ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক
চার লেনের কাজে সমন্বয়হীনতা
চার লেনের কাজে সমন্বয়হীনতা
যাত্রী ভোগান্তির বিষয় বিবেচনা করে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চার লেনের কাজ আসন্ন ঈদ পর্যন্ত বন্ধ রাখা হলেও এ মহাসড়কে সৃষ্ট ভয়াবহ যানজট কমছে না। বরং ঈদে ঘরমুখো মানুষের ভোগান্তি বর্তমানে চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। পরিস্থিতির উন্নতি না হলে ঈদের পূর্বে ভোগান্তি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। গত কয়েক দিনের অব্যাহত ভারী বৃষ্টিপাতে মহাসড়কের গাজীপুরের ভোগড়া বাইপাস মোড় থেকে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পর্যন্ত দীর্ঘ ৭০ কিলোমিটার মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে রাস্তা ভেঙে সৃষ্ট খানাখন্দ তৈরি হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে ভোগড়া বাইপাস মোড় থেকে নাওজোড়, কড্ডা, বাইমাইল, কোনাবাড়ী, মৌচাক, শফিপুর ও চন্দ্রা মোড় পর্যন্ত মহাসড়কের অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয় হয়ে পড়েছে। এ কারণে এ মহাসড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে।

ভারী বর্ষণের ফলে ভোগড়া বাইপাস মোড় এলাকাজুড়ে হাঁটু পানি জমে থাকায় সংকট আরও তীব্র আকার ধারণ করেছে। ফলে মহাসড়কে চলাচলকারী হাজার হাজার বিভিন্ন যানবাহন অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে ভাঙাচুরা রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে বাধ্য হচ্ছে।

গাজীপুরের ভোগড়া বাইপাস মোড় থেকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণের কাজ শুরু হয় ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সাসেক সড়ক সংযোগ প্রকল্পের মাধ্যমে এ কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এ প্রকল্পের অধীনে মহাসড়কের ভোগড়া বাইপাস মোড় থেকে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পর্যন্ত ৭০ কিলোমিটার মহাসড়ক উন্নীতকরণ কাজ ৪টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বাস্তবায়ন করছে। এরমধ্যে ভোগড়া থেকে কালিয়াকৈর হাই-টেক পার্কের সম্মুখভাগ পর্যন্ত মহাসড়কের উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করছে স্পেকট্রা ইঞ্জিনিয়ারিং লিঃ কোং নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।

বর্তমানে এ প্রজেক্টের প্রায় ৩০ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু সাম্প্রতিককালে মন্থরগতির কারণে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেও চার লেনে উন্নীতকরণ কাজ সম্পন্ন হবে কিনা সে ব্যাপারে সংশয় দেখা দিয়েছে। উন্নীতকরণ কাজের জন্য মহাসড়কের দুইপাশে মাটি ফেলাসহ রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি করার কারণে বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় অসংখ্য খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। খানাখন্দে ভরা ভাঙা সড়ক দিয়েই যানবাহন চলাচল করার কারণে মহাসড়কের অবস্থা দিন দিন শোচনীয় অবস্থায় পৌঁছেছে।

অবস্থা বিবেচনা করে আসন্ন ঈদ পর্যন্ত চার লেনে উন্নীতকরণের কাজ স্থগিত করা হলেও মড়ার উপর খাড়ার গায়ের মতো গত কয়েকদিনের অব্যাহত ভারী বর্ষণ ও যানবাহনের অত্যধিক চাপ এ সংকটকে তীব্র থেকে তীব্রতর করে তুলেছে।

সোমবার সকালে সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ভোগড়া বাইপাস মোড় থেকে চন্দ্রা মোড় পর্যন্ত পুরো মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন। কোনাবাড়ীর এ পয়েন্টে যানবাহনের চাপে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে তা নয়, পার্শ্ববর্তী সড়ক থেকে গাড়ি এসে মহাসড়কে প্রবেশ করে রাস্তা বন্ধ করে দিচ্ছে। এমনি দেখা গেছে, কোনাবাড়ী আমবাগ রাস্তার মোড়, কাশিমপুর রাস্তার মোড়সহ কয়েকটি স্থানে।

এ ব্যাপারে সাসেক সড়ক সংযোগ প্রকল্পের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ রোকনুজ্জামানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে ২০ রোজার পর থেকে আমরা মহাসড়কের চার লেনে উন্নীতকরণ কাজ বন্ধ রেখেছি। তবে মহাসড়কে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট ভোগড় বাইপাস মোড়, কড্ডা, নাওজোড়, কোনাবাড়ী, শফিপুর ও চন্দ্রা এলাকায় অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ সামাল দিতে রাস্তা প্রশস্ত সম্পন্ন করা হয়েছে। এছাড়া এসব পয়েন্টে অতিবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত অংশগুলো তাত্ক্ষণিকভাবে মেরামতের কাজ অব্যাহত রয়েছে। আশা করা যাচ্ছে, অনুকূল আবহাওয়া বিদ্যমান থাকলে ঈদে ঘরমুখো মানুষের দুর্ভোগ হবে না।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২১ জুন, ২০১৮ ইং
ফজর৩:৪৩
যোহর১২:০০
আসর৪:৪০
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৬
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
পড়ুন