রমনা পার্কের সংরক্ষণ জরুরি
১৩ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং
ইত্তেফাকে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, সামপ্রতিক সময়ে নানা সমস্যায় জর্জরিত হইয়া পড়িয়াছে রমনা পার্কের পরিবেশ। সন্ধ্যার পর পার্কটিতে বাড়িয়া যায় মাদকসেবী ও অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত ব্যক্তিদের দৌরাত্ম্য। উপরন্তু পার্কটিতে  সংস্কারের অভাব ও নানা অনিয়মের কারণে বিভিন্ন সমস্যাও বিদ্যমান। যথাযথ সংরক্ষণের অভাবে পার্কটির অনেক বেঞ্চই আজ ভাঙা ও ব্যবহারের অনুপযোগী। শৌচাগারগুলিও নোংরা ও অপরিচ্ছন্ন। অবাধে গোসল ও সাবান দিয়া কাপড় ধৌত করিবার কারণে লেকের পানিও হইয়া পড়িয়াছে দুর্গন্ধযুক্ত। ইহাছাড়া নিরাপত্তা রক্ষীদের বিরুদ্ধে ঢিলেঢালাভাবে নিরাপত্তা প্রদান ও অপরাধীদের সঙ্গে তাহাদের সখ্যতার ব্যাপারেও অভিযোগ উঠিয়াছে।

রাজধানীতে যে হারে জনসংখ্যা বাড়িতেছে, তাহাতে জনস্বার্থে পার্ক, খেলার মাঠ ও উন্মুক্ত জায়গা বাড়িবারই কথা। বিদ্যমান পার্কগুলি আরো সমপ্রসারিত হইবার কথা। কিন্তু হইতেছে তাহার উল্টা। বর্তমানে ঢাকা মহানগরীর জনসংখ্যা প্রায় পৌনে ২ কোটি। বিপুলসংখ্যক এই মানুষের জন্য ঢাকার দক্ষিণ ও উত্তর উভয় সিটি করপোরেশন মিলাইয়া পার্ক রহিয়াছে মাত্র ৫৪টি। ইহার বাহিরেও রহিয়াছে আরো কিছু পার্ক। আর রমনা পার্কটির সার্বিক দায়িত্বে রহিয়াছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ গণপূর্ত অধিদফতর। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হইল সকল কর্তৃপক্ষের অধীনে থাকা অধিকাংশ পার্কই যথাযথভাবে সংরক্ষণ ও দেখভাল করা হয় না। নগর পরিকল্পনাবিদদের মতে, একটি ছিমছাম ও সুন্দর নগরীর জন্য নগরের মোট আয়তনের ১০ শতাংশ খোলা মাঠ ও পার্ক থাকা প্রয়োজন। অথচ আমাদের আছে মাত্র ৪ শতাংশ জায়গা। আবার যাহা আছে তাহাও আমরা ধরিয়া রাখিতে পারিতেছি না।

পার্কগুলির এই দুর্দশা নিয়া প্রায়শ পত্র-পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হইতে দেখা যায়। শুধু গণমাধ্যম নহে, পার্কগুলি রক্ষার ব্যাপারে পরিবেশবাদীরাও সোচ্চার ভূমিকা পালন করিয়া আসিতেছেন। এমনকি এই ব্যাপারে আদালতেরও সুস্পষ্ট নির্দেশনা রহিয়াছে। কিন্তু তাহার পরও উপেক্ষিত হইতেছে পার্ক রক্ষার গণদাবি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যেন সব কিছু দেখিয়াও না দেখিবার ভান করিতেছেন। এই ব্যাপারে দায়সারা ভাব রহিয়াছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীরও। আমরা মনে করি, যদি দখলদার বা দুর্বৃত্তদের সহিত সংশ্লিষ্ট কাহারো যোগসাজশ থাকে, তাহা হইলে যথাযথ কর্তৃপক্ষের উচিত তাহাদের খুঁজিয়া বের করা এবং বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া। সর্বোপরি, রমনা পার্কসহ রাজধানীর অন্যান্য পার্কগুলিকে দখলমুক্ত ও প্রয়োজনীয় সংস্কার করিয়া পরিবেশবান্ধব হিসাবে গড়িয়া তুলিবার পদক্ষেপ গ্রহণ করাও অত্যাবশ্যক।

 

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৩ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং
ফজর৫:২৩
যোহর১২:০৭
আসর৩:৫৬
মাগরিব৫:৩৫
এশা৬:৫১
সূর্যোদয় - ৬:৪২সূর্যাস্ত - ০৫:৩০
পড়ুন