রাজনীতি | The Daily Ittefaq

‘ক্ষমতায় যাওয়ার একমাত্র পথ নির্বাচনে এসে জনগণের রায় নেওয়া’

‘ক্ষমতায় যাওয়ার একমাত্র পথ নির্বাচনে এসে জনগণের রায় নেওয়া’
কুলাউড়া ও বড়লেখা (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতা০৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ১৯:০০ মিঃ
‘ক্ষমতায় যাওয়ার একমাত্র পথ নির্বাচনে এসে জনগণের রায় নেওয়া’
আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বিএনপির উদ্দেশে বলেছেন, ক্ষমতায় যাওয়ার একমাত্র পথ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে জনগণের রায় নেওয়া। আর অন্য কোনভাবে ক্ষমতায় যাওয়ার দুঃস্বপ্নও দেখে কোন লাভ হবে না। 
 
মঙ্গলবার দুপুরে মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় ৫০ শয্যা বিশিষ্ট নব-নির্মিত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন শেষে আয়োজিত এক বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। 
 
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আগামী নির্বাচন নিয়ে কোন ফাউল খেলা খেলবেন না। যদি কেউ কোন ফাউল খেলা খেলেন তবে জনগণ খেলার মাঠ থেকে লাল কার্ড দেখিয়ে বের করে দেবে। নির্ধারিত সময়ে শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন হবে। সে নির্বাচনে লড়াই করব এবং আমরা জিতব। আর বিএনপি এবারও নির্বাচনে না আসলে ফাঁকা মাঠে গোল দেওয়া ছাড়া কোন বিকল্প থাকবে না।  বিএনপিকে উদ্দেশ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘সাহস থাকলে নির্বাচনে আসেন। নির্বাচনের মাঠ ছেড়ে যাবেন না। যথাসময়ে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। যদি নির্বাচনে না যান তবে প্রয়োজনে খালি মাঠে গোল দেয়া হবে। যদি জ্বালাও-পোড়াও করেন তবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। আর অন্য কোনভাবে ক্ষমতায় যাবার দুঃস্বপ্নও দেখবেন না। ক্ষমতায় যাওয়ার একমাত্র পথ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে জনগণের রায় নেওয়া। 
 
স্বাস্থ্যমন্ত্রী জনসভায় উপস্থিত জনতার উদ্দেশে বলেন, বিগত নির্বাচনে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসায় আপনারা উন্নয়ন পাচ্ছেন। এখন ভোটের মাধ্যমে তা ফেরত দেওয়ার পালা। গত দশ বছরে শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে অনেক দিয়েছেন। শোককে বুকে ধারণ করে একাত্তরের ঘাতক দালালদের বিচার করেছেন। বিগত কোন সরকারই এদের বিচার করেনি। জঙ্গিবাদ দমন করেছেন। এত কিছুর পরও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রেখেছেন। যার ফলে দু’মুঠো ভাত খেয়ে মানুষ সুখে আছে। খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ অর্জন করেছে বাংলাদেশ, প্রবৃদ্ধি বেড়েছে। মায়ের মমতা নিয়ে শেখ হাসিনা উন্নয়ন করে যাচ্ছেন। ঘরে ঘরে বিদ্যুত্ পৌঁছে গেছে। জনগণের দোরগড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দিতে নতুন নতুন হেলথ কমিনিউটি ক্লিনিক হচ্ছে। সে ধারাবাহিকতায় আরো ৭ হাজার ডাক্তার নিয়োগ হবে। জুড়ীতেও কমিউনিটি ক্লিনিক হবে। আমার মেয়াদকালীন সময়ে জুড়ী ও বড়লেখা হাসপাতালের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন ও উদ্বোধন হল। 
 
এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, এই মাসেই আপনাদের হাসপাতালে একটি অ্যাম্বুলেন্স দেয়া হবে। পাশাপাশি এ হাসপাতালে চিকিত্সক ও নতুন সরঞ্জাম দ্রুত সময়ে পৌঁছে যাবে। তাছাড়া মৌলভীবাজার জেলায় একটি মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হবে। তবে কিছু দাবি এখন পূরণ করব না। নির্বাচনে জিতলে পূরণ করা হবে। তাই আপনারা হাত তুলে ওয়াদা করেন। এই সরকারকে আবারও ক্ষমতায় দেখতে চান।
 
জাতীয় সংসদের হুইপ ও মৌলভীবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য মো. শাহাব উদ্দিন এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জনসভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মৌলভীবাজার-২ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মতিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বাবুল কুমার সাহা, প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার এম এ মুহিম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক মিছবাউর রহমান, জুড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান গোলশানা আরা মিলি, আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বদরুল হোসেন, ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. বিরেন্দ্র ভৌমিক, জুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মহি উদ্দিন প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম ও জুড়ী উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখরুল ইসলাম। 
 
পরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম জেলার বড়লেখা উপজেলার ৩১ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ ও নব-নির্মিত ভবনের উদ্বোধন করেন। এ সময় মৌলভীবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য মো. শাহাব উদ্দিন এমপি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে স্বাস্থ্য মন্ত্রী ওই দিন বিকালে ঢাকার উদ্দেশ্যে জুড়ী ত্যাগ করেন।
 
ইত্তেফাক/এমআই
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৪
মাগরিব৫:৫৮
এশা৭:১১
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫৩