লাইফস্টাইল | The Daily Ittefaq

প্রতি ৮০ সেকেন্ডে মৃত্যু ঘটে একজন নারীর

প্রতি ৮০ সেকেন্ডে মৃত্যু ঘটে একজন নারীর
হৃদরোগ-স্ট্রোক
ডা. মোড়ল নজরুল ইসলাম২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং ১০:৪২ মিঃ
প্রতি ৮০ সেকেন্ডে মৃত্যু ঘটে একজন নারীর
প্রতীকী ছবি
হিন্দি সিনেমার জীবন্ত কিংবদন্তি এক সময়ের হার্টথ্রব নায়িকা শ্রীদেবীর হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যু হয়েছে মাত্র ৫৪ বছর বয়সে। শ্রীদেবীর হার্ট অ্যাটাক নিয়ে লেখা আমার উদ্দেশ্য নয়, নারীদেরও যে মধ্যবয়সে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে তা আমাদের বেশ জোরেসোরেই স্মরণ করিয়ে দিলো। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী শ্রীদেবী যে গুরুতর অসুস্থ ছিলেন তা কিন্তু নয়। দুবাইয়ের একটি ওয়েডিং অনুষ্ঠানে যোগদান করতে যাওয়া শ্রীদেবীর হার্ট অ্যাটাক হয়। আমাদের অনেকেরই ধারণা হচ্ছে, হার্ট অ্যাটাক শুধু পুরুষদেরই বেশি হয়।
 
কিন্তু আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, নারীদের হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি পুরুষের তুলনায় মোটেও কম নয়। আমেরিকার মতো একটি অতি উন্নত দেশের তথ্য হচ্ছে- যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি ৩ জন নারীর মৃত্যুর ক্ষেত্রে ১ জন মারা যান হূদরোগ ও স্ট্রোকের কারণে। অর্থাত্ প্রতি ৮০ সেকেন্ডে মারা যান ১ জন নারী। ধারণা করা হয়, যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৪৪ মিলিয়ন নারী প্রতি বছর হূদরোগে আক্রান্ত হন। ৯০ ভাগ মহিলার হূদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি থাকে। পুরুষের চেয়ে নারীদের স্ট্রোকের ঝুঁকি অধিক।
 
বিশেষজ্ঞগণ বলেছেন, হার্টকেও সুস্থ রাখা যায়। প্রতিরোধ করা যায় হার্ট অ্যাটাকের মতো দুর্ভাগ্যজনক ঘটনাও। তবে আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের মতে শুধু লাইফ স্টাইল পরিবর্তন করে শতকরা ৮০ ভাগ হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করা যায়। আর এ ব্যাপারে সুইডেনের স্টকহোমের ক্যারোলাইনস্কা ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞ ড: অ্যাগনেটা অ্যাকেসন এক গবেষণা নিবন্ধে উল্লেখ করেছেন, মাত্র ৫টি অভ্যাস ত্যাগ করলে পাঁচ ভাগের চার ভাগ হার্ট অ্যাটাকই প্রতিরোধ করা যায়। যদি গাণিতিক হিসাবে বলি তাহলে বলতে হয় শতকরা ৮০ ভাগ হার্ট অ্যাটাকই প্রতিরোধযোগ্য। যদি আমরা মাত্র পাঁচটি অভ্যাস বদলাতে পারি।
 
আর এই পাঁচটি অভ্যাস হচ্ছে- ধূমপান একেবারেই বর্জন করতে হবে, মদ্যপান পরিহার সম্ভব না হলে মডারেট ড্রিংকিং করা যেতে পারে, প্রতিদিন নিয়মিত ব্যায়াম বা শরীর চর্চা করতে হবে, প্রতিদিন কম চর্বিযুক্ত স্বাস্থ্য ও পুষ্টিকর খাবার আহার করতে হবে এবং সবশেষে পেটের চর্বি বা বেলিফ্যাট স্বাভাবিক রাখতে হবে। ড. অ্যাকেসন মনে করেন মানুষ তার লাইফ স্টাইল পরিবর্তন করে উল্লেখযোগ্যভাবে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমাতে পারে। তিনি উল্লেখ করেছেন শুধু ধূমপান পরিত্যাগ করে শতকরা ৩৬ ভাগ হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করা যায়। যারা নিয়মিত সাইক্লিং, সুইমিং, ওয়াকিং বা অন্যকোন প্রকার ব্যায়াম করেন তাদের শতকরা ৩ ভাগ, যাদের কোমরের মাপ ৩৭ ইঞ্চির কম তারা শতকরা ১২ ভাগ এবং যারা দিনে ২ প্যাকের বেশি ড্রিংক না করেন তাদের ক্ষেত্রে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি ১১ ভাগ হ্রাস করা সম্ভব। পাশাপাশি যারা প্রচুর পরিমাণ শাক সবজি, ফল আহার, চর্বিযুক্ত ডেয়ারি প্রডাক্টস পরিহার এবং ফিস আহারে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি শতকরা ১৮ ভাগ হ্রাস করা সম্ভব।
 
ড. অ্যাকেসন এবং তার গ্রুপ আমেরিকান জার্নাল অব কার্ডিওলজিতে উল্লেখ করেছেন, গবেষণায় প্রতীয়মান হয়েছে হৃদরোগ প্রতিরোধে পরিপূর্ণভাবে লাইফ স্টাইল পরিবর্তন করেছেন এমন মাত্র শতকরা একভাগ লোকের সন্ধান পেয়েছেন তারা। আর হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধে সকলকে পরিপূর্ণভাবে ঝুঁকিসমূহ পরিহারে পরামর্শ মেনে চলতে হবে। অন্যথায় হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করা যাবে না। প্রতিহত করা যাবে না কোন অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনাও। তবে সবচেয়ে উদ্বেগজনক তথ্য হচ্ছে, মহিলাদের হার্ট অ্যাটাক হলে প্রথম অ্যাটাকেই নারীদের মৃত্যু ঝুঁকি অধিক।
 
লেখক : চুলপড়া, এলার্জি, চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৬
এশা৭:০৯
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫১