সংস্কৃতি | The Daily Ittefaq

গ্যালারি কায়ায় চিত্র প্রদর্শনী শুরু

গ্যালারি কায়ায় চিত্র প্রদর্শনী শুরু
ইত্তেফাক রিপোর্ট০৫ মে, ২০১৭ ইং ২০:৪০ মিঃ
গ্যালারি কায়ায় চিত্র প্রদর্শনী শুরু
উত্তরায় গ্যালারি কায়া পেরিয়ে এলো প্রতিষ্ঠার ১৩ বছর। সেই শিল্পযাত্রা ছিল আকর্ষণীয়, নতুন নতুন ছবি ও আইডিয়া নিয়ে হাজির হয়েছে কায়া। এই পথ পরিক্রমাকে উদযাপন করতেই উত্তরার গ্যালারি কায়ায় শুরু হয়েছে বিশেষ প্রদর্শনী। প্রদর্শনীতে রয়েছে দেশের মাস্টার পেইন্টারসহ স্বনামধন্য নবীন ও প্রবীণ শিল্পীদের ছবি।
 
শুক্রবার এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন ইত্তেফাক-এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক তাসমিমা হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থপতি শামসুল ওয়ারেস। স্বাগত বক্তব্য রাখেন গ্যালারির পরিচালক শিল্পী গৌতম চক্রবর্তী। এসময় উপস্থিত ছিলেন কবি ও সাংবাদিক আনিসুল হক, শিল্পী রণজিৎ দাস, অভিনেত্রী আফসানা মিমি।
 
গত ১৩ বছরে ৯৩টি প্রদর্শনী করেছে গ্যালারি কায়া। এর মধ্যে একক প্রদর্শনী ৫৪টি, দলীয় ৩৯টি প্রদর্শনী করেছে। এছাড়া দেশে ও দেশের বাইরে পাঁচটি আর্ট ক্যাম্প, পাঁচটি আর্ট ট্রিপ ও তিনটি কর্মশালা পরিচালনা করেছে এ গ্যালারিটি।
 
তাসমিমা হোসেন বলেন, তিরিশের দশক থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত ছবি স্থান পেয়েছে। এতে বাংলাদেশের ছবিগুলোর একটা ধারাবাহিক চিত্র পাওয়া যায়। তাছাড়া সব ছবির পেছনেই একটা গল্প থাকে। ছবি দেখার পাশাপাশি সেই গল্পগুলোও খুব আকর্ষণীয়। বিশেষ করে মাস্টার পেইন্টারদের ছবি আঁকার পেছনের গল্পগুলো আমাকে টানে। তিনি বলেন, আগে ছবির দাম অনেক কম ছিল। এখন ছবি আঁকার ক্ষেত্রে পরিবর্তন এসেছে। নানা মাত্রার ছবি আঁকছেন শিল্পীরা। ছবির দামও অনেক বেড়েছে। তার মানে শিল্পরসিকদের কদর বেড়েছে ছবির প্রতি। তিনি বলেন, অনেক তরুণ ছবি আঁকা বিষয়ে পড়ছেন, ছবি আঁকছেন। অনেক মেয়েরাও ছবি আঁকছেন, এটা খুব আশার কথা।
 
শামসুল ওয়ারেস বলেন, উত্তরায় গ্যালারি চলবে কি চলবে এমন সংশয়ের মধ্য দিয়েই গ্যালারি কায়া ১৩ বছর পেরিয়ে এলো। গৌতমের চেষ্টা ও নিষ্ঠা এর পেছনে কাজ করেছে। রয়েছে শিল্পরসিকদের পৃষ্ঠপোষকতা। তিনি বলেন, শিল্পী সৃষ্টির পেছনে কোন ম্যাজিক থাকে না। কিন্তু শিল্পীদের হাতে এমন ম্যাজিক তাকে যে তা শিল্পরসিকের মনকে স্পর্শ করে। ব্যস্ত জীবন, সবকিছুর বাণিজ্যিকীকরণ হচ্ছে। এসবের চাপ নিয়েই শিল্পীরা মানুষের হৃদয়কে স্পর্শ করতে ছবি আঁকছেন।
শিল্পী গৌতম চক্রবর্তী বললেন, আমরা তরুণদের প্রদর্শনীই বেশি করেছি। আমি নিজে শিল্পী, তাই জানি তরুণ শিল্পীদের সংগ্রামের সময়টা কেমন কাটে। তাই তরুণদের প্রাধান্য দেয়া। তাদের কাজের ক্ষেত্র তৈরি করার চেষ্টা। যখন শুরু করি একটা চ্যালেঞ্জ ছিলই, উত্তরায় ছবির গ্যালারি শিল্পরসিকদের দৃষ্টি কাড়তে পারবে কি পারবে না। আমাদের পরিকল্পনা ছিল নতুন নতুন আকর্ষণীয় প্রদর্শনী নিয়ে দর্শকদের সামনে হাজির হওয়া। বলা যায়, সবার সহযোগিতায় পেরিয়ে এসেছি এতোটা বছর।’
 
তাসমিমা হোসেন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নারীদের অগ্রযাত্রাকে সম্মানিত ও উৎসাহিত করে আসছেন। যা বাংলাদেশের নারী অগ্রযাত্রায় প্রেরণা যুগিয়ে চলেছে। তাছাড়া পারিবারিকভাবে তাদের শিল্পের পৃষ্ঠপোষকতায় আগ্রহ ও উৎসাহ সর্বজন বিদিত।
 
প্রদর্শনীতে স্থান পাওয়া শিল্পীরা হলেন- কে জি সুব্রামানয়িান, মোহাম্মদ কবিরয়িা, আমিনুল ইসলাম, মুর্তজা বশীর, দবেদাস চক্রর্বতী, সমরজিৎ রায় চৌধুরী, রফকিুন নবী, হামিদুজ্জামান খান, মনসুর-উল-করিম, চন্দ্র শেখর দে, রতন মজুমদার, শম্ভু আর্চায, জামাল আহমদে, কাজী রকিব, রণজিৎ দাস, কামাল উদ্দিন, আহমদে শামসুদ্দোহা, মাসুদা কাজী, শেখ আফজাল হোসেন, শশির ভট্টাচার্য, রাফি হক,অতীন বসাক, মোহাম্মদ ইকবাল, নগরবাসী বর্মণ, শেখ মো. রোকনুজ্জামান, আশরাফুল হাসান, রুহুল আমিন তারেক, সোহাগ পারভেজ, সুব্রত দাস, শাহানূর মামুন, কাওসার শিকদার ও অংকুর সিংহ।
 
প্রদর্শনীতে ৫০টি চিত্রকর্ম স্থান পেয়েছে। এগুলো ১৯৫৮ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে আঁকা। প্রদর্শনীটি চলবে ২৮ মে পর্যন্ত। প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত খোলা থাকবে।
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫৩
আসর৪:১৬
মাগরিব৬:০১
এশা৭:১৩
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৬