জাতীয় | The Daily Ittefaq

রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া মন্ত্রিসভার অনুমোদন

রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া মন্ত্রিসভার অনুমোদন
অনলাইন ডেস্ক০৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং ২০:৫৮ মিঃ
রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া মন্ত্রিসভার অনুমোদন
ফাইল ছবি
 
নতুন বছরের প্রথম সংসদ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া আজ বৃহস্পতিবার মন্ত্রিসভা অনুমোদন করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই অনুমোদন দেয়া হয়।
 
বৈঠক শেষে বাংলাদেশ সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব সফিউল আলম সাংবাদিকদের বলেন, প্রথা অনুযায়ী বছরের প্রথম সংসদ অধিকেবনে রাষ্ট্রপতি মূল ভাষণ এবং সংক্ষিপ্ত ভাষণের সমন্বয়ে ভাষণ দিবেন। আগামী বছরের প্রথম সংসদ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি এই ভাষণ দিবেন। ভাষণে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি এবং দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গৃহীত প্রদক্ষেপসহ নয়টি বিষয় অধিক গুরুত্ব পাবে। 
 
অন্য বিষয়সমূহের মধ্যে থাকবে রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নে বিভিন্ন সেক্টরে গৃহীত কর্মসূচি ও নির্দেশনার সফল বাস্তবায়ন, আইসিটি সেক্টরের উন্নয়নে এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের অগ্রগতি তুলে ধরা হবে।
 
শফিউল আলম বলেন, রাষ্ট্রপতির ভাষণে দেশে বিদেশে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির বিস্তার, যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়ায় অগ্রগতি বৈদেশিক সম্পর্ক উন্নয়নে, প্রশাসনিক সাফল্য ও কৌশল, উন্নয়ন দর্শন এবং অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি তুলে ধরা হবে। মূল ভাষণ হবে প্রায় ৭২ হাজার ৩৮৬ শব্দের, যার সংক্ষিপ্ত সার হবে ৭ হাজার ৪৫৭ শব্দের। গতবছরে সংসদের প্রথম অধিবেশনে দেয়া রাষ্ট্রপতির ভাষণ ছিলো ৫ হাজার ৮০৬ শব্দের। এই ভাষণ দিতে তার এক ঘণ্টা সময় লেগেছিল। তিনি বলেন, আগামী বছরের ৪ জানুয়ারির মধ্যে রাষ্ট্রপতির ভাষণ চূড়ান্ত করা হবে।
 
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বৈঠকের শুরুতেই মন্ত্রিসভা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতে একটি শোক প্রস্তাব গ্রহণ করে। মন্ত্রিসভা আনিসুল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ এবং তার বিদেহী আত্মার চির শান্তি কামনা করে মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতিও গভীর সমবেদনা জানায়। প্রায় তিন মাসের চিকিৎসা শেষে মেয়র আনিসুল হক (৬৫) গত ৩০ নভেম্বর লন্ডনের ওয়েলিংটন হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।
 
সিলেটের ঐতিহ্যবাহী শীতল পাটি ইউনেস্কোর ইন্টেনজিবল কালচারাল হেরিটেজ (আইসিএইচ)-এর তালিকায় স্থান পাওয়ার জন্যও মন্ত্রিসভা সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানায়। দক্ষিণ কোরিয়ার জেজুতে ৪ থেকে ৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় আইসিএইচ-এর ইন্টার-গভর্নমেন্টাল কমিটি ফর দ্য সেফগার্ডিং-এর ২০তম অধিবেশনে গত বুধবার এই স্বীকৃতি পাওয়া যায়।
 
এটি ইউনেস্কো কর্তৃক বাংলাদেশের চতুর্থ আইসিএইচ স্বীকৃতি। এর আগে গতবছর ১ বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রা আইসিএইচ-এর স্বীকৃতি লাভ করে, এরও আগে ২০০৮ ও ২০১৩ সালে বাউল সঙ্গীত ও ঐতিহ্যবাহী জামদানি কাপড় এই স্বীকৃতি অর্জন করে। 
 
ইত্তেফাক/কেকে
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৯ অক্টোবর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৪২
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫২
মাগরিব৫:৩৩
এশা৬:৪৪
সূর্যোদয় - ৫:৫৭সূর্যাস্ত - ০৫:২৮