আদালত | The Daily Ittefaq

মে মাসের আগে কারামুক্তি মিলছে না খালেদার

মে মাসের আগে কারামুক্তি মিলছে না খালেদার
ইত্তেফাক রিপোর্ট১৯ মার্চ, ২০১৮ ইং ০৯:৫২ মিঃ
মে মাসের আগে কারামুক্তি মিলছে না খালেদার
 
মে মাসের পূর্বে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারামুক্তির কোনো সম্ভাবনা নেই। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় তাকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন ৮ মে পর্যন্ত স্থগিত সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের লিভ টু আপিল মঞ্জুর করে দুই সপ্তাহের মধ্যে আপিলের সার-সংক্ষেপ দাখিলের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।
 
প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ আজ সোমবার সকালে এ আদেশ দেন। এর ফলে আপাতত খালেদা জিয়ার কারামুক্তির কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।
 
বুধবার আপিল বিভাগ খালেদা জিয়াকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন রবিবার পর্যন্ত স্থগিত করে দেয়। পাশাপাশি দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষকে লিভ টু আপিল দায়েরের নির্দেশ দিয়ে শুনানির দিন ধার্য করে দেয়। পাশাপাশি স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের জন্যও খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে একটি আবেদন করা হয়। সেই মোতাবেক তিনটি আবেদনের ওপর গতকাল শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।
 
শুনানিতে দুদক কৌঁসুলি খুরশীদ আলম খান বলেন, সাজার মেয়াদ, জামিনের অপব্যবহার না করা, বয়স ও শারীরিক অসুস্থতা এবং পেপারবুক প্রস্তুতের বিষয় বিবেচনায় নিয়ে খালেদা জিয়াকে হাইকোর্ট জামিন দিয়েছে। কিন্তু মাদকদ্রব্য আইনের একটি মামলায় ইতোপূর্বে আপিল বিভাগ দুই বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত এক ব্যক্তিকে জামিন দেয়নি। এই যুক্তি দেওয়ার পরেও হাইকোর্ট খালেদা জিয়াকে জামিন দিয়েছে। এটা ঠিক হয়নি।
 
রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার বিচারকে নস্যাত করতে সকল পন্থাই আসামিপক্ষ গ্রহণ করেছেন। যার কারণে ২০০৯ সালের মামলা চলতি বছরে এসে বিচার শেষ হয়েছে। তিনি বলেন, আপিল শুনানির পূর্বেই যদি নিম্ন আদালতের সাজা আসামি ভোগ করে ফেলার সম্ভাবনা থাকে তখনই জামিনের বিষয়টি বিবেচনা করা হয়ে থাকে। কিন্তু হাইকোর্ট খালেদা জিয়াকে যে বিবেচনায় জামিন দিয়েছে তা সঠিক হয়নি। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, হাইকোর্ট ৪ মাসের মধ্যে এই মামলার পেপারবুক প্রস্তুত করতে বলেছে। আপনারা (আপিল বিভাগ) এটা দুই মাস নির্ধারণ করে দিন। আর এখনই যদি তাকে জামিন দেয়া হয় তাহলে আপিল শুনানি অনিশ্চিত হয়ে পড়বে।
 
খালেদা জিয়ার আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী বলেন, হাইকোর্ট কয়েকটি বিষয় বিবেচনায় নিয়ে আপিলকারীকে জামিন দিয়েছেন। এতে আপিল বিভাগের হস্তক্ষেপ করা ঠিক হবে না। তবে যেসব মামলায় জামিন দেওয়ার ক্ষেত্রে হাইকোর্ট যুক্তি তুলে ধরেনি সেক্ষেত্রে আপিল বিভাগ হস্তক্ষেপ করেছেন। তিনি বলেন, বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মশিউর রহমানকে দুদকের মামলায় ১০ বছরের সাজা দিয়েছে নিম্ন আদালত। সম্প্রতি হাইকোর্ট তাকে ওই মামলায় জামিন দিয়েছেন। আপিল বিভাগ তা বহাল রেখেছেন।
 
শুনানিকালে খালেদা জিয়ার পক্ষে আইনজীবী মওদুদ আহমদ, জয়নুল আবেদীন, মাহবুবউদ্দিন খোকন প্রমুখ আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন। 
 
ইত্তেফাক/মণ্ডল
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৬
এশা৭:০৯
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫১