কিশোর গ্যাংয়ের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে নামছে পুলিশ
গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে তালিকা তৈরি
ইত্তেফাক রিপোর্ট২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ইং
রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় উঠতি বয়সী কিশোরদের গ্যাং বা গ্রুপের বিরুদ্ধে কঠোর অ্যাকশনে যাচ্ছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। উত্তরাসহ রাজধানীর অনেক এলাকাতেই কিশোরদের এই গ্যাং রয়েছে। সম্প্রতি এই গ্যাং এর নামে উত্তরায় এক কিশোরকে হত্যা করা হয়েছে। এরপরই পুলিশ খোঁজ নিয়ে জানতে পারে উত্তরা ছাড়াও মিরপুর, ধানমন্ডিসহ বিভিন্ন এলাকায় কিশোরদের এই ধরনের গ্যাং রয়েছে, যারা এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করে। এসব গ্যাং-এর কিশোররা মতের অমিল হলে সহপাঠীকেও খুন করতে দ্বিধা করে না।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া ইত্তেফাকের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ‘কিশোরদের পড়াশোনা বাদ দিয়ে এই ধরনের গ্যাং বা গ্রুপ তৈরিকে কোনোভাবেই প্রশ্রয় দেয়া হবে না। রাজধানীর যেসব এলাকায় এই ধরনের গ্রুপ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অ্যাকশনে যাচ্ছি আমরা। এর মধ্যে আমরা গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে যারা গ্যাং বানিয়েছে তাদের তালিকাও তৈরি করেছি। কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। আমরা এই সব বখে যাওয়া কিশোরদের অভিভাবদের সঙ্গেও কথা বলব।’

বিশ্লেষকরা বলছেন, ‘ভিডিও গেমে গ্রুপ বানিয়ে মারামারি করছে। হার-জিত নিয়ে উত্তেজিত হচ্ছে। টেলিভিশনে বিদেশি সিরিয়ালগুলো অপরাধের কৌশল দেখাচ্ছে- এমন পরিস্থিতিতে আমাদের দেশের কিশোররা বখে যাচ্ছে। তারাও তৈরি করছে গ্যাং বা গ্রুপ। মতের মিল না হলে খুন করে ফেলছে সহপাঠীকেই। যেটা আমাদের জন্য খুবই ভয়ঙ্কর। পারিবারিক সচেতনতা, ক্লাসের পাঠ্যপুস্তকেও এসব বিষয়ে পড়াশোনার ব্যবস্থা থাকা দরকার। না হলে সামনে যে প্রজন্মটা আসছে তাতে পারিবারিক বন্ধন বলে কিছুই থাকবে না।’

মনোবিজ্ঞানী অধ্যাপক ডা. মোহিত কামাল ইত্তেফাককে বলেন, ‘উন্নত প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে অপরাধের ধরন বদলাচ্ছে। তথ্য প্রযুক্তির ফাঁক ফোকর রয়েছে। প্রযুক্তি যত উন্নত হচ্ছে অপরাধের ধরনও তত বদলাচ্ছে। আগে ছিল পরিকল্পিত, এখনও আছে, ভবিষ্যতেও হবে। তবে আমার মনে হয়, তথ্য প্রযুক্তির কারণে তাদের নৈতিক স্খলন হচ্ছে। তারা প্রযুক্তি দেখে সেটার মধ্যে ঢুকে পড়ছে। আর উত্তরায় যে ঘটনা ঘটেছে তাতে দেখা যায়, এরা পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন। মাদকাসক্ত। ফলে এদের মধ্যে নিষ্ঠুরতা বেশি। তারা যা ইচ্ছে, তাই করছে।’

প্রসঙ্গত, গত ৬ জানুয়ারি উত্তরায় কিশোর গ্রুপের হাতে প্রতিপক্ষ গ্রুপের স্কুল শিক্ষার্থী আদনান কবির খুনের ঘটনায় বেরিয়ে এসেছে কিশোরদের বিভিন্ন গ্রুপ বা গ্যাং কেন্দ্রিক অপরাধের ভয়ঙ্কর চিত্র। বিভিন্ন নামে এরা এই গ্রুপগুলো বানিয়েছে।

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং
ফজর৫:১২
যোহর১২:১৩
আসর৪:২০
মাগরিব৬:০০
এশা৭:১৩
সূর্যোদয় - ৬:২৮সূর্যাস্ত - ০৫:৫৫
পড়ুন