দুর্যোগ মোকাবিলার সঙ্গে প্রশমনের বিষয়েও জোর দিতে হবে :পরিকল্পনামন্ত্রী
ডেল্টা প্ল্যান নিয়ে জাতীয় পরামর্শক কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত
ইত্তেফাক রিপোর্ট১৯ অক্টোবর, ২০১৭ ইং

পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, পানিসম্পদ আমাদের অর্থনীতির অগ্রগতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এতদিন শুধু জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলায় কেবল মানিয়ে নেওয়া বা অ্যাডাপটেশনের বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখন থেকে দুর্যোগ প্রশমনের বিষয়েও জোর দিতে হবে। জলবায়ু পরিবর্তনজনিত অভিঘাত মোকাবিলা ও নদীকেন্দ্রিক প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রশমিত করে অর্থনৈতিক উন্নয়নকে এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে শতবর্ষব্যাপী বাংলাদেশ ডেল্টা প্লান-২১০০ শিরোনামে একটি পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে।  গতকাল রাজধানীর শেরে  বাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ বিষয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের জাতীয় পরামর্শক কমিটির দ্বিতীয় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এরই মধ্যে পরিকল্পনার একটি খসড়া প্রণয়ন করেছে পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগ (জিইডি)। গতকালের আলোচনায় মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন জিইডি সদস্য ড. শামসুল আলম। পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে এতে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ ও বন মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু ও পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। এ ছাড়া উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোঃ নজিবুর রহমান, পরিকল্পনা বিভাগের সচিব জিয়াউল ইসলাম প্রমুখ।

আলোচনায় বক্তারা বলেন, পানি নিরাপত্তার পাশাপাশি পানির উপযুক্ত ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। টেকসই ও সমন্বিত নদী ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে হবে। জলাশয় ও জলাভূমির সংরক্ষণ এবং সেগুলোর উপযুক্ত ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। সেইসাথে ভূমি ও পানির সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

পরিবেশ ও বন মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন একটি বৈশ্বিক ইস্যু। এটির ফলে যে কেবল আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হবো তা নয়, উন্নত বিশ্বও ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কারণ বৈশ্বিক তাপমাত্রা বাড়লে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়বে। যা সব দেশকেই হুমকির মুখে ফেলবে। তিনি বলেন, এ পরিকল্পনাটি বাস্তবায়ন করা গেলে বাংলাদেশের পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনায় ব্যাপক ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে। পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, বর্তমানে পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনায় যেসব কাজ করা হচ্ছে তা পূর্ণাঙ্গ নয়। উন্নয়ন হচ্ছে ঠিকই, কিন্তু সেই উন্নয়ন টেকসই করার জন্য যে রক্ষণাবেক্ষণ দরকার তা হচ্ছে না। ডেল্টা প্ল্যানের মাধ্যমে সমন্বিতভাবে পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনা করা গেলে তা ভালো ফল দেবে।

মূল প্রবন্ধে ড. শামসুল আলম উল্লেখ করেন, ডেল্টা পরিকল্পনার উদ্দেশ্য দীর্ঘমেয়াদে পানি ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। এর পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করে পরিবেশগত স্থিতিশীলতা ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করা। একই সঙ্গে আন্তর্জাতিক নদীগুলোর পানিসম্পদ ব্যবহারে যথোপযুক্ত উদ্যোগ নেওয়াও এ পরিকল্পনার অন্যতম উদ্দেশ্য। 

 

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৯ অক্টোবর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৪২
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫২
মাগরিব৫:৩৩
এশা৬:৪৪
সূর্যোদয় - ৫:৫৭সূর্যাস্ত - ০৫:২৮
পড়ুন