাই ডিজিটাল উদ্ভাবনের যুগে গ্রাহক- শ্রমিক, সরকারি কর্মচারী এবং বিনিয়োগকারী হিসাবে বসবাসকারী। সুষ্ঠুভাবে বসবাস করার জন্য  উন্নয়ন এবং নাগরিক অধিকারের প্রয়োজন। 
 
অর্থনৈতিকভাবে পিরামিডের নীচে মানুষদের ভাগ্য মুক্ত করার জন্য সংবাদ মাধ্যমগুলো কর্পোরেট দিক নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করার পরিবর্তে বিনিয়োগ বাড়ানোর উদ্দেশ্য প্রচার করতে হবে। প্রবন্ধে আরও বলা হয়, বাংলাদেশ এটিই প্রথম পেশাধার সাংবাদিকদের সংগঠন, যেখানে সাংবাদিকদের পেশা ও মান উন্নয়নে কাজ করবে। পাশাপাশি ভোক্তা ও বিনিয়োগকারীর স্বার্থও দেখবে। সবশ্রেণির মানুষ এই সংগঠনের প্লাটফর্মে একত্র হয়ে একটি মুক্ত ও স্বচ্ছ অর্থনৈতিক সমাজ গঠনে কাজ করবে।
 
প্রসঙ্গত বিজেএফসিআই মূলত পেশাদার সিনিয়র সাংবাদিকদের নিয়ে গঠিত একটি সংগঠন। দেশে এটি প্রথম সাংবাদিকদের সংগঠন যাদের কাজ এটি মুক্ত ও স্বচ্ছ অর্থনৈতিক সমাজ গঠন। এ সংগঠন সংবাদকর্মীদের পাশাপাশি ভোক্তা ও বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ নিয়ে কাজ করবে। বর্তমান বিজেএফসিআইয়ের সদস্য হচ্ছেন ৮৭ জন। 
 
দুই পর্বে বার্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম পর্বে সংগঠনের সদস্যরা নিজেদের মতামত তুলে ধরেন। বিজেএফসিআইয়ের চেয়ারম্যান সংগঠনটির ভবিষত রূপরেখা তুলে ধরেন। 
 
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের যুগ্ন-সম্পাদক আবু তাহের। সিনিয়র সাংবাদিকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দৈনিক যুগান্তরের বিজনেস এডিটর হেলাল উদ্দিন, ইংরেজি দৈনিক নিউ এইজ এর বিশেষ প্রতিনিধি প্রমাথ রাজন বিশ্বাস, ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদ মোরসালীন নোমানী প্রমূখ। অনুষ্ঠান পরিচালন করেন বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার সিনিয়র রিপোর্টার আতাউর রহমান।  
 
ইত্তেফাক/কেআই 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৫
এশা৭:০৮
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৫০