জামালপুরে কালোবাজারে বিক্রি হওয়া ১৯০ বস্তা চাল জব্দ
১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
জামালপুর প্রতিনিধি

জামালপুরে সরকারের ১০ টাকা কেজি মূল্যের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১৯০ বস্তা চাল জব্দ করেছে সদর উপজেলা প্রশাসন। জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস এম মাজহারুল ইসলাম সদর উপজেলার ঘোড়াধাপ ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে ১৯০ বস্তা কালোবাজারে বিক্রি করা চাল জব্দ করেন। চালগুলো ঘোড়াধাপ ইউনিয়নে নিয়োজিত ডিলার মোঃ মতিউর রহমানের বলে নিশ্চিত হয় অভিযানকারী দলটি। ডিলার মোঃ মতিউর রহমান মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ঘোড়াধাপ ইউনিয়নের স্থানীয় সাবুর মোড়ে তার দোকানে হতদরিদ্রদের মাঝে চাল বিক্রি করেন। বিকেলের দিকে তিনি তার দোকান থেকে বিপুল পরিমাণ চাল সরিয়ে ফেলেন। চালগুলো কালোবাজারে বিক্রি করা হয়েছে বলে স্থানীয়রা সন্দেহ করেন। পরে এলাকাবাসী মুঠোফানে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ মফিজুর রহমানের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে সদর ইউএনও’র নির্দেশে সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস এম মাজহারুল ইসলাম ও স্থানীয় নরুন্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোঃ সাইফুল ইসলাম রাত ৯টার দিকে সাবুর মোড় এলাকায় অভিযান চালান। অভিযানে স্থানীয় ব্যবসায়ী বিল্লাল হোসেন ওরফে বিলু মিয়ার বাড়ি থেকে ৩০ কেজি ওজনের ৮৭ বস্তা, সোলায়মান হোসেনের দোকান থেকে ২০ বস্তা এবং আবুল কালামের বাড়ি থেকে ৮৩ বস্তা মোট ১৯০ বস্তা চাল জব্দ করা হয়। জব্দকৃত চালগুলো স্থানীয় নরুন্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের হেফাজতে রাখা হয়েছে।

গোপালগঞ্জে ওজনে কম দেয়ায় ডিলারশিপ বাতিল

এদিকে গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, কোটালীপাড়ায় হতদরিদ্রদের ১০ টাকা কেজি দরের চাল ওজনে কম দেয়ায় ডিলারের লাইসেন্স বাতিল করা হয়ছে। মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাহফুজুর রহমান উপজেলার সাদুল্লাপুর ইউনিয়নের চালের ডিলার অলিউর রহমান হাওলাদারের ডিলারশিপ লাইসেন্স বাতিল করেন। উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শাহাবুদ্দিন আকন্দ জানান, উপজেলার সাদুল্লাপুর ইউনিয়নের ডিলার অলিউর রহমান হাওলাদার হতদরিদ্রদের জন্য ১০ টাকা কেজি দরে ৬৬০ বস্তা চাল উপজেলা খাদ্যগুদাম থেকে উত্তোলন করেন। প্রতি বস্তায় তাকে ৩০ কেজি করে চাল বুঝিয়ে দেয়া হয়। গত রবিবার অলিউর রহমান হাওলাদার সাদুল্লাপুর ইউনিয়নের নৈয়ারবাড়ী বাজারে এ চাল বিক্রি করেন। প্রতি বস্তা থেকে তিনি চার থেকে সাত কেজি চাল নামিয়ে রাখেন। চাল ওজনে কম দেয়াকে কেন্দ্র করে গ্রহীতাদের মধ্যে হট্টগোল শুরু হয়। এক পর্যায়ে অবস্থা বেগতিক দেখে ডিলার অলিউর রহমান হাওলাদার ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান। সাদুল্লাপুর ইউপি চেয়ারম্যান ভিম চন্দ্র বাড়ৈ ওই ডিলারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

এদিকে কাশিয়ানীতে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় দশ টাকা মূল্যের চাল ৩০ কেজির স্থলে ২৭ কেজি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার মহেশপুর ইউনিয়নের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি চালের ডিলার মোশারফ হোসেনের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। ফলে ওই হতদরিদ্র মানুষের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। মোশারফ হোসেন ওই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি। ডিলার মোঃ মোশারফ হোসেন ওজনে চাল কম হওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ‘চাল মাপার কাটায় (বাটখারা) একটু সমস্যা থাকায় চাল কম হয়েছে। পরে সেটা ঠিক করে সঠিক পরিমাপ করে চাল দেয়া হয়’।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ, এস, এম মাঈনউদ্দিন বলেন, ‘চাল বিতরণে অনিয়মের কথা শুনে তাত্ক্ষণিক ট্যাগ অফিসার উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আলাউদ্দিনকে সরেজমিনে পাঠায়।

 

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:২৮
যোহর১১:৫৫
আসর৪:২১
মাগরিব৬:০৮
এশা৭:২১
সূর্যোদয় - ৫:৪৪সূর্যাস্ত - ০৬:০৩
পড়ুন