ক্যাম্পাস রেডিও
১৪ নভেম্বর, ২০১৬ ইং
 ‘শুভ সকাল বন্ধুরা! আপনারা শুনছেন আপনাদের প্রিয় ক্যাম্পাসের প্রিয় রেডিও। ক্যাম্পাসের দারুণ সব খবর আর সহপাঠীদের সফলতা কিংবা মজার ঘটনা নিয়ে থাকছে আজকের আয়োজন।’ এভাবেই প্রতিদিন নিজেদের ক্যাম্পাসের সফলতার খবর, সহপাঠীদের দুষ্টামির খবর কিংবা শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান নিয়েই ক্যাম্পাস রেডিও চলছে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। পাবলিক কিংবা প্রাইভেট সকল বিশ্ববিদ্যালয়েই এখন আছে ক্যাম্পাস রেডিও। শুধু তাই নয়, ঢাকা কেন্দ্রিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোই যে শুধু এই প্রযুক্তিতে এগিয়ে সে কথা ভুল প্রমাণ করে ঢাকার বাইরের বিশ্ববিদ্যালয়েও চলছে এই ক্যাম্পাস রেডিও। বিভিন্ন ক্যাম্পাসে ‘ক্যাম্পাস রেডিও’র সেই পথচলার গল্পই আজ তুলে ধরেছেন শেখ হাসান হায়দার

পার্থ প্রতীম দাস

প্রতিষ্ঠাতা, বুয়েট রেডিও

মনে আছে সেই দিনটির কথা। গত বছরের ৯ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী হলের ৫০০৩ নম্বর রুম থেকে প্রথম সম্প্রচারিত হয়েছিল ‘বুয়েট রেডিও’। এখনও সেই রুম থেকেই সম্প্রচারিত হয়। সেদিন খুব ভয়ে ছিলাম যে, এত এত মানুষ যে শুনবে সব ঠিকভাবে চলবে তো? বাংলাদেশের ইন্টারনেট স্পিড খুব উঠানামা করে, তাই ভয় ছিল সংযোগ যদি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। প্রায় পাঁচশ’র মতো মেসেজ আসে, তাতে বিভিন্ন ধরনের শুভেচ্ছাবাণীও ছিল। কম্পিউটার থেকে কোনো বাধা ছাড়া শোনা গেলেও মোবাইল থেকে শোনার ব্যবস্থা করা যাচ্ছিল না। ঠিক তখনই এইচটিএমএল নিয়ে একটু পড়ালেখা করে মোবাইলের জন্য একটি প্লেয়ার বানিয়েছিলাম, সেটা দিয়েই এখন দারুণভাবে চলছে। বুয়েট রেডিওতে প্রতি বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত সম্প্রচার চলে। দুই ঘণ্টার এই অনুষ্ঠানে সাধারণত আড্ডা ঘরানার অনুষ্ঠান হয়। এসবের বাইরেও ক্যাম্পাসের সারা সপ্তাহের নানা ঘটনা নিয়ে কথা বলা হয়। ছাত্র-ছাত্রীদের অর্জন নিয়ে কথা বলা হয়। শুরুতে অনেক চ্যালেঞ্জ ছিল আমাদের সামনে কিন্তু বড় ভাইয়েরা সবসময়ই সাহায্য করেছেন আমাদের; কখনো বুদ্ধি দিয়ে কখনো অর্থ দিয়ে। বুয়েট রেডিও গুটি কয়েকজনের হাত ধরে শুরু হলেও এর যাত্রা অব্যাহত রাখতে একে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সবার মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। বর্তমান শিক্ষার্থী এবং পাশ করে যাওয়া অ্যালামনাইদের মাঝে একটি সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করছে বুয়েট রেডিও।                                      

