দ্বিতীয় স্ত্রী হওয়ায় স্বামীর সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এক বৃদ্ধা
সত্ সন্তানদের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ
ইত্তেফাক রিপোর্ট২১ জুন, ২০১৭ ইং
বৃদ্ধার নাম সাফাক আরা সোবহান (৬৭)। তিনি পিজি (বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়) হাসপাতালের সাবেক অধ্যাপক ডা. আব্দুস সোবহানের দ্বিতীয় স্ত্রী। প্রথম স্ত্রী, তিন সন্তান রেখে মারা গেলে ১৯৮৩ সালে সাফাক আরাকে বিয়ে করেন ডা. আব্দুস সোবহান। বিয়ের পর স্বামীর প্রথম স্ত্রীর সন্তানদের দেখাশুনা করতে নিজে কোনো সন্তান নেননি সাফাক আরা। অথচ স্বামীর মৃত্যুর পর ২০০৭ সালে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছেন সত্ সন্তান ঢাকা বারডেম হাসপাতালের চিকিত্সক ডা. মাহবুব সোবহান। এরপর থেকে সাফাক আরা ফার্মগেটের একটি মহিলা হোস্টেলে রয়েছেন। তিনি মানবেতর জীবন যাপন করছেন বলে জানিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (ক্র্যাব) মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সন্তানের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করেন সাফাক আরা সোবহান নামের এই বৃদ্ধা।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে তাকে বিভিন্নভাবে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করেন সত্ ছেলে ও তার স্ত্রী ডা. রেজিনা সুলতানা। এক পর্যায়ে ২০০৭ সালের ঘূর্ণিঝড় সিডরের রাতে খালি হাতে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়। এরপর থেকে বিচারের দাবিতে বিভিন্ন নারীবাদী গোষ্ঠীর কাছে গেলেও কোনো বিচার পাননি তিনি। পরে আইন ও সালিশ কেন্দ্রে একটি অভিযোগ করলে কিছু দিনের জন্য ছেলের কাছ থেকে প্রতি মাসে পাঁচ হাজার টাকা নিয়ে বৃদ্ধাশ্রমে থাকতে বলা হয়। একই সঙ্গে কিছু দিন পর সন্তানরা তাকে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যাবে অথবা সম্পত্তি বুঝিয়ে দেবে বলে আইন ও সালিশ কেন্দ্র বিচার করে ফয়সালা দেয়। কিন্তু ওই সময়ে তিনি বৃদ্ধাশ্রমে না উঠে একটি মহিলা হোস্টেলে উঠেন। এখনো সেখানেই থাকেন। তবে টাকার পরিমাণ পাঁচ হাজার থেকে আট হাজার হলেও এখন পর্যন্ত তাকে বাড়ি ফিরিয়ে নেওয়া হয়নি। তিনি তার নিজের অংশের সকল সম্পদ বুঝে পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২১ জুন, ২০১৮ ইং
ফজর৩:৪৩
যোহর১২:০০
আসর৪:৪০
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৬
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
পড়ুন