পূর্ণ কর্মঘণ্টা কাজ করুন
নিম্ন আদালতের বিচারকদের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের
দিদারুল আলম২৩ মে, ২০১৫ ইং
পূর্ণ কর্মঘণ্টা কাজ করুন
দুপুরের বিরতির পর আইনজীবীদের অনুপস্থিতির কারণে নিম্ন আদালতের বিচার কার্যক্রমে বিঘ্ন ঘটছে— এ অভিযোগ খোদ সুপ্রিম কোর্টের। এ কারণেই আইনজীবীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করা ও বিচার কার্যক্রম সচল রাখতে দিনের দ্বিতীয় ভাগে জামিন আবেদন ও অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদনপত্রের শুনানি গ্রহণের জন্য নিম্ন আদালতের বিচারকদের নির্দেশ দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মতে, নিম্ন আদালতের বিচারকদের কর্মঘন্টার পূর্ণ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে; যাতে মামলার জট নিরসন হয়। চলতি মাসে দেয়া এই নির্দেশনা দেশের সকল জেলা ও দায়রা জজ, মহানগর দায়রা জজ, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল, বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালত ও সমপর্যায়ের আদালত ও ট্রাইব্যুনালের বিচারকদেরকে আবশ্যিকভাবে মেনে চলতে বলা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার ইত্তেফাককে বলেন, বিচার কার্যক্রম আইনজীবী ও বিচারকের মিলিত প্রচেষ্টায় সম্পন্ন হয়ে থাকে। অতএব এখানে আইনজীবীদের এককভাবে অবহেলার সুযোগ নেই। তিনি বলেন, আদালতের বিচারকরা সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশনার আগেও দিনের দ্বিতীয় অংশে বিচারকরা এজলাসে বসতেন এবং মামলা পরিচালনা করতেন। সুতরাং যে কাজ দিনের প্রথম অংশে শেষ করা যায় সেই কাজ দ্বিতীয় ভাগে করার জন্য নির্ধারণ করা যুক্তিসংগত হবে না। আমি মনে করি এই নির্দেশনা আইনজীবীদের মধ্যে নতুন কোন উদ্দীপনা তৈরি করবে বলে মনে হয় না।

সুপ্রিম কোর্টের সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশের নিম্ন আদালতসূমহে ২৭ লাখ ১৩ হাজার ৩৭৩টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এর মধ্যে জেলা ও দায়রা জজ আদালতসহ সকল  প্রকার ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন রয়েছে ১৭ লাখ ৭ হাজার ৯৯৩টি মামলা। এসবের মধ্যে ৫ লাখ ৫৪ হাজার ৭৯৩টি ফৌজদারি এবং ১১ লাখ ৫৩ হাজার ২০০টি দেওয়ানি মামলা। আর ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ১০ লাখ ৫ হাজার ৩৮০টি। এই বিশাল সংখ্যক মামলার জট নিরসনে নিম্ন আদালতের বিচারকদের প্রতি বিভিন্ন নির্দেশনা দিচ্ছে সুপ্রিম কোর্ট।

বিচারপতি এসকে সিনহা প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব গ্রহণের পর নিম্ন আদালতের বিচারকদের প্রতি চার দফা নির্দেশনা জারি করেন। সেই নির্দেশনায়ও মামলা জট নিরসনের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে উঠে আসে। এছাড়া এপ্রিল মাসে সুপ্রিম কোর্টে অনুষ্ঠিত বিচার বিভাগীয় সম্মেলনে সকল জেলা জজ ও সমপর্যায়ের বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে প্রধান বিচারপতি বলেন, “দেশের আদালতসূমহে (উচ্চ ও নিম্ন আদালত) প্রায় ৩০ লাখ মামলা বিচারাধীন রয়েছে। আমরা সব মামলা নিষ্পত্তি করতে পারব না, তবে নিষ্পত্তির হার সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসতে হবে। যদি এটি করতে না পারি তাহলে আমার-আপনার অস্তিত্ব নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপিত হবে। আমার আবেদন, আপনারা সচেতন হন। এই মামলাগুলো নিষ্পত্তি করতেই হবে। কিভাবে নিষ্পত্তি করতে হবে সেটা আপনাদের দায়িত্ব।”

অভিযোগ রয়েছে, আদালতের কর্মঘণ্টার প্রথম ভাগে আইনজীবীরা জামিন ও নিষেধাজ্ঞার আবেদনের শুনানি করতে আগ্রহী থাকেন। এসব আবেদনের শুনানি ও নিষ্পত্তি হলে দুপুরের পর আইনজীবীরা এজলাসে আসেন না। ফলে কর্মঘন্টার দ্বিতীয়ভাগে বিচারকরা মামলার বিচার কার্যক্রম পরিচালনার সুযোগ পান না। এজন্যই সকালের সেশনে যাতে মূল মামলা অর্থাত্ সাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণ, যুক্তিতর্ক ও জেরার কার্যক্রম পরিচালনার করা যায় সেজন্যই চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে নিম্ন আদালতের বিচারকদের প্রতি আরেকটি নির্দেশনা জারি করে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ। যাতে আইনজীবীরা দুপুরের পর এজলাসে এসে মামলা পরিচালনায় অংশ নেন। ওই নির্দেশনায় বলা হয়েছে, সম্প্রতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, অধিকাংশ জেলায় আদালতের বিচারিক কর্মঘণ্টার দ্বিতীয়ভাগে (দুপুর ২টা থেকে সাড়ে ৪টা পর্যন্ত) আইনজীবীরা এজলাসে উপস্থিত না থাকায় বিচার কার্যক্রম পরিচালনায় বিঘ্ন ঘটছে। নিম্ন আদালতসূমহে প্রায় ২৮ লাখ মামলা বিচারাধীন। এ সংখ্যা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। আদালতসূমহে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার প্রেক্ষিতে আদালতের বিচারিক কর্মঘণ্টার পূর্ণ ব্যবহার একান্তভাবে জরুরি।

বিচারপ্রার্থী জনগণের ন্যায় বিচারপ্রাপ্তি ও বিচারাধীন মামলাগুলো দ্রুততার সঙ্গে নিষ্পত্তির মাধ্যমে আদালতসমূহের মামলাজট কমানোর নিমিত্তে নিম্ন আদালতের বিচারকদের কয়েক দফা নির্দেশনা দেয়া হয়। নির্দেশনাগুলো হলো:০১. বিচারকরা আবশ্যিকভাবে বিচারিক কর্মঘণ্টার দ্বিতীয়ভাগে বিবিধ মামলাগুলো বিশেষ করে ফৌজদারি বিবিধ মামলা ও দোতরফা অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদনপত্র সংক্রান্ত শুনানি গ্রহণ করবেন। এরূপ মামলার শুনানি গ্রহণের পর অবশিষ্ট সময় থাকলে সেসময়ও ?আপিল, রিভিশন ইত্যাদি মামলার শুনানি গ্রহণের নির্দেশ দেয়া গেলো। ০২. যেসব আদালতে বিবিধ মামলা বিচারাধীন নেই সেসব আদালত কার্য দিবসের পুরো সময়ই মূল মামলা/আপিল মামলা/রিভিশন মামলার শুনানি গ্রহণ করে বিচারিক কর্মঘণ্টার পূর্ণ ব্যবহার নিশ্চিত করবেন।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৩ মে, ২০১৮ ইং
ফজর৩:৪৭
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩৪
মাগরিব৬:৪০
এশা৮:০২
সূর্যোদয় - ৫:১২সূর্যাস্ত - ০৬:৩৫
পড়ুন