পুলিশের সহস্রাধিক সদস্য জড়িয়ে পড়েছে অপরাধে
কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ ডিএমপি কমিশনারের
জামিউল আহসান সিপু২৭ জুন, ২০১৫ ইং
পুলিশের সহস্রাধিক সদস্য জড়িয়ে পড়েছে অপরাধে
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সহস্রাধিক সদস্যের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক ও অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ উঠেছে। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজন সদস্য ছিনতাই কাজে জড়িত থাকার অভিযোগ ডিএমপি’র শৃঙ্খলা বিভাগে জমা হয়েছে। এছাড়া গাঁজা, ফেনসিডিল ও ইয়াবার মত ভয়ঙ্কর মাদক সেবন ও বিক্রির অভিযোগ রয়েছে কতিপয় সদস্যের বিরুদ্ধে।

এ ব্যাপারে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, কতিপয় পুলিশ সদস্যের কারণে পুলিশের ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। এ কারণে ঐসব পুলিশ সদস্যকে মোটিভেশনের আওতায় আনতে হবে। তারা যাতে অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে না পড়েন, সেজন্য সতর্ক থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। 

গত ২০ জুন ফেনীর লালপুর এলাকা থেকে পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) এএসআই মাহফুজুর রহমানকে ৬ লাখ ৮০ হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার করে র্যাব। তার কাছ থেকে ইয়াবা বিক্রির ৭ লাখ টাকা, ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড ও একটি নোট বুক উদ্ধার করে। ঐ নোট বুকে ইয়াবা বিক্রির সিন্ডিকেটের সদস্যদের নাম ও কার কাছে কি পরিমাণ ইয়াবা বিক্রি করা হয়েছে-সে সম্পর্কে লেখা ছিল। ঐ নোট বুকে ডিএমপি’র বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্যের নাম লেখা রয়েছে।

ডিএমপি’র শৃঙ্খলা শাখার একজন কর্মকর্তা জানান, মাহফুজের নোট বুকে লেখা ডিএমপি’র পুলিশ সদস্যের নামের তালিকা তদন্ত করা হয়েছে। ঐসব পুলিশ সদস্য শুধু ইয়াবা নয়, আরো অনেক মাদক বিক্রির সঙ্গে জড়িত থাকার সত্যতা পাওয়া গেছে। ঐ কর্মকর্তা আরো জানান, ডিএমপি’র সহস্রাধিক পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে সরাসরি ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও আটক করে ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা আদায় করে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এদের মধ্যে বেশিরভাগই এএসআই, এসআই ও ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার পুলিশ সদস্য। এএসআই ও এসআই পদমর্যাদার সদস্যদের বিরুদ্ধে নিরীহ জনসাধারণকে সন্দেহভাজন হিসাবে আয়ত্বে নিয়ে টহল গাড়িতে তুলে ভয়ভীতি দেখায়। বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করে থানায় না নিয়ে অর্থ আদায় করে পথিমধ্যে গাড়ি থেকে ছেড়ে দেয়া হয়। কয়েকজন সদস্যের বিরুদ্ধে নারীদের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক জড়ানোর অভিযোগও রয়েছে। ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে থানায় ডেকে নিয়ে অর্থ আদায়েরও অভিযোগ রয়েছে।

এসব অভিযোগ আমলে নিয়ে স্মার্ট পুলিশ গঠনের লক্ষ্যে সম্প্রতি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার সকল উপ-কমিশনারদের (ডিসি) একটি চিঠি দিয়েছেন। ঐ চিঠিতে তিনি পুলিশের এসব অপকর্মের কথা উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

চিঠিতে বলা হয়, পুলিশের মুষ্টিমেয় সদস্যের অনাকাঙ্খিত আচরণ ডিএমপি তথা বাংলাদেশ পুলিশের ভাবমূর্তি জনসাধারণের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। ফলে সমাজে পুলিশের গ্রহণ যোগ্যতা ও বিশ্বাস যোগ্যতা হ্রাস পাচ্ছে। এমতাবস্থায় পুলিশের সকল বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের তাদের অধীনস্থ সদস্যদের ধর্মীয় ও সামাজিক অনুশাসনের আলোকে মোটিভেশন করবেন। পুলিশের কোন সদস্য কোন অনৈতিক বা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িয়ে না পড়েন সে ব্যাপারে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দেয়া হয়।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ জুন, ২০১৭ ইং
ফজর৩:৪৫
যোহর১২:০২
আসর৪:৪২
মাগরিব৬:৫২
এশা৮:১৭
সূর্যোদয় - ৫:১৩সূর্যাস্ত - ০৬:৪৭
পড়ুন