শামীম মাহফুজ স্নিগ্ধ

সহ-প্রতিষ্ঠাতা, রেডিও অস্ট

তখন রাত ১১টার মতো বাজে। অন্য এক ক্যাম্পাস রেডিওর প্রোগ্রাম শুনছিলাম। তখনই আইডিয়াটা আসে মাথায়। কেমন হয় যদি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়েও থাকে ক্যাম্পাস রেডিও। তখনই ফেইসবুকে নাসিরকে জানাই রেডিও নিয়ে কাজ করার ব্যাপারে। আইডিয়া ভালো লাগে তার। ব্যস, কাজ শুরু সেই রাতেই। পরদিন দুপুরের দিকে লোগো ডিজাইন করা হলো। সন্ধ্যার দিকে অনলাইনে খোলা হলো রেডিও অস্ট। আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস রেডিও। রেডিও অস্ট বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে প্রথম অনলাইন রেডিও, যা শুধু শিক্ষার্থীদের তত্ত্বাবধানে বিনোদনের অংশ হিসেবে পরিচালিত হচ্ছে। আপাতত আমরা রেডিও অস্টের দুই সহ-প্রতিষ্ঠাতা শামীম মাহফুজ স্নিগ্ধ ও নাসির উদ্দীন মাহমুদই সমন্বয় করছি আমাদের ক্যাম্পাস রেডিওর। রেডিও অস্ট পৃথিবীর যে কেউ যেকোনো স্থান থেকে শুনতে পারবেন। অস্টের প্রতিভাগুলোকে সবার সামনে তুলে ধরার প্রত্যয়ে কাজ করবে রেডিও অস্ট। অনেক সিনিয়ররা আমাদের পৃষ্ঠপোষকতার ব্যাপারে সাহায্য করতে চেয়েছেন নিজে থেকেই, সামনে নিজস্ব ওয়েবসাইটের ব্যবস্থা করার ইচ্ছা আছে আমাদের। রেডিও অস্ট শুধু অনলাইন রেডিও না, এটি হলো অস্টের ছাত্রছাত্রীদের এক মিলনমেলা। রেডিও অস্ট সম্প্রচার হয় প্রতি সপ্তাহে বৃহস্পতিবার রাত ৯টা থেকে। এরমধ্যে আরজে হিসেবে কাজ করেছেন অম্লান রুপাই, ফজলে রাব্বি, ইয়াসিন, ফরহাদ হোসেন। 

মীর মাইনুল ইসলাম

শো প্রডিউসার, এমবিএসটিইউ রেডিও

বর্তমান সময়ের প্রযুক্তির সহজলভ্যতায় অনলাইন রেডিও যেখানে নিয়মিত তোলপাড় করে চলছে তখন পিছিয়ে নেই মাওলানা ভাসানি বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। ঢাকা কেন্দ্রিক হলেই যে টেকনোলজিতে এগিয়ে থাকতে হবে সে কথাকে ভুল প্রমাণ করে ২০১৬ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি মাভাবিপ্রবিতে যাত্রা শুরু করে ক্যাম্পাস ভিত্তিক অনলাইন রেডিও ‘এমবিএসটিইউ রেডিও’। অনলাইন ভিত্তিক এ রেডিওটির নির্মাতা ওয়াজিদ উল্লাহ মোরাদ জানান প্রথম অবস্থায় নতুন এই অনলাইন রেডিও নিয়ে তাকে পরতে হয়েছে নানা প্রকার বিপাকে কিন্তু বিভাগীয় শিক্ষক ও বন্ধুদের সহায়তা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সমর্থনের এটি আজ পুরো ক্যাম্পাসে বেশ জনপ্রিয়। অনলাইন ভিত্তিক এই ক্যাম্পাস রেডিওটির যাত্রা শুরু হয় আইসিটি বিভাগের ১ম বর্ষ ২য় সেমিস্টারের ছাত্র ওয়াজিদ উল্লাহ মোরাদের হাত ধরে। প্রথম অবস্থায় বিভিন্ন বাধার সম্মুখীন হলেও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তা উতরে ‘এমবিএসটিইউ রেডিও’ এখন ক্যাম্পাসের অন্যতম শিক্ষা ও বিনোদনমাধ্যম। রেডিওটি সহজে শোনার সুবিধার্থে একটি অ্যাপও তৈরি করা হয়েছে। বিভিন্ন প্রকার শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান, ক্যারিয়ার আড্ডা, লাইভ শো নিয়ে সাজানো হয়েছে রেডিওটির নিয়মিত অনুষ্ঠান মালা। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল প্রকার খবর নিয়েও আছে নিয়মিত আয়োজন।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৪ নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ফজর৪:৫৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩২
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পড়ুন