জাতীয় | The Daily Ittefaq

দেশ পরিচালনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সফল: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দেশ পরিচালনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সফল: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
ইত্তেফাক রিপোর্ট০৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ১৯:৪২ মিঃ
দেশ পরিচালনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সফল: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, দেশ পরিচালনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সফল। দেশকে সার্বিকভাবে দ্রুত এগিয়ে নিচ্ছেন তিনি। একশ’ বছর পর দেশে কি হবে তার পরিকল্পনাও প্রধানমন্ত্রী করেছেন এবং সেই অনুসারে তিনি তার কর্মযজ্ঞ পরিচালনা করছেন। তবে এই সফলতা বজায় রাখতে বর্তমান সরকারকে আবার ক্ষমতায় আনার জন্য দেশবাসীর প্রতি তিনি আহ্বান জানান।
 
বুধবার বঙ্গবন্ধু আর্ন্তজাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে একযোগে জাতীয় ও সকল জেলা পর্যায়ে ‘জাতীয় নবজাতক স্বাস্থ্য কর্মসূচি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা বলেন। নবজাতকের মৃত্যুরোধ এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষার লক্ষ্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় হেলথ পপুলেশন নিউট্রিশন সেক্টর প্রোগ্রাম-এর আওতায় এই কর্মসূচি পরিচালিত হবে। 
 
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য বিষয়ক সচেতনতা বৃদ্ধির কারণেই নবজাতকের মৃত্যুহার কমেছে। নবজাতকের মৃত্যুহারের দিক থেকে শ্রীলংকার পর বাংলাদেশের অবস্থান। টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা (এসডিজি) অনুযায়ী ২০৩০ সাল নাগাদ নবজাতকের মৃত্যু হার প্রতি হাজার জীবিত জন্মে ১২ অথবা তার নীচে এবং ২০৩৫ সাল নাগাদ প্রতিরোধযোগ্য নবজাতকের মৃত্যু অবসানে সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।
 
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, স্বাস্থ্যখাতে আমরা নির্ধারিত সময়ের আগেই লক্ষ্য পূরণ করতে পারবো। এই উন্নতির ক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যাপক অবদান রেখেছে। শিশু ও মাতৃ মৃত্যু হার আমরা কমিয়েছি। এমনকি রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রেও আমরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছি। যা বিশ্বব্যাপী সমাদৃত হয়েছে। 
 
তিনি বলেন, দেশের জনগণ চিকিত্সক চেয়েছে, অ্যাম্বুলেন্স চেয়েছে। আমরা দিয়েছি। তবে এখনও আমরা সংকটের মধ্যে আছি। আশা করছি স্বাস্থ্যখাতে নভেম্বর মাসের মধ্যে এ সব সংকট দূর হবে। আমরা ১০ হাজার নার্স, ১২০০ মিডওয়াইফ, ৭ হাজার চিকিত্সক দিয়েছি। আরো ১০ হাজার ডাক্তার আমরা খুব দ্রুত নিয়োগ দেবো পিএসসির মাধ্যমে।
 
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা অর্জনে সরকার নবজাতকের জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, যেমন- মানসম্মত প্রসব পূর্ব ও প্রসব পরবর্তী পরিচর্যার বিস্তার, জন্মের পরপরই নবজাতককে বুকের দুধ খাওয়ানো ও ছয় মাস পর্যন্ত শুধু মাত্র বুকের দুধ খাওয়ানোসহ নবজাতকের অত্যাবশ্যকীয় পরিচর্যা, নবজাতকের বিপদচিহ্নসমূহ সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি ও সময়মত সেবা গ্রহণের জন্য উত্সাহিত করা।   অপরিণত জন্মের কারণে সৃষ্ট জটিলতা ও মৃত্যুরোধ, জন্মকালীন শ্বাসরুদ্ধতা ও সংক্রমণ রোধ ও ব্যবস্থাপনার জন্য সরকার জেলা ও উচ্চ পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে নবজাতকের বিশেষ সেবা ইউনিট (স্ক্যানু) স্থাপন করেছে। এর পাশাপাশি সরকার কমিউনিটি ক্লিনিক, ইউনিয়ন সাব সেন্টার, উপজেলা হেল্থ কমপ্লেক্স, জেলা পর্যায় ও উচ্চতর হাসপাতালগুলোর মান উন্নীতকরণ এবং দক্ষ সেবাদানকারীর মাধ্যমে গুণগত সেবা প্রদান নিশ্চিত করার পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।  
 
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক এএইচএম এনায়েত হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব জিএম সালেহ উদ্দিন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডা. সুলতান মোহাম্মদ শামসুজ্জামান, বাংলাদেশ মেডিক্যাল এ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক প্রণব কুমার নিয়োগী ও পরিচালক ডা. মোহাম্মদ শরীফ প্রমুখ।
 
ইত্তেফাক/এমআই
 
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৫
এশা৭:০৮
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৫০