রাজনীতি | The Daily Ittefaq

খালেদা জিয়ার ঈদের দিন যেভাবে কাটলো

খালেদা জিয়ার ঈদের দিন যেভাবে কাটলো
ইত্তেফাক রিপোর্ট১৯ জুন, ২০১৮ ইং ০৯:৫১ মিঃ
খালেদা জিয়ার ঈদের দিন যেভাবে কাটলো
চার মাস তেরো দিন হলো কারাগারে আছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। পবিত্র ঈদের দিন তিনি কারাগারে স্বজনদের সঙ্গে প্রায় দুই ঘণ্টা সময় কাটিয়েছেন এবং স্বজনদের ঘরে তৈরি করা খাবার খেয়েছেন। যদিও দলের নেতাদের খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে দেয়া হয়নি, তবে তার আত্মীয়সহ ২০ জনের একটি দল দুপুর সোয়া দুইটার দিকে রান্না করা খাবার, নতুন কাপড় ও ফুল নিয়ে পুরানো কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন। তাদের মধ্যে ছিলেন খালেদা জিয়ার মরহুম ভাই সাঈদ এস্কান্দরের স্ত্রী নাসরিন এস্কান্দার ও তার ছেলে শামস এস্কান্দার, শাফিন এস্কান্দার, ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার, তার স্ত্রী কানিজ ফাতেমা, ছেলে অভিক এস্কান্দার, এরিক এস্কান্দার, ভাগ্নি অরনি এস্কান্দার, অনন্যা এস্কান্দার, শাফিয়া ইসলাম, ভাগিনা সাইফুল ইসলাম ডিউক, মো. মেহরাব, মো. আল মামুন, তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জোবাইদা রহমানের বড় বোন শাহিনা খান জামান বিন্দু, তার স্বামী শফিউজ্জামান, বিএনপি চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এবিএম আবদুস সাত্তার, গুলশানের বাসা ‘ফিরোজা’র গৃহকর্মী ও গাড়ি চালক। তারা ৪টা ৪০ মিনিটের দিকে কারাগার থেকে বের হয়ে আসেন।
 
কারা সূত্র জানায়, খালেদা জিয়া অন্যান্য দিন বেলা দেড়টার দিকে দুপুরের খাবার খান। তবে ঈদের দিন তিনি আত্মীয়দের আনা ঘরে তৈরি খাবার খাওয়ার অপেক্ষায় ছিলেন। নিজের কক্ষ থেকে অসুস্থ শরীর নিয়ে খালেদা জিয়া আত্মীয়-স্বজনদের সাথে সাক্ষাতের জন্য যখন আসেন তখন তিনি হাঁটতে পারছিলেন না, তাকে দুই পাশ দিয়ে দুইজন ধরে নিয়ে আসেন সাক্ষাতের নির্ধারিত কক্ষে। স্বজনরা তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।
 
শনিবার পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরনো কারাগারে সাক্ষাত্ করতে যাওয়া একজন স্বজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, খালেদা জিয়ার সাথে ঈদের দিন কারাগারে দেখা হওয়ার সময় পরিবারের সদস্যরা আবেগাক্রান্ত হয়ে পড়েন। তবে খালেদা জিয়ার মনোবল অটুট ছিল এবং তিনি তাদের ধৈর্য ধারণ করতে এবং আল্লাহর কাছে দোয়া করতে বলেছেন। বেগম খালেদা জিয়া দেখা করতে যাওয়া শিশুদের আদর করেন এবং সবার খোঁজখবর নেন।
 
কারা সূত্র জানায়, সকালে খালেদা জিয়াকে সেমাই, মিষ্টি ও জর্দা ভাত দেওয়া হয়েছিল, তবে তিনি কোনো খাবার খাননি। তিনি স্বজনদের নিয়ে যাওয়া খাদ্য দিয়ে দিনের প্রথম খাবার খান।
 
এর আগে বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দ, স্থায়ী কমিটির সদস্য এবং ভাইস চেয়ারম্যানরা বেলা সোয়া ১২টায় দিকে কয়েকশ’ নেতাকর্মীকে সঙ্গে নিয়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে কারাগারে যাওয়ার চেষ্টা করেন। তবে সাক্ষাতের জন্য কারা কর্তৃপক্ষের অনুমতি না থাকায় জেলগেট থেকে আধা কিলোমিটার দূরে নেতাকর্মীদের আটকে দেয় পুলিশ।
 
এ সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, তিন দিন আগে কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমতি চাওয়া হয়েছে। সাধারণত ঈদের দিন কারাবন্দিদের তাদের কাছের মানুষদের সঙ্গে সাক্ষাতের অনুমতি দেওয়া হয়। কিন্তু পুলিশ আমাদের প্রিয় নেত্রীর সাথে সাক্ষাতের অনুমতি দেয়নি। এটা খুবই দুঃখজনক।
 
মির্জা ফখরুল ছাড়াও দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর রায়, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লাহ বুলু, আবদুল আউয়াল মিন্টু, এজেডএম জাহিদ হোসেন, আহমেদ আজম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নুল আবদিন ফারুকসহ কেন্দ্রীয় ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা কারাগারের কাছে যান। এ সময় মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস ও সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদসহ মহিলা নেতা-কর্মীরাও সেখানে ছিলেন।
 
গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ে খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত। ওইদিন থেকেই তিনি পুরান ঢাকার পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন।
 
ইত্তেফাক/কেকে
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৬
এশা৭:০৯
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫১