কটিয়াদীতে ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে পাঠদান
২১ এপ্রিল, ২০১৭ ইং
ব্রজগোপাল বণিক, কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) সংবাদদাতা

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার ২৮টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২১টি মাদ্রাসা ৩টি কলেজের মধ্যে ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ও শ্রেণি কক্ষের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। অধিকাংশ বিদ্যালয়ের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে শিক্ষার্থীদের ক্লাস চলছে।

ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয়ের ভবনগুলো হচ্ছে- কটিয়াদী পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, কটিয়াদী ডিগ্রি কলেজ, বনগ্রাম আনন্দ কিশোর উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান ভবন, করগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়, মসূয়া উচ্চ বিদ্যালয়, ফেকামারা ফাজিল মাদ্রাসা, ধূলদিয়া হাজি সামসুদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়, লোহাজুরী উচ্চ বিদ্যালয়, চান্দপুর উচ্চ বিদ্যালয়, চর আলগী ইছামুদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়, বেথইর রইছ মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়।

এসব বিদ্যালয়ে একটি করে ঝুঁকি পূর্ণ ভবন রয়েছে। এছাড়া শ্রেণি কক্ষ সংকট রয়েছে মসূয়া উচ্চ বিদ্যালয়, লোহাজুরী উচ্চ বিদ্যালয়, চান্দপুর মিয়া চানশাহ উচ্চ বিদ্যালয়, কটিয়াদী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, রইছ মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়, চারিপাড়া আজিমুদ্দিন বালিকা দাখিল মাদ্রাসা, সহশ্রাম সাইমুন্নেছা আলিম মাদ্রাসা, শিমুহা আব্দুল মজিদ দাখিল মাদ্রাসা, ভিটিপাড়া ইব্রাহিমিয়া দাখিল মাদ্রাসা। 

এ প্রতিষ্ঠানগুলোতে শ্রেণি কক্ষ সংকটের কারণে বারান্দা, খোলা আকাশের নিচে ক্লাস নিতে হচ্ছে। এ ছাড়া বিদ্যালয়গুলোতে আসবাবপত্র, বেঞ্চ এবং বিজ্ঞানাগারের তীব্র সংকট রয়েছে।   ২১টি মাদ্রাসার মধ্যে শিক্ষা প্রকৌশল  অধিদপ্তরের কোনো ভবন নেই। উপজেলা শিক্ষা একাডেমিক সুপারভাইজার মুহাইমিনুল ইসলাম আরিফ বলেন, আমি নিয়মিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো পরিদর্শন করি।  শ্রেণি কক্ষ সংকটই সবচেয়ে বড় সমস্যা। মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া বলেন, ভবনগুলো মেরামত ও নতুন ভবন নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগকে অবহিত করেছি।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২১ এপ্রিল, ২০১৭ ইং
ফজর৪:১৪
যোহর১১:৫৮
আসর৪:৩১
মাগরিব৬:২৫
এশা৭:৪১
সূর্যোদয় - ৫:৩৩সূর্যাস্ত - ০৬:২০
পড়ুন