রাজনীতি | The Daily Ittefaq

বিএনপির সামনে নির্বাচনে আসা ছাড়া বিকল্প নেই: নাসিম

বিএনপির সামনে নির্বাচনে আসা ছাড়া বিকল্প নেই: নাসিম
ইত্তেফাক রিপোর্ট৩০ আগষ্ট, ২০১৮ ইং ০১:৫১ মিঃ
বিএনপির সামনে নির্বাচনে আসা ছাড়া বিকল্প নেই: নাসিম
আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, বিএনপির সামনে নির্বাচনে আসা  ছাড়া বিকল্প কোনো পথ নেই। কারণ তারা অনুধাবন করতে পেরেছে যে, জ্বালাও-পোড়াও, হত্যাকাণ্ড ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে ক্ষমতায় যাওয়া যাবে না। গতকাল বুধবার রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্স হাসপাতালে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন।
 
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, একাত্তর ও পঁচাত্তরের খুনিদের পৃষ্ঠপোষক এবং জ্বালাও-পোড়াও করে মানুষ হত্যাকারীদের (বিএনপি-জামায়াত) সঙ্গে কোনো ধরনের সংলাপ হতে পারে না। আগামী নির্বাচনে ভোটের মাধ্যমে তাদেরকে রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে বিদায় দিবে দেশের জনগণ। আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময় দেশ ও জনগণের ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। তাই আগামী নির্বাচনে জনগণ শেখ হাসিনা ও মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকেই ভোট দিয়ে ক্ষমতায় বসাবে। স্বাধীনতা চিকিত্সক পরিষদ, নিউরো সায়েন্স ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল শাখার সভাপতি ডা. এম এফ জহিরুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক এমপি, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্স হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. কাজী দীন মোহাম্মদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক পরিচালক ডা. জুলফিকার আলী লেলিন, স্বাধীনতা চিকিত্সক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সনলান, মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ, সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া প্রমুখ।
 
২০৩০ সালের মধ্যে যক্ষ্মামুক্ত হবে বাংলাদেশ
 
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যেই যক্ষ্মামুক্ত হবে। বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সেক্টরের রয়েছে মজবুত অবকাঠামো। কয়েক বছর আগেও দেশে প্রতি লাখে যক্ষ্মারোগীর সংখ্যা ছিল ৪০০ জন। আর সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী তা নেমে এসেছে ২৬০ জনে। পোলিও, ধনুষ্টংকার মুক্ত হয়েছে বাংলাদেশ, খুব শীঘ্রই যক্ষ্মাও মুক্ত হবে।  গতকাল বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে যক্ষ্মা রোগের উপর পরিচালিত গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন। স্বাস্থ্য অধিদফতরের জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যৌথ উদ্যোগে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা চিকিত্সক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান, জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির লাইন ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. সামিউল ইসলাম সাদি, আইইডিসিআর’র সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. মাহমুদুর রহমান প্রমুখ।
 
চিকিত্সকদের নিজ নিজ দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, তিন হাজারের বেশি চিকিত্সক কাজ না করেও বেতন গ্রহণ করে থাকে। এমন রিপোর্ট পাওয়ার পর তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩১
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৫
মাগরিব৫:৫৯
এশা৭:১২
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৪