ট্রাম্পকে ক্ষমা চাইতে বলেছে আফ্রিকার দেশগুলো
১৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং

বর্ণবাদী মন্তব্য নিয়ে বিশ্বজুড়ে নিন্দা

g ইত্তেফাক ডেস্ক

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বর্ণবাদী মন্তব্য নিয়ে বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড় বইছে। তারা এই মন্তব্যকে লজ্জাজনক বলে মন্তব্য করেছেন। আফ্রিকান ইউনিয়ন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ক্ষমা চাইতে বলেছে। যদিও প্রেসিডেন্ট এই মন্তব্য করেননি বলে অস্বীকার করেছেন। কিন্তু ওই বৈঠকে থাকা এক সিনেটর বলেছেন, তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ওই মন্তব্য করতে শুনেছেন। খবর বিবিসি ও সিএনএনের

হোয়াইট হাউসে কংগ্রেস সদস্যদের সঙ্গে অভিবাসন নীতি নিয়ে এক বৈঠকের সময় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প হাইতি, এল সালভেদরসহ আফ্রিকার কিছু দেশকে ‘শিটহোল বা পায়খানার গর্তে’র সঙ্গে তুলনা করেন বলে খবর দেয় মার্কিন গণমাধ্যম। এ নিয়ে বিশ্বজুড়ে ব্যাপক নিন্দা এবং প্রতিবাদ শুরু হওয়ার  পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অবশ্য এরকম শব্দ ব্যবহারের কথা অস্বীকার করছেন। কিন্তু ওই বৈঠকে থাকা মার্কিন ডেমোক্র্যাট দলীয় একজন সিনেটর ডিক ডারবিন দাবি করছেন, তিনি প্রেসিডেন্টকে বর্ণবাদী শব্দ ব্যবহার করতে শুনেছেন। তিনি শুধু একবার নয়, কয়েকবার এই শব্দটি ব্যবহার করেছেন। তিনি কিছু আফ্রিকান দেশকে ‘শিটহোল’ বলে বর্ণনা করেছেন।

ডিক ডারবিন বলেন, আমি বিশ্বাস করতে পারছি না যে প্রেসিডেন্ট যে শব্দগুলো সেখানে ব্যবহার করেছেন, হোয়াইট হাউসের ইতিহাসে ওভাল অফিসে বসে এর আগে কখনো কোনো প্রেসিডেন্ট তা বলেছেন। অভিবাসন নিয়ে রিপাবলিকান এবং ডেমোক্র্যাট দলীয় সিনেটরদের একটি দল একটি প্রস্তাব নিয়ে প্রেসিডেন্টের কাছে গিয়েছিলেন।

বোতসোয়ানা সেদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে ডেকে নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছেন, এসব কথাবার্তা চরম দায়িত্বহীন, নিন্দনীয় এবং বর্ণবাদী। আফ্রিকান ইউনিয়ন বলেছে, তারা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মন্তব্য শুনে শংকিত। জাতিসংঘে নিযুক্ত আফ্রিকান ইউনিয়নের প্রতিনিধি শুক্রবার এক বিবৃতিতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মন্তব্যকে মানহানিকর, লজ্জাজনক এবং হতাশাব্যঞ্জক বলে উল্লেখ করেছেন। ইউনিয়ন এজন্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছ থেকে ক্ষমা প্রার্থনা দাবি করেছে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক মুখপাত্র রুপার্ট কোলভিল বলেছেন, যদি প্রেসিডেন্ট এসব কথা সত্যিই বলে থাকেন সেটা স্তম্ভিত হওয়ার মতো এবং লজ্জাজনক। তিনি বলেন, এটাকে ‘বর্ণবাদী’ বলা ছাড়া আর কিছু বলার সুযোগ নেই। আর যুক্তরাষ্ট্রে অশ্বেতাঙ্গ নাগরিকদের একটি সংগঠন ‘ন্যাশনাল এসোসিয়েশেন ফর দ্য এডভান্সমেন্ট অব কালারড পিপল’ বলেছে, প্রেসিডেন্ট দিনে দিনে আরো বেশি করে বর্ণবাদ আর বিদেশি বিদ্বেষের গর্তের গভীরে ঢুকে যাচ্ছেন।

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং
ফজর৫:২৩
যোহর১২:০৮
আসর৩:৫৭
মাগরিব৫:৩৫
এশা৬:৫২
সূর্যোদয় - ৬:৪২সূর্যাস্ত - ০৫:৩০
পড়ুন