ঢাকা রবিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৫ ফাল্গুন ১৪২৫
১৯ °সে

সুদসহ রিজার্ভ চুরির অর্থ ফেরত পাওয়ার আশা বাংলাদেশ ব্যাংকের

সুদসহ রিজার্ভ চুরির অর্থ ফেরত পাওয়ার আশা বাংলাদেশ ব্যাংকের
বাংলাদেশ ব্যাংক কেন্দ্রীয় কার্যালয়। ফাইল ছবি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি হওয়া রিজার্ভের অর্থ সুদসহ ফেরত পাওয়ার আশা করছেন প্রতিষ্ঠানটি আইনজীবী আজমালুল হোসেন। রবিবার বাংলাদেশ ব্যাংক আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ আশা করেন তিনি।

আজমালুল হোসেন জানান, সকল আলামতই বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে এবং আরসিবিসি ব্যাংকের বিপক্ষে। সুনির্দিষ্টভাবে তিনি বলেন, ১০৩ পৃষ্ঠাব্যাপী যে ৪০০ অনুচ্ছেদের অভিযোগ নিউইয়র্কের আদালতে দাখিল করা হয়েছে তার মধ্যে ২০০ অনুচ্ছেদই সরাসরি আরসিবিসি ব্যাংকের বিরুদ্ধে।

তিনি আরো বলেন, ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি ৪ থেকে ৯ তারিখ পর্যন্ত ঐ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট শাখার সিসিটিভি বন্ধ ছিল। ৭ ফেব্রুয়ারি রোববার ব্যাংকটি বন্ধ ছিল এবং তখন সুইফট সার্ভার খোলা থাকার কথা। অথচ ছুটির দিনে ঐ ব্যাংকের কেউ একজন ঐ সার্ভার বন্ধ করে দেয়, যাতে করে বাংলাদেশ থেকে ফোনে সুইফট বার্তা সেখানে যেতে না পারে। এছাড়া, ফিলিপিনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক আরসিবিসি ব্যাংককে এরই মধ্যে একুশ মিলিয়ন ডলার জরিমানা করেছে। সম্প্রতি ব্যাংকটির সংশ্লিষ্ট শাখা ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে ৫৬ বছরেরও বেশি জেল এবং বিপুল অংকের জরিমানা করেছে ফিলিপিনের আদালত।

তিনি জানান, দীর্ঘ দু’বছরেরও বেশি সময় ধরে অনুসন্ধান চালিয়ে এফবিআই যে প্রতিবেদন ক্যালিফোর্নিয়ার আদালতে পেশ করেছে এবং বাংলাদেশকেও দিয়েছে তাতে আরসিবিসি ব্যাংকের সুস্পষ্ট সংশ্লিষ্টতার কথা জানানো হয়েছে। এসব তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতেই ঐ ব্যাংকের দায় প্রমাণ করতে বেগ পেতে হবে না বলে জানিছেন বাংলাদেশ ব্যাংক আইনজীবী।

আরও পড়ুনঃ র‌্যাগিংয়ের অভিযোগে ৬ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কার

নিউইয়র্ক ফেড এই মামলায় বাংলাদেশ ব্যংককে কারিগরি সহায়তা দিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। সুইফটও অনুরূপ সহায়তা দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আর সে কারণেই বাংলাদেশ ব্যাংক অর্থ ফেরৎ পেতে খুবই আশাবাদী বলে আজমালুল সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

যেহেতু নিউইয়র্ক ফেডেই প্রায় সকল দেশের রিজার্ভের অর্থ রাখা হয় তাই বাংলাদেশের পক্ষে সেখানেই মামলা করাটা যৌক্তিক হয়েছে বলেও আজমালুল জানিয়েছেন। তিনি বলেন, যাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে তাদের বেশিরভাগেরই যুক্তরাষ্ট্রে সম্পদ রয়েছে। আরসিবিসি ব্যাংকের শাখা ও সম্পদ রয়েছে নিউ ইয়র্কে। তাই এই মামলার রায় হলে তা বাস্তবায়নে কোনো সমস্যা হবে না। আর সে কারণেই মামলাটি নিউইয়র্কে করা হয়েছে।

ইত্তেফাক/টিএস

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন