বেটা ভার্সন
আজকের পত্রিকাই-পেপার ঢাকা রোববার, ০৫ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭
২৮ °সে

কাদেরের অবস্থা পর্যবেক্ষণে ঢাকায় সিঙ্গাপুরের চিকিৎসক দল

কাদেরের অবস্থা পর্যবেক্ষণে ঢাকায় সিঙ্গাপুরের চিকিৎসক দল
বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে ঢুকছেন সিঙ্গাপুরের চিকিৎসক। ছবি: সংগৃহীত

গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে থাকা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে বাংলাদেশে এসে পৌঁছেছে সিঙ্গাপুরের চিকিৎসক দল।

রবিবার সন্ধ্যার পর এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় পৌঁছান তারা। এই চিকিৎসক দলে রয়েছেন সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের তিন বিশেষজ্ঞ।

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, বিশেষজ্ঞ যে চিকিৎসকরা সিঙ্গাপুর থেকে এসেছেন তারা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে দেখবেন। যদি উনার অবস্থা এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে নেওয়ার মত হয়, তাহলে আজই তাকে এই অ্যাম্বুলেন্সে করে নেওয়া হবে।

হাসপাতালে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ছবি: সংগৃহীত

ওবায়দুল কাদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের কার্ডিওলজির অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসান জানিয়েছেন, এনজিওগ্রাম করার পর সেতুমন্ত্রীর আর্টারিতে ব্লক ধরা পড়েছে। তিনটি রক্তনালীতে ব্লক ধরা পড়ে। তার অবস্থা আশঙ্কা মুক্ত নয়। ২৪ থেকে ৭২ ঘণ্টা না গেলে কিছু বলাও যাবে না বলে জানিয়েছেন তিনি।

আরো পড়ুন: খালাফ হত্যা মামলা: সাইফুলের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর আজ রাত ১০টায়

সন্ধ্যা পৌনে ছয়টার দিকে ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থার সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে গণমাধ্যমকে অধ্যাপক আলী আহসান বলেন, খুব বেশি পরিমাণ ব্লক যেটা ছিল যেটাকে এলইডি বলে, সেটিকে খুলে দেওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। খুলে দেওয়ার পর তিনি দুই ঘণ্টা ভালো ছিলেন। এরপর তার রক্তচাপ আবারো কমে যায়। ইলেকট্রোলাইট ইমব্যালেন্স হয়।

তিনি আরো বলেন, তবে এখন চোখ খুলছেন মন্ত্রী। কিন্তু ক্রিটিক্যাল স্টেজই (জটিল অবস্থা) এখনো রয়েছেন। এ জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া প্রার্থনা করছি।

আওয়ামী লীগের নেতারা জানান, ফজরের নামাজের পর হঠাৎ করে শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন ওবায়দুল কাদের। অবস্থার অবনতি হলে তাকে দ্রুত বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে নিয়ে আসেন তার স্ত্রী ইশরাতুন্নেসা কাদের। তখনই তাকে হাসপাতালের সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত