রাজনীতি | The Daily Ittefaq

আওয়ামী লীগের পতন হবে এটা গোয়েন্দা সংস্থার কথা: ড. মোশাররফ

আওয়ামী লীগের পতন হবে এটা গোয়েন্দা সংস্থার কথা: ড. মোশাররফ
ইত্তেফাক রিপোর্ট২৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং ২১:০৪ মিঃ
আওয়ামী লীগের পতন হবে এটা গোয়েন্দা সংস্থার কথা: ড. মোশাররফ
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, আওয়ামী লীগের যে পতন হবে এটা শুধু আমাদের কথা নয়, এটা গোয়েন্দা সংস্থা, সাধারণ মানুষ, এমনকি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কথা। ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ক্ষমতায় না যেতে পারলে পিঠের চামড়া থাকবে না। আওয়ামী লীগ কাউয়ার দল, একটা হাইব্রিড দল। তিনি দলের সাধারণ সম্পাদক হয়ে এসব কথা কিভাবে বলেন? কারণ তিনি জানেন জনগণ ভোট দেয়ার সুযোগ পেলে আওয়ামী লীগের কোনো পাত্তা থাকবে না। এমনকি বহু এমপি-মন্ত্রী আছে যাদের জামানত হারাতে হবে। তারা ২৫-৩০ বেশি আসন পাবে না।
 
বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে জিয়া পরিষদ আয়োজিত ‘বহুদলীয় গণতন্ত্র: শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও আজকের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
 
জিয়া পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কবীর মুরাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, প্রফেসর ড. আবদুল কুদ্দুস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এসএম হাসান তালুকদার ও বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ প্রমুখ।
 
ড. মোশাররফ বলেন, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে। আর যদি আওয়ামী লীগ ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পথে হাঁটেন তাহলে যারা ভোটের অধিকার হারিয়েছে সেই জনগণ রাস্তায় দাঁড়িয়ে তাদের বাধা দেবে। আন্দোলনের মাধ্যমের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করবে। এবং শহীদ জিয়ার বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেই খালেদা জিয়া এবং বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয় লাভ করবেন। 
 
তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেছেন ‘নির্বাচনকালীন সরকার’। অথচ সংবিধানে ‘নির্বাচনকালীন সরকারের’ কথা নেই। প্রধানমন্ত্রী যদি আন্তরিক হয়ে থাকেন তাহলে তার সেই কথা ধরে বলি নির্বাচনকালীন সরকার হলে, সংবিধানে সংশোধনী আনতে হবে। আজকে সংসদে আওয়ামী লীগের দুই তৃতীয়াংশ সদস্য আছেন। সংসদে তারা চাইলে সংশোধনী আনতে পারেন। তবে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ‘নির্বাচনকালীন সরকার’। কিন্তু সেখানে অবশ্যই উল্লেখ থাকতে হবে ‘নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার’। যদি এই সংবিধানে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থা সংশোধনীর মাধ্যমে এনে নির্বাচন হয়, তাহলে সংবিধান মোতাবকই নির্বাচন হবে। আর যদি তারা এটা না করে তাহলেও বাংলাদেশে উদাহরণ আছে সংবিধানের বাইরে অন্তর্বতীকালীন সরকারের মাধ্যমে নির্বাচন হয়েছিল।
 
ইত্তেফাক/এমআই
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫৩
আসর৪:১৬
মাগরিব৬:০১
এশা৭:১৩
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৬