বদলগাছীতে স্কুলছাত্রকে বেত্রাঘাত করায় শিক্ষিকা লাঞ্ছিত!
১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং
বদলগাছীতে স্কুলছাত্রকে বেত্রাঘাত করায় শিক্ষিকা লাঞ্ছিত!

থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা

বদলগাছী (নওগাঁ) সংবাদদাতা

বদলগাছীতে উপজেলার ঝাড়ঘড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গত শনিবার পাঠদানের সময় শিক্ষকের বেত্রাঘাতে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র মো. রিয়াদ হোসেন অসুস্থ হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। তবে শিক্ষকরা বেত্রাঘাতের কথা অস্বীকার করেছে। এ ঘটনায় গত শনিবার রাতে ছাত্রের অভিভাবক ও শিক্ষকরা থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছে।

পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী রিয়াদ হোসেন বলেন, আমি কোন অশ্লীল কথা কাগজে লিখিনি অথচ মিতা রানী ম্যাডাম শ্রেণিকক্ষে আমাকে প্রচুর বেত্রাঘাত করেছে।

শিক্ষিকা মিতা রানী বলেন, কাগজে অশ্লীল কথা লেখায় রিয়াদ হোসেনকে সামান্য শাসন করেছি। এতে রিয়াদ অসুস্থ হওয়ার কথা নয়। প্রধান শিক্ষকের ওপর প্রতিশোধ নিতে আমার ওপর মিথ্যা দোষ চাপানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। ছেলেটার অসুস্থতার খবর পেয়ে আমি তাকে দেখতে বাড়িতে গেলে উল্টো তার অভিভাবক ও কয়েকজন গ্রামবাসী আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে আমাকে ধাক্কাধাক্কি করে।

প্রধান শিক্ষিকা তানজিদা আখতার বলেন, আমরা স্কুলে লেখাপড়া শিখাতে যাই। অনেক ছেলে-মেয়ে থাকে এবং অনেক ছেলে-মেয়ে ভুলত্রুটি করে। আমরা শিক্ষার ক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রীকে শাসন করতে গেলে যদি লাঞ্ছিত হতে হয় এটা দুঃখজনক। আমরা ঐদিন বারবার সমঝোতার চেষ্টা করেছি। কিন্তু তারা আমাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করতে আসে। বাধ্য হয়ে শিক্ষিকা মিতা রানী ও আমাকে লাঞ্ছিত করায় আমি বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করি। আমি এ ঘটনার সুবিচার দাবি করছি।

গত সোমবার বিকাল ৫টার পর উপজেলার সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা উপজেলা পরিষদ চত্বরের সামনে শিক্ষক নির্যাতন প্রতিরোধে এক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. আবুল কালাম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক মোখলেছার রহমান, শিক্ষক আব্দুর রশিদ, দেলোয়ার হোসেন, আব্দুর রউফ, দিপালী প্রমুখ।

কমিটির সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম রয়েল জানান, ছাত্র রিয়াদকে মারপিটের ঘটনা শুনে আমি তার বাড়িতে যাই এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করি। অথচ রাতে আমি শুনতে পাই আমার বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। পরবর্তীতে আমরাও অভিভাবককে বাদী করে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষিকার বিরুদ্ধে থানায় মামলা করি।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. ছানাউল হাবীব জানান, আমার কাছে কোন লিখিত অভিযোগ আসেনি। তবে আমি বিষয়টি শুনেছি রিয়াদ নামে এক ছাত্র একটি সাদা পাতায় অশ্লীল কথা লিখে অন্য এক ছাত্রীর হাতে দেয়। ঐ ছাত্রী ঐ কাগজ শিক্ষিকার হাতে দিলে রিয়াদকে শাসন করে। এ ঘটনা নিয়ে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। 

বদলগাছী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জালাল উদ্দীন বলেন, ঝাড়ঘড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘটনায় থানায় পাল্টাপাল্টি দুটি মামলা হয়েছে।

 

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং
ফজর৫:১৬
যোহর১২:১৩
আসর৪:১৭
মাগরিব৫:৫৭
এশা৭:১০
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:৫২
পড়ুন