রাজনীতি | The Daily Ittefaq

নির্বাচনের আগে ৪১ হাজার কমিটি করছে আওয়ামী লীগ

নির্বাচনের আগে ৪১ হাজার কমিটি করছে আওয়ামী লীগ
মেহেদী হাসান১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ০২:৫০ মিঃ
নির্বাচনের আগে ৪১ হাজার কমিটি করছে আওয়ামী লীগ
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘরের দুয়ারে কড়া নাড়ছে। নির্বাচনকে ঘিরে রাজনৈতিক অঙ্গনে চলছে শেষ সময়ের নানা হিসাব-নিকাশ ও প্রস্তুতি। ভোট সামনে রেখে এ মাস থেকেই মাঠে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে প্রায় সব দল। কেউ যাতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য পাহারা দেওয়ার পাশাপাশি নেতাকর্মী ও সমর্থকদের চাঙ্গা করার উদ্যোগ নিয়েছে আওয়ামী লীগ। এ লক্ষ্যে ৩০০ আসনের সব জেলা, উপজেলা ও ভোট কেন্দ্রগুলোয় মোট ৪০ হাজার ৭৫৪টি নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করবে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী এ দলটি। চলতি সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে এসব কমিটি গঠন সম্পন্ন করতে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা দিনরাত পরিশ্রম করছেন। তবে কোনও কমিটিতে প্রার্থীরা থাকতে পারবেন না।
 
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাদের বক্তব্য ও পাল্টা বক্তব্যে উত্তাপের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। চলতি মাসের শেষ ভাগে এসে এই দুই দলের কথার লড়াই মাঠে গড়াতে পারে। ফলে রাজনীতির মাঠ বিরোধী দল যেমন দখলে রাখার চেষ্টা করবে, তেমনি সরকারকে চাপমুক্ত রাখতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা চাইবে রাজনীতির মাঠ তাদের অনুকূলেই যেন থাকে। জানা গেছে, রাজনৈতিক মাঠ দখলের রাখার ক্ষেত্রে কোনো ছাড়া দিতে রাজি নয় আওয়ামী লীগ। নির্বাচনকে সামনে রেখে এ লক্ষ্যে বিএনপিকে কৌশলে নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি নিজেদের নেতাকর্মীকে চাঙ্গা করার নানামুখী কর্মসূচি সাজিয়েছে দলীয় হাইকমান্ড, যা সরাসরি দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন। মাঠ দখলে রাখার ক্ষেত্রে কর্ম-পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে— প্রতিটি সাংগঠনিক জেলায় নির্বাচনী বর্ধিত সভা, ভোট কেন্দ্র এলাকায় সভা-সমাবেশ, উঠান বৈঠক, আলোচনা সভা করা, নতুন ভোটারদের নিয়ে সেল গঠন, দ্বন্দ্ব মিটিয়ে সকলকে ঐক্যবদ্ধ রাখা, মিডিয়া সেন্টার স্থাপন ও প্রয়োজনীয় লজিস্টিক সাপোর্টের সমন্বয়, নির্বাচনে পোলিং এজেন্ট প্রশিক্ষণ কমিটি ও উপ-কমিটি গঠন করা, পোলিং এজেন্ট প্রশিক্ষণের মাস্টার্স ট্রেইনার্স ও জেলা ভিত্তিক প্রশিক্ষণ, নির্বাচনী আইন ও বিধিমালা সংস্কারে কোনও প্রস্তাবনা থাকলে তা সংসদের শেষ অধিবেশনের আগে তৈরি, চমক সৃষ্টি করে নির্বাচনী ইশতেহার প্রণয়ন, কোর কমিটি, বিভাগীয় কমিটি ও উপ-কমিটি গঠন প্রভৃতি।
 
নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। অক্টোবরের মাঝামাঝিতে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন হতে পারে বলে সরকারি মহলে আলোচনা আছে। গতবারের মতো এবারও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনকালীন সরকার হবে, তবে মন্ত্রিসভার আকার ছোট হবে। তবে এতে বিএনপিসহ সংসদে প্রতিনিধিত্ব নেই এমন কোনো দলকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে না বলে ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ঘোষণা দিয়েছেন।
 
জানা গেছে, নির্বাচনী কাজ এগিয়ে নেওয়া ও মাঠ দখলে রাখা সর্বোপরি দেশজুড়ে পাহারা দিতে সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকার প্রার্থীদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে উপজেলা ও ভোট কেন্দ্রভিত্তিক নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করবে দলটি। এক্ষেত্রে কোনো উপজেলা কমিটির সভাপতি অথবা সাধারণ সম্পাদক আগামী নির্বাচনের প্রার্থী হলে ওই কমিটির জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি অথবা জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকরা নির্বাচন পরিচালনা কমিটিগুলোর সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকবেন।
 
জানা গেছে, ৩০০ আসনে ৪ হাজার মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছে এবার আওয়ামী লীগে। এসব মনোনয়ন প্রত্যাশীরা এমপি বিরোধী প্রচারণায় লিপ্ত রয়েছে। ইতিমধ্যে তিনজন সংসদ সদস্যকে এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে দলের তৃণমূলের একটি গ্রুপ।  আরো ৯৭ এমপির ওপর অনাস্থা ঘোষণার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে। কারো কারো বিরুদ্ধে নিজের স্বার্থ হাসিলের জন্য এলাকায় হত্যা, চোরাচালান, দলীয় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি, চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা ও নৈরাজ্যসহ নানা অপকর্ম করার অভিযোগ করেছে  আওয়ামী লীগের একটি গ্রুপ। এমপিদের বিরুদ্ধে এমন অপপ্রচারে ক্ষুব্ধ আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড। সম্প্রতি দলীয় ফোরামের একটি বৈঠকে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অসুস্থ প্রতিযোগিতায় নেমে এমপিদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাতে গিয়ে নৌকার বিপক্ষে প্রচার হচ্ছে। এভাবে মনোনয়ন পাওয়া যাবে না। একই সঙ্গে এ ধরনের ঘটনা বরদাশত করা হবে না বলেও হুঁশিয়ারি করে দেন তিনি। এদিকে এমপিদের অবাঞ্ছিত ঘোষণাকারী দলের নেতাদের কাছে গত ১০ সেপ্টেম্বর শোকজ নোটিস পাঠানো হয়েছে। নোটিসের জবাব সন্তোষজনক না হলে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা হিসেবে বহিষ্কার করা হতে পারে।
 
আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, নির্বাচনের সার্বিক প্রস্তুতি আওয়ামী লীগ গ্রহণ করেছে। আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ থাকলে কেউই হারাতে পারবে না।
 
ইত্তেফাক/আরকেজি
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৪৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৯
মাগরিব৫:২৯
এশা৬:৪২
সূর্যোদয় - ৫:৫৯সূর্যাস্ত - ০৫:২৪