শিক্ষাঙ্গন | The Daily Ittefaq

বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তির নিন্দা ঢাবি শিক্ষক সমিতির

বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তির নিন্দা ঢাবি শিক্ষক সমিতির
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক২৪ জুলাই, ২০১৮ ইং ২০:৪৯ মিঃ
বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তির নিন্দা ঢাবি শিক্ষক সমিতির
কোটা আন্দোলনে যুক্ত নিপীড়ন বিরোধী শিক্ষকদের সমাবেশে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ নিয়ে কটূক্তিমূলক বক্তব্যের নিন্দা জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি(ডুটা)। এর প্রতিবাদে আগামীকাল বুধবার সকাল ১১টায় অপরাজেয় বাংলায় মানব বন্ধনের ডাক দিয়েছে সংগঠনটি। 
 
মঙ্গলবার ডুটা সভাপতি অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়। 
 
বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, ‘১৯ জুলাই ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে অনুষ্ঠিত এক সমাবেশে অত্যন্ত অপ্রাসঙ্গিকভাবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মাননীয়  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পর্কে অধ্যাপক আকমল হোসেন (অবসরপ্রাপ্ত) বলেছেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী, তিনি কি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন? তাঁর পিতা ... তিনি কি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন?’ 
 
আমরা বিস্মিত হই এই ভেবে যে, এ ধরনের ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য সত্ত্বেও উক্ত সমাবেশের আয়োজকরা তার এ-বক্তব্যের কোনো প্রতিবাদ তো করেনইনি বরং বাহবা দিয়েছেন। ঘটনাপরম্পরায় প্রতীয়মান হয় যে, জনাব আকমল হোসেনের এই বক্তব্য তার একক বক্তব্য নয়, এটি সেই অতি প্রতিক্রিয়াশীলদের অপভাবনার বহিঃপ্রকাশ; যারা মহান মুক্তিযুদ্ধকে নিয়ে বারংবার বিতর্ক তৈরির অপপ্রয়াস চালাচ্ছেন। মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে আঘাত করে তারা শুধুমাত্র মুক্তিযুদ্ধকেই নয়, বাংলাদেশের অস্তিত্বের উপরও আঘাত করেছেন।’
 
বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়, ‘আমরা মনে করি তার এই ধরনের বক্তব্য ইতিহাস বিকৃতির অপপ্রয়াস, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পরিপন্থী, সংবিধানবিরোধী এবং সর্বোপরি রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল। এসব মিথ্যা ও দুরভিসন্ধিমূলক বক্তব্যের মধ্য দিয়ে এই চক্র কোটা আন্দোলনকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করছেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করার হীন ও গভীর চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছেন।’
 
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘তরুণ-বুদ্ধিদীপ্ত শিক্ষার্থীদের আবেগ ব্যবহার করে মহান মুক্তিযুদ্ধ, জাতির জনক এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে হেয় করার এ অশুভ ও অপরাজনৈতিক প্রয়াসের আমরা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। একই সাথে তার এই বক্তব্য অনতিবিলম্বে প্রত্যাহার পূর্বক জাতির কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনার দাবি জানাচ্ছি। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি আমরা আহ্বান জানাই।’ বিজ্ঞপ্তি।
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩১
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৫
মাগরিব৫:৫৯
এশা৭:১২
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৪