শিক্ষাঙ্গন | The Daily Ittefaq

ক্যাম্পাসের ভিতরেই বাসের চাপায় আহত কুবি শিক্ষার্থী

ক্যাম্পাসের ভিতরেই বাসের চাপায় আহত কুবি শিক্ষার্থী
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা১০ জুলাই, ২০১৮ ইং ১৯:১৮ মিঃ
ক্যাম্পাসের ভিতরেই বাসের চাপায় আহত কুবি শিক্ষার্থী
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পরিবহনের জন্য ভাড়ায় চালিত বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথোরিটির (বিআরটিসি) একটি বাসের চাপায় ক্যাম্পাসের ভিতরেই গুরুতর আহত হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী। ধারাবাহিকভাবে এমন দুর্ঘটনার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নাজুক পরিবহন ব্যবস্থা ও প্রশাসনের উদাসীনতাকেই দায়ী করছে বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যরা।
 
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুরে ক্যাম্পাস থেকে শহরের উদ্দেশ্যে শিক্ষার্থী পরিবহনের বিআরটিসির বাসগুলো ছেড়ে যাচ্ছিল। এ সময়ে পরিবহন মাঠ থেকে মূল সড়কে ছেড়ে যাওয়ার সময় বিআরটিসির (ঢাকা মেট্রো গ-১১-৫৫২২) বাস ইংরেজি বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মাহামুদুল হাসানকে চাপা দেয়। এ সময় মাহামুদুল মাঠে পড়ে যায়। এরপরও বাস চালক ভ্রুক্ষেপ না করে মাহমুদুলের পায়ের ওপর দিয়ে বাস চালিয়ে নেয়। 
 
গুরুতর আহত অবস্থায় মাহামুদুলকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে যায় তার সহপাঠীরা। মেডিকেল সেন্টারে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। চিকিৎসকরা জানান, 'মাহামুদুলের ডান পায়ের বেশ কয়েকটি জায়গায় গুরুতর জখম হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে হস্তান্তর করা হয়েছে।’
বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ভাড়ায় চালিত বিআরটিসি পরিবহনের বাসগুলোর ফিটনেস ও চালকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন অভিযোগ থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোন ব্যবস্থা নেয়নি। ফলে প্রতিনিয়তই ঘটছে এমন দুর্ঘটনা।
 
এর আগে গত ২৯ মার্চ কুমিল্লা কোটবাড়িতে বিআরটিসি পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো ব-১১-৪৯৭৬) বাসের চাপায় গুরুতর আহত হন বিশ্ববিদ্যালয় আইন বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী শিহাব উদ্দিন। ২০১৪ ও ২০১৫ এবং ২০১৬তে বিআরটিসির এ ফিটনেসবিহীন বাস, চালকের অদক্ষতা ও খেয়ালীপনার কারনে দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ পথচারীরা।
 
বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এসব বিষয়ে বিভিন্ন সময়ে অপর্যাপ্ত, ত্রুটিপূর্ণ বাস পরিবর্তন এবং চালকদের বিরুদ্ধে আন্দোলনসহ অভিযোগ করে এলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে কোন ধরণের কার্যকরি ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। 
 
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবছর শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়লেও বাসের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে না। যেখানে কর্মকর্তাদের জন্য শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রয়েছে সেখানে শিক্ষার্থীরা চলাচল করে বিআরটিসির পরিত্যক্ত বাসে। ভালো বাসগুলো আমাদের জন্য নয়। জীবনের ঝুঁকি নিয়েই এ পরিত্যক্ত বাসে আমাদের প্রতিদিন চলাচল করতে হয়।’
 
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন কমিটির আহবায়ক ও প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, ‘বিষয়টি আমি জেনেছি এবং এ সংক্রান্ত একটি লিখিত অভিযোগও পেয়েছি। উপাচার্য স্যারের সঙ্গে আলোচনা করে এ নিয়ে যত দ্রুত সম্ভব যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
 
ইত্তেফাক/নূহু
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩১
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৫
মাগরিব৫:৫৯
এশা৭:১২
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৪