আগৈলঝাড়ার অর্ধশতাধিক পরিবার প্রভাবশালীদের হাতে জিম্মি
১৩ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
মাছের ঘের নিয়ে বিরোধে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা

আগৈলঝাড়া (বরিশাল) সংবাদদাতা

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় মাছের ঘের নিয়ে দুই গ্রামের অর্ধশতাধিক কৃষক পরিবার স্থানীয় প্রভাবশালীদের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে। জিডি ও মামলা করায় ভুক্তভোগী চাষিদের হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে দুই পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

ভুক্তভোগী কৃষকরা জানান, বাকাল ইউনিয়নের ফেনাবাড়ি ও আন্ধার মানিক গ্রামের স্থানীয় প্রভাবশালী ও তাদের সহযোগীরা জোরজবরদস্তি আর ভয়-ভীতি দেখিয়ে গত চার বছর ধরে অন্তত ৫০টি নিরীহ কৃষক পরিবারের ৪০ একর জমি গায়ের জোরে দখল করে তাতে মাছের ঘের তৈরি করে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। অথচ জমির মালিকদের এক টাকাও দেওয়া হয় না।

ঘটনার প্রতিবাদ করায় হামলা ও নির্যাতনের শিকার হয়েছে ফেনাবাড়ি গ্রামের শেফালী গুপ্ত নামের এক গৃহবধূ। এই ঘটনায় থানায় অভিযোগ করলেও কোনো প্রতিকার পায়নি ভুক্তভোগী। ফলে ভূমি দখলকারী ও সাধারণ কৃষক দুই পক্ষই মারমুখি অবস্থানে থাকায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা।

আন্ধারমানিক গ্রামের কৃষক অনিল চন্দ্র হালদার অভিযোগে বলেন, চার বছর আগে স্থানীয় মিন্টু হালদার, নিত্যানন্দ জয়ধর, খোকন জয়ধরের নেতৃত্বে দুই গ্রামের চাষিদের সমন্বয়ে বর্ষা মৌসুমে চাষের জমিতে মাছের ঘের তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। উল্লেখিতরা চাষিদের সাথে চুক্তির আশ্বাস দিয়ে ঘের তৈরির কাজ শুরু করে। কিন্তু ঘের তৈরির পর কোনো প্রকার চুক্তি না করে নানা তালবাহানা করে চার বছর যাবত্ গায়ের জোরে মাছ চাষ করে যাচ্ছে। গত চার বছরে ঘেরের মধ্যে জমি ব্যবহার বাবদ আমাকে তারা কিছুই দেয়নি। একই অভিযোগ করেন ওই গ্রামের পূর্ণশশী জয়ধর ও ফেনাবাড়ি গ্রামের বীরেন গুপ্ত।

ভুক্তভোগীরাসহ স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ঘেরের জমি ও মাছ জবরদখলকে কেন্দ্র করে যে কোনো সময় দুই পক্ষের মধ্যে বড় ধরনের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মিন্টু হালদার বলেন, দুই গ্রামের অর্ধশতাধিক কৃষকের সম্মিলিতভাবে মাছ চাষের জন্য চুক্তিপত্র তৈরির কথা থাকলেও তা করা সম্ভব হয়নি। প্রতিপক্ষরা ঘেরের মধ্যে নেট জাল দিয়ে আরেকটি ঘের তৈরি করে সমস্যার সৃষ্টি করেছে। 

আগৈলঝাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আদালতের নির্দেশে শান্তি শৃংখলা বজায় রাখার জন্য উভয়পক্ষকে নোটিস দেওয়া হয়েছে। কেউ কাউকে হুমকি দিয়ে থাকলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৩ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
ফজর৪:১৩
যোহর১২:০৪
আসর৪:৩৯
মাগরিব৬:৩৭
এশা৭:৫৪
সূর্যোদয় - ৫:৩৩সূর্যাস্ত - ০৬:৩২
পড়ুন