শিক্ষাঙ্গন | The Daily Ittefaq

চবিতে গণমাধ্যম বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন শুরু

চবিতে গণমাধ্যম বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন শুরু
চবি সংবাদদাতা১৭ জুলাই, ২০১৮ ইং ১৯:৪৬ মিঃ
চবিতে গণমাধ্যম বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন শুরু
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) গণমাধ্যম, যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিষয়ক তিন দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সম্মেলন শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের এ কে খান আইন অনুষদ মিলনায়তনে সম্মেলন উদ্বোধন করেন চবি উপার্চায প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত সম্মেলনের শিরোনাম দেয়া হয়েছে ‘মিডিয়া কমিউনিকেশন অ্যান্ড জার্নালিজম প্রসপেক্টস অ্যান্ড চ্যালেঞ্জেস ইন বাংলাদেশ’। 
 
সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চবি উপাচার্য বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশের সংবাদ মাধ্যমগুলো শতভাগ স্বাধীনতা ভোগ করছে। তবে সংবাদমাধ্যম স্বাধীনতা ভোগ করলেও, কেউ কেউ এর অপব্যবহারও করছে। ব্যবহারের চেয়ে অপব্যবহার বেশি হওয়ার ফলে গণমাধ্যমগুলো ব্যক্তি বিশেষের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে। এটি রোধ করা না গেলে সংবাদমাধ্যম তার বিশ্বাসযোগ্যতা হারাবে।
 
তরুণ সমাজ মিডিয়া দ্বারা প্রভাবিত উল্লেখ করে তিনি বলেন, তরুণরা মিডিয়া থেকে অনুকরণ করছে। যা তাদের ব্যক্তিগত জীবনে প্রভাব ফেলছে। মিডিয়ার প্রভাবে চিন্তা চেতনা, সংস্কৃতি, আচার-আচরণ সর্বোপরি মনোজগতে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটছে। শুধু তাই নয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকেন্দ্রিক আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটছে।
 
এর আগে বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সায়মা আলমের সঞ্চালনায় ও অধ্যাপক ড. শহিদ উল্লাহর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এম এ মালেক। বিশেষ অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, সাংবাদিকতায় আমার কোনো প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রি নেই। তবে ৫৮ বছর ধরে এই সংবাদ প্রকাশনার সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। এই অভিজ্ঞতার আলোকে বলছি, তথ্য প্রযুক্তির সম্মিলনে গণমাধ্যম আজ শিল্প হয়ে উঠেছে। কিন্তু সংবাদগুলো আগের মত সত্যনিষ্ঠ হচ্ছে না। পাঠকরা সংবাদকে এখন একবাক্যে গ্রহণ করছে না। তবে যে পরিবর্তনের ছোঁয়া লেগেছে তা সময় এবং চাহিদার কারণেই। আজকাল নিজেদের এগিয়ে রাখার তাগিদে গণমাধ্যমগুলোকে হালনাগাদ তথ্য সরবরাহ করতে হচ্ছে।
 
এছাড়াও সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, গণমাধ্যমের দায়িত্ব আছে। একজন সাংবাদিক কোনোভাবেই চলতি ঘটনার সৃষ্টিকর্তা হতে পারে না।
 
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন আয়োজক কমিটির সদস্য সহযোগী অধ্যাপক আলী আজগর চৌধুরী, বিভাগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ। এতে বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ছাড়াও বিভিন্ন অনুষদের ডিন ও বিভাগের সভাপতিরাও উপস্থিত ছিলেন।
 
তিন দিনের এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনকে ৩টি প্ল্যানারি ও ১৫টি প্যারালাল অধিবেশনে ভাগ করা হয়েছে। যেখানে ১৩টি সুনির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর ১৩টি প্যারালাল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের জন্যে নির্ধারিত দুটি পৃথক অধিবেশনেও গবেষকরা তাদের প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন। এদিকে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিষয়ক এই সম্মেলনে বক্তা হিসেবে উপস্থিত হয়েছেন ভারতের গণমাধ্যম ও যোগাযোগ গবেষক অধ্যাপক ড. বিপ্লব লৌহ চৌধুরী ও অধ্যাপক ড. সিএইচএসএন মূর্তি, রাশিয়ান অধ্যাপক ড. সের্গেহ দেভিদভ, চীনা অধ্যাপক ড. জিয়াওজি জু, মালয়েশিয়ান যোগাযোগ গবেষক অধ্যাপক ড. জমিলা হাজি আহমদ, নেপালের লক্ষণ দত্ত পান্ট, ভুটানের সাংবাদিক তাসহি দেমা, যুক্তরাজ্যের সাংবাদিক উলদোজ সোহরাবি লারকি এবং পাকিস্তানি অধ্যাপক ড. আবিদা এজাজ। ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, চীন, মালয়েশিয়া, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়ার মোট ২৯ জন প্রবন্ধকারও সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন। 
 
এছাড়া চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও ঢাকা, রাজশাহী, জাহাঙ্গীরনগর, জগন্নাথ, খুলনা, কুমিল্লা, ইউল্যাব, আইইউবি, বরেন্দ্র, ড্যাফোডিল ও পোর্ট সিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা গবেষণা প্রবন্ধ পাঠ করবেন।
 
ইত্তেফাক/কেআই 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩০
যোহর১১:৫৩
আসর৪:১৭
মাগরিব৬:০২
এশা৭:১৫
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৭