সংস্কৃতি | The Daily Ittefaq

রাজশাহীতে ‘ঋত্বিক সম্মাননা পদক বিতরণ ও চলচ্চিত্র উৎসব’ শুরু

রাজশাহীতে ‘ঋত্বিক সম্মাননা পদক বিতরণ ও চলচ্চিত্র উৎসব’ শুরু
আনিসুজ্জামান, স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী০৫ নভেম্বর, ২০১৭ ইং ১৭:২১ মিঃ
রাজশাহীতে ‘ঋত্বিক সম্মাননা পদক বিতরণ ও চলচ্চিত্র উৎসব’ শুরু
‘ঋত্বিক সম্মাননা পদক ও চলচ্চিত্র উৎসব’ (শনিবার) রাজশাহীতে শুরু হয়েছে। ৪ নভেম্বর ‘ঋত্বিক কুমার ঘটক’ এর ৯২তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটি এ উৎসবের আয়োজন করে। শনিবার বিকেলে রাজশাহী হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের মিলনায়তনে উৎসবের উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট কথাসহিত্যিক অধ্যাপক (অব.) হাসান আজিজুল হক। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি ডা.এফ.এম.এ জাহিদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি আহসান কবির লিটন, ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান মাসুদ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদের সভাপতি ড. সাজ্জাদ বকুল প্রমুখ। 
 
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অধ্যাপক (অব.) হাসান আজিজুল হক বলেন, ঋত্বিক ঘটক তার জীবনে  সাংস্কৃতিক ভূমিকা পালন করেছেন। তার ভিন্নধর্মী চলচ্চিত্র নির্মাণের কারণে তার পরিচিতি তিনি একজন বিশ্বমানের চলচ্চিত্রকার। সাংস্কৃতিক দিক নিয়ে ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটি রাজশাহী স্বাধীনভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ঢাকার বাইরে রাজশাহীতে তারা এর আয়োজন করে যাচ্ছে যা অনেক সম্মানজনক। 
 
অনুষ্ঠানের শুরুতে ঋত্বিক সম্মাননা পদক ও ঋত্বিক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। পরে ঋত্বিক ঘটকের ৯২তম জন্মদিনে তার পৈত্রিক নিবাস রাজশাহীতে কথাসহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, ভাষা সৈনিক আবুল হোসেন ও ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি ডা.এফ.এম.এ জাহিদ এবারের ঋত্বিক সম্মাননা পদক যথাক্রমে ভিকে জোসেফ, অধ্যাপক ফজলুল হক ও অধ্যাপক রুহুল আমিন প্রামানিকের হাতে তুলে দেন।
 
আগামী ৭ নভেম্বর উৎসবের সমাপনী দিনে বাকি তিনজন পদকপ্রাপ্ত যথাক্রমে নাট্যজন ও সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর,  ব্রাত্য বসু এবং অভিনেত্রী জয়া আহসানের হাতে এ পদক তুলে দেয়া হবে। এদিন ঋত্বিক কুমার ঘটককে নিয়ে অধ্যাপক ফজলুল হক এর লেখা বইয়ের মোড়ক উন্মোচন এবং পুরস্কার বিতরণ ও চলচিত্র প্রদর্শনীর মাধ্যমে উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠিত হবে।  থিয়েটার ও সিনেমায় ভূমিকার জন্য সেরা অভিনেতা-অভিনেত্রীদের প্রতি বছর ‘মেঘে ঢাকা তারা’ খ্যাত নির্মাতা ঋত্বিক কুমার ঘটকের নামে পুরস্কার দেয়া হয়।
 
৬ নভেম্বর ও ৭ নভেম্বর প্রতিদিন বিকেল ৫টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত রাজশাহীর পদ্মাতীরের ‘লালন মঞ্চে’ চলচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। রবিবার (৫ নভেম্বর) শিবলী নোমানের চলচ্চিত্র (ত্রি), তাওকীর ইসলামের চলচ্চিত্র (আয়না) ও শাহরিয়ার চয়নের (গন্তব্যহীন) প্রদর্শিত হয়। ৬ নভেম্বর মাহমুদ হোসেন মাসুদের (আলোর দেখা), শাহরিয়া হাসান শুভোর (বিবেক), নাহিদা সুলতানা সুচির (ঘুড়ি) ও বিভাস রায়ের (মায়োসিস) এবং ৭ নভেম্বর আহসান কবীর লিটনের (প্রত্যাবর্তন) চলচিত্র প্রদর্শিত হবে। 
 
জানা যায়, ঋত্বিকের পুরো নাম ঋত্বিক কুমার ঘটক। তিনি ১৯২৫ সালের ৪ নভেম্বর ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন এবং কলকাতায় ১৯৭৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি মারা যান। বর্তমানের রাজশাহী হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজটিই চলচ্চিত্রকার ঋত্বিক কুমার ঘটকের পৈত্রিক নিবাস। ঋত্বিক ঘটক চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির পাঠ শেষ করেন রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল থেকে। ১৯৪৬ সালে আইএ পরীক্ষা দেন রাজশাহী কলেজ থেকে। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পরপরই পরিবারের সঙ্গে চলে যান ভারতে। তার নির্মিত চলচ্চিত্রগুলো এখনও দর্শকদের বিমোহিত করে।
 
ভিন্নধর্মী চলচ্চিত্র নির্মাণের কারণে তিনি আজো স্মরণীয়, তার সিনেমাগুলো বহুল প্রশংসিত। ঋত্বিক নির্মিত সিনেমাগুলো হলো- নাগরিক, অযান্ত্রিক, বাড়ী থেকে পালিয়ে, মেঘে ঢাকা তারা, কোমল গান্ধার, সুবর্ণরেখা, তিতাস একটি নদীর নাম ও যুক্তি তক্কো আর গপ্পো।
 
উল্লেখ্য, ২০০৯ সাল থেকে এ পদক দিয়ে আসছে ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটি। গতবছর ঋত্বিক ঘটক এর ৯১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে দুই বাংলার পাঁচ চলচ্চিত্রকার ও গবেষক যথাক্রমে ঋত্বিক ঘটক সম্মাননা পদক পান।
 
ইত্তেফাক/এমআই
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৫
এশা৭:০৮
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৫০