ঢাকা মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫
২১ °সে

মুলাদীতে দুই যুগেও অপসারণ হয়নি কলেজ মাঠের বিদ্যুতের খুঁটি

খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত শিক্ষার্থীরা
মুলাদীতে দুই যুগেও অপসারণ হয়নি কলেজ মাঠের  বিদ্যুতের খুঁটি
মুলাদী (বরিশাল): ২৩ বছরেও অপসারিত হয়নি আরিফ মাহমুদ ডিগ্রি কলেজ মাঠের মাঝখানের বিদ্যুতের খুঁটি —ইত্তেফাক

মুলাদীতে প্রায় দুই যুগেও অপসারিত হয়নি আরিফ মাহমুদ ডিগ্রি কলেজ মাঠের বৈদ্যুতিক খুঁটি। দীর্ঘদিন ধরে কলেজ মাঠের মাঝখানে বৈদ্যুতিক খুঁটি থাকায় খেলাধুলা চর্চা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ওই কলেজের শিক্ষার্থীসহ চার প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

কলেজের অধ্যক্ষ আমিনুল ইসলাম খসরু জানান, ১৯৯৫ সালে মুলাদী উপজেলার আরিফ মাহমুদ ডিগ্রি কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়। কলেজের সামনের মাঠের মধ্যে একটি বৈদ্যুতিক খুঁটি থাকায় শিক্ষার্থীরা ওই মাঠে ক্রিকেট, ফুটবল খেলতে পারছে না। এ ছাড়া ওই বৈদ্যুতিক খুঁটির জন্য কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানও ব্যাহত হচ্ছে। খুঁটিটি অপসারণ করে অন্যত্র স্থাপনের জন্য অনুরোধ করা হলেও পল্লী বিদ্যুত্ কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না। বিগত দিনে খুঁটিতে ধাক্কা লেগে শিক্ষার্থীরা আহত হওয়ায় ওই মাঠে তারা ক্রিকেট-ফুটবল খেলাসহ প্রায় সকল প্রকার খেলাধুলা বন্ধ করে দিয়েছে। শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিতির সুযোগে মাঠটি বিকাল বেলা বখাটেদের আড্ডাস্থলে পরিণত হয়েছে। অধ্যক্ষ আরো বলেন, ২০১২ সালে তত্কালীন জেলা প্রশাসক শহীদুল আলম আরিফ মাহমুদ কলেজ পরিদর্শনে এসে মাঠের মধ্যে খুঁটি দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং অপসারণের জন্য পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডে পত্র প্রেরণ করেন। জেলা প্রশাসনের চিঠির প্রেক্ষিতে ঢাকা থেকে প্রকৌশলী এসে খুঁটি স্থানান্তরের সম্ভাব্য যাচাই করে গেলেও বিষয়টি সেখানেই থমকে যায়।

প্যাদারহাট ওয়াহেদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ও কাজিরচর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলহাজ মন্টু বিশ্বাস জানান, ইউনিয়নের প্যাদারহাট এলাকায় একই বেষ্টনীর মধ্যে রয়েছে আরিফ মাহমুদ ডিগ্রি কলেজ, প্যাদারহাট ওয়াহেদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, প্যাদারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং আইনুদ্দিন শাহ প্রি-ক্যাডেট স্কুল। অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মাঠ ছোট থাকায় শিক্ষার্থীরা খেলাধুলার জন্য আরিফ মাহমুদ ডিগ্রি কলেজ মাঠের ওপর নির্ভরশীল। কিন্তু কলেজ মাঠের মাঝে একটি বৈদ্যুতিক খুঁটি থাকায় শিক্ষার্থীরা সেখানে খেলাধুলা করতে পারছে না। খুঁটি অপসারণের জন্য কলেজের অধ্যক্ষ কয়েকবার মুলাদী পল্লী বিদ্যুত্ অফিসে আবেদন জানালেও পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তারা কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। ফলে দীর্ঘ দিনেও মাঠের মধ্য থেকে খুঁটি অপসারণ করা হয়নি।

মুলাদী পল্লী বিদ্যুত্ অফিসের ডিজিএম রেজায়েত আলী জানান, আরিফ মাহমুদ ডিগ্রি কলেজ মাঠের খুঁটি অপসারণের বিষয়টি কয়েকবার পরিদর্শন করা হয়েছে। ৩৩ কেভি লাইন স্থানান্তরের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমোদন প্রয়োজন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা পেলেই খুঁটি স্থানান্তরের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১১ ডিসেম্বর, ২০১৮
আর্কাইভ
 
বেটা
ভার্সন