নদীভাঙন প্রতিরোধে ব্যবস্থা নিন
১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
শরীয়তপুরসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় শুরু হয়েছে নদীভাঙন। নদীভাঙন তীব্র হয়ে ওঠায় প্রাচীন স্থাপত্য যেমন মসজিদ, মন্দির, গির্জা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, হাট-বাজার, বাড়িঘর, রাস্তাঘাট, ফসলি জমি সবই নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। দেশের উত্তরাঞ্চল এবং ভাটির সময় মধ্যাঞ্চল নদীভাঙনের কবলে পড়ে হচ্ছে সর্বস্বান্ত। পিতার বাস্তুভিটা রেখে ভাসমান জীবন যাপন করছে অনেকেই। শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার স্থাপনাসহ সবই রাক্ষসী পদ্মায় বিলীন হচ্ছে। এছাড়া উত্তর জনপদের তিস্তা, ধরলা, ব্রহ্মপুত্র, নদী পাড়ের কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, গাইবান্ধা থেকে শুরু করে বগুড়ার সিরাজগঞ্জ, জামালপুর, আরিচা, টাঙ্গাইল এবং রাজবাড়ী, গোয়ালন্দ, মাওয়া, সুরেশ্বর ও মুন্সীগঞ্জসহ বিস্তীর্ণ এলাকায় ভয়াবহ নদীভাঙন দেখা দিয়েছে।  সরকার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণ ও নদী ড্রেজিংসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছে, যা আসলে প্রয়োজনের তুলনায় যথেষ্ট নয়। তাছাড়া বাঁধ নির্মাণ বা সংস্কার নিয়ে একশ্রেণির কর্মকর্তা ও ঠিকাদারের বিরুদ্ধে রয়েছে দুর্নীতির অভিযোগ। তাই সংশি­ষ্ট কর্তৃপক্ষকে নদীভাঙন রোধে দ্রুত এবং কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের করে জন্য বিনীত আবেদন জানাই।

মো.ওসমান গনি শুভ

শিক্ষার্থী, পালি অ্যান্ড বুদ্ধিস্ট স্টাডিজ বিভাগ,

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:২৮
যোহর১১:৫৫
আসর৪:২১
মাগরিব৬:০৮
এশা৭:২১
সূর্যোদয় - ৫:৪৪সূর্যাস্ত - ০৬:০৩
পড়ুন