দক্ষিণাঞ্চলে লক্ষাধিক শ্রমিকের বেকারত্ব
২২ অক্টোবর, ২০১৭ ইং
দক্ষিণাঞ্চলের সর্বত্র এখন কাজকর্মের দারুণ অভাব। যদিও এই অবস্থা উত্তরাঞ্চলের মতো নহে, কিন্তু তাহার পরও এই ব্যাপারটি সরকারের বিশেষ মনোযোগের দাবি রাখে। ইত্তেফাকে প্রকাশিত এই সংক্রান্ত প্রতিবেদনে বলা হইয়াছে, দক্ষিণাঞ্চলের দুই লক্ষাধিক কৃষিশ্রমিক এখন কাজের সন্ধানে পাড়ি জমাইতেছেন রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বড় শহরগুলিতে। মৌসুমের রোপা আমন বপনের কাজ শেষ হওয়ার পর তাহাদের হাতে এখন আর কোনো কাজ নাই। একদিকে যেমন আয় নাই, অপর দিকে নিত্যপণ্যের মূল্য বৃদ্ধিতে এইসকল অভাবী মানুষ দিশাহারা হইয়া পড়িয়াছেন। এখানকার বাজারগুলিতে ৫৬ টাকার নিচে কোনো চাল মিলিতেছে না। সবজির দামও চড়া। গত বত্সর ধান কাটিবার পর ন্যায্য দাম না পাইয়া লোকসান গুনিতে হইয়াছিল তাহাদের। তাহার পরও কৃষিকাজ ছাড়া অন্য কোনো কাজ না জানিবার কারণে এই বত্সরও তাহারা আমন রোপণ করিয়াছেন। তবে তাহারা কৃষি কাজটা ভালোভাবে জানেন বিধায় লোকসান কিংবা সমান সমান থাকিলেও আর বেকার থাকিতে হয় না। উপার্জনের আশায় তাহারা শহরে আসেন। কিন্তু শহরের শ্রমিকদের সহিত কৃষিবহির্ভূত কাজে তাহারা কুলাইয়া উঠিতে পারেন না।

একটি গবেষণা প্রবন্ধ হইতে জানা যায়, উন্নত বীজের ক্ষেত্রেও পিছাইয়া রহিয়াছে দক্ষিণাঞ্চল। বরিশাল অঞ্চলে উন্নত জাতের বীজের ব্যবহার হয় ৪১.৮ শতাংশ, যেইখানে সারা দেশে গড়ে উন্নত জাতের বীজের ব্যবহার হয় ৮৫ শতাংশ। কৃষি অত্রাঞ্চলের অর্থনীতির মূল ভিত্তি হইলেও কর্মসংস্থানের জন্য বিপুলসংখ্যক গরিব ও ভূমিহীন পরিবারের কৃষিখাতের ওপর নির্ভরশীলতার কারণে পরিস্থিতির জটিলতা বাড়িতেছে। এই প্রেক্ষাপটে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর জীবন-জীবিকার মানোন্নয়নে কৃষিখাতের গুরুত্ব অপরিসীম। তাহা ছাড়া জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচাইতে ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলের তালিকায় রহিয়াছে বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল। এই জন্য কৃষকদের উত্পাদিত পণ্যের বাজারজাতকরণ ও ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করা জরুরি। উত্পাদনমুখী বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণেরও ব্যবস্থা করা যাইতে পারে।

বলিবার অপেক্ষা রাখে না, যেকোনো ধরনের বেকার মানুষই সমাজের জন্য অপচয়। তাহাদের সঠিকভাবে কাজে না লাগাইবার অর্থ হইল শ্রমশক্তির একটি বিশাল অংশ হইতে দেশের অর্থনীতিকে বঞ্চিত করা। তাহা ছাড়া, বেকারত্বের কারণে তাহাদের জীবনের উপর যে ক্ষত সৃষ্টি হয়, তাহা কর্মশক্তির উপরও নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। সুতরাং দক্ষিণাঞ্চলের এই সমস্যাটির প্রতি সরকারকে মনোযোগ দিয়া শুনিতে হইবে। এই অঞ্চল আরো কোন কোন ক্ষেত্রে পিছাইয়া রহিয়াছে তাহার পর্যবেক্ষণও অতি গুরুত্বপূর্ণ। এই সকল সমস্যা নিরসনের জন্য প্রয়োজন দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২২ অক্টোবর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৪৪
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫০
মাগরিব৫:৩০
এশা৬:৪৩
সূর্যোদয় - ৫:৫৯সূর্যাস্ত - ০৫:২৫
পড়ুন