সংস্কৃতি | The Daily Ittefaq

বাংলাদেশ-ত্রিপুরা সাংস্কৃতিক উত্সব শুরু আজ

বাংলাদেশ-ত্রিপুরা সাংস্কৃতিক উত্সব শুরু আজ
আসিফুর রহমান সাগর১৯ জানুয়ারী, ২০১৭ ইং ০০:৫১ মিঃ
বাংলাদেশ-ত্রিপুরা সাংস্কৃতিক উত্সব শুরু আজ

ঢাকায় আজ শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ-ত্রিপুরা সাংস্কৃতিক উত্সব। প্রথমবারের মত এ উত্সব হচ্ছে ঢাকায়। মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অন্যান্য রাজ্যের মত ত্রিপুরার জনগণ বুক আগলে দাঁড়িয়েছিল। সীমান্তবর্তী রাজ্য হওয়ায় ত্রিপুরা অঞ্চলই ছিল মুক্তিযোদ্ধা ও শরণার্থীদের প্রথম গন্তব্য। বাংলা ও ত্রিপুরার সংস্কৃতির মধ্যেও মিল রয়েছে। সেই বন্ধুত্বের মাত্রাকে আরো প্রসারিত করতে শুরু হচ্ছে যৌথ সাংস্কৃতিক উত্সব। ১৯ থেকে ২১ জানুয়ারি বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির নন্দনমঞ্চ, জাতীয় নাট্যশালা, পরীক্ষণ থিয়েটার হল, স্টুডিও থিয়েটার হল, সেমিনার রুম, চারুকলা গ্যালারি ও নন্দনমঞ্চে এ উত্সব উপলক্ষে অনুষ্ঠান আয়োজন থাকবে। এতে অংশ নিতে ত্রিপুরা থেকে গৌতম দাসের নেতৃত্বে ত্রিপুরা সরকারের সংস্কৃতিমন্ত্রী ভানু লাল সাহা ও ৬০ সদস্যের সাংস্কৃতিক-নাগরিক প্রতিনিধি দল গতকাল বুধবার ঢাকা এসেছে। এই উত্সবের সহযোগিতা করেছে সরকারের সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় ও শিল্পকলা একাডেমি।

 
এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশে ত্রিপুরা সাংস্কৃতিক উত্সব পর্ষদের চেয়ারম্যান রামেন্দু মজুমদার বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে ত্রিপুরার অবিচ্ছেদ্য বন্ধন রয়েছে। সেই বন্ধন দৃঢ় করতে আর দুই অঞ্চলের মানুষের মাঝে সম্পর্ক বৃদ্ধির জন্য এই উদ্যোগ। তিনি জানান, আগামী বছরের আয়োজনটি হবে ত্রিপুরায়। তারপর আবার ঢাকায়। এভাবে নিয়মিতভাবে এ উত্সব চলতে থাকবে। মুক্তিযোদ্ধা নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু বলেন, মুক্তিযুদ্ধে ত্রিপুরার জনগণ বাংলাদেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিল। সেই বন্ধুত্বকে এগিয়ে নিতেই দু’দেশের সম্পর্ক উন্নয়নে এই উত্সব আয়োজন ভূমিকা রাখবে বলে আমরা আশা রাখি।
 
আজ বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে চারটায় শিল্পকলা একাডেমির নন্দনমঞ্চে এই উত্সবের উদ্বোধন করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিশেষ অতিথি থাকবেন ত্রিপুরা রাজ্য সরকারের সংস্কৃতিমন্ত্রী ভানু লাল সাহা। সম্মানিত অতিথি থাকবেন ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা, ত্রিপুরা এমবিবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক গৌতম বসু, বাংলাদেশ ত্রিপুরা সাংস্কৃতিক উত্সব পর্ষদের কো-চেয়ারম্যান নাসিরউদ্দিন ইউসুফ, শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, ত্রিপুরা সাংস্কৃতিক প্রতিনিধি দলের দলনেতা গৌতম দাস। বাংলাদেশে ত্রিপুরা সাংস্কৃতিক উত্সব পর্ষদের চেয়ারম্যান রামেন্দু মজুমদারের সভাপতিত্বে স্বাগত ভাষণ দেবেন পর্ষদের সদস্য সচিব সেলিম শামসুল হুদা চৌধুরী। উদ্বোধনী পর্ব শেষে জাতীয় চিত্রশালায় ত্রিপুরা ও বাংলাদেশের চিত্রশিল্পীদের অংশগ্রহণে চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন বরেণ্য শিল্পী রফিকুন নবী। এরপর সাংস্কৃতিক আয়োজনে থাকবে বাংলাদেশ ও ত্রিপুরার শিল্পদের পরিবেশনায় আবৃত্তি, গান ও নাচ।
 
উত্সবের দ্বিতীয় দিন ২০ জানুয়ারি বিকাল সাড়ে ৩টায় শিল্পকলা একাডেমির স্টুডিও থিয়েটার হলে থাকছে বাংলাদেশ ও ত্রিপুরার কবি ও আবৃত্তিশিল্পীদের অংশগ্রহণে স্বরচিত কবিতা পাঠ ও আবৃত্তির আসর। এই আয়োজনে সভাপতিত্ব করবেন কথা-সাহিত্যিক সেলিনা হক। একই দিন সন্ধ্যে ৬টায় একাডেমির পরীক্ষণ থিয়েটার হলে মঞ্চায়ন হবে থিয়েটারের নাটক ‘পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়’।
 
উত্সবের শেষ দিন অর্থাত্ ২১ জানুয়ারি বিকেল ৩টায় জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার হলে ‘বাংলাদেশ-ত্রিপুরার অভিন্ন সাংস্কৃতিক বন্ধন’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। এতে মূল প্রবন্ধ পাঠ করবেন হারুন হাবীব। আলোচনা করবেন ভূপাল সিনহা, মোজাহিদ রহমান, সেলিম শাহ ও অধ্যাপক শফি আহমেদ। একই দিন বিকেল  সাড়ে পাঁচটায় জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে থাকছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সন্ধ্যা ৬টায় পরীক্ষণ থিয়েটার হলে ত্রিপুরার রুপম নাট্যগোষ্ঠী মঞ্চায়ন করবে ‘হারুন অল রশীদ’ শিরোনামের বাংলা নাটক। এটি পরিচালনা করেছেন কুমার শংকর পাল।

ইত্তেফাক/এএন

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ইং
ফজর৫:১১
যোহর১২:১৩
আসর৪:২১
মাগরিব৬:০১
এশা৭:১৪
সূর্যোদয় - ৬:২৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৬