এবার স্প্যানিশ কোচ আনল সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব
সার্বিয়দের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ দাবি
স্পোর্টস রিপোর্টার০৪ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
এবার স্প্যানিশ কোচ আনল সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব
ঢাকা এসেই আর বসে থাকেননি স্পানিশ কোচ আন্দ্রেস ভারগাস। কমলাপুর স্টেডিয়ামে একটি ফুটবল ম্যাচ দেখেই সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের অনূর্ধ্ব-১৮ বছর বয়সী খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণের জন্য আসা ৩৩ বছর বয়সী ভারগাস চলে গেছেন বিকেএসপিতে। আজই শুরু হবে অনুশীলন।

জুলাইয়ে দুই বছরের চুক্তির সুবাদে  বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের নবাগত সাইফ স্পোর্টং ক্লাব বিকেএসপির ২৪ ফুটবলারকে প্রশিক্ষণ দেবে। তাদের জন্যই আনা ভারগাসকে। এই খেলোয়াড়রা বিকেএসপির ছাত্র হলেও সাইফ স্পোর্টিংয়ের অধীনেই থাকবে। আবাসিক ব্যবস্থা বিকেএসপিতেই। খেলোয়াড়দের মেডিকেল ও খাওয়ার ব্যবস্থা সাইফের। খেলোয়াড়দের মান অনুসারে বেতনও ধরা হয়েছে ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত। 

এসব তথ্য জানিয়েছেন ক্লাবটির এমডি নাসির উদ্দিন চৌধুরী। আগামী দুই বছর পর্যন্ত খেলোয়াড়রা এই নিয়মের মাঝেই থাকবেন। সেই সঙ্গে ক্লাবের কোনো খেলা থাকলে সেখানেও অংশগ্রহণ করবেন খেলোয়াড়রা।

 কোচ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘স্পানিশ কোচ যদি মনে করে তার সঙ্গে আমরা আরো কয়েকজন স্টাফ আনবো। আপাতত সে একাই কাজ করবে। তরুণ কোচ বয়সটাও কম। আর আমাদের খেলোয়াড়রাও কম বয়সী। ভালোই হবে। কাজটা শুরু হোক। পরে দেখা যাবে কি হয়।’ এই কোচের বেতন প্রায় চার থেকে পাঁচ হাজার ডলার খরচ পড়বে। বছরে দুই বার দেশে যাবে। আর সব সুযোগ সুবিধা দিতে হবে তাকে।

সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব প্রিমিয়ার লিগে নতুন এসেই একাডেমি গড়ার কাজে নেমেছে। নিজেদের জমিতে একাডেমি গড়ার কাজও অনেক এগিয়েছে। তার আগে বিকেএসপির সহযোগিতা চাইছে সাইফ স্পোর্টি ক্লাব। দলের এমডি নাসির উদ্দিন বললেন, ‘আমরা আগামীতে অন্য কোনো ক্লাবের খেলোয়াড়দের চড়া পরিশ্রমিক দিয়ে নেব না। নিজেদের গড়া খেলোয়াড়দের নিয়ে দল গঠন করবো। টার্গেট আছে মিডটার্ম হবে ১৬ বছরের এবং লংটার্ম প্রশিক্ষণ হবে ১২ বছর বয়সের খেলোয়াড়দের নিয়ে।’ 

ফিফার কাছে ক্ষতিপূরণ দাবি

এদিকে ক্লাবটি তাদের আগের সার্বিয় কোচদের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ চেয়ে ফিফাকে চিঠি দিয়েছে। যদিও কোচিং স্টাফরাই প্রথমে ফিফার কাছে অভিযোগ জানিয়েছিল।

ফুটবল মৌসুম শুরুর আগে এই কোচদের এনে সাইফ স্পোটিং প্রস্তুতির জন্য কলকাতায় পাঠিয়েছিল। কিন্তু ক্লাবটি তাদেরকে দায়িত্ব পালনে অবহেলা, নিজেদের মাঝেই শৃংখলা না থাকা, জাল লাইসেন্সের অভিযোগ তুলে দুই বছরের চুক্তির পরও দুই মাসের মাথায় বিদায় করে দেয়। এ নিয়ে তাদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ফিফা জানতে চাইলে সাইফ স্পোর্টিং ছয়জনের বিরুদ্ধেই পাল্টা ক্ষতিপূরণ দাবি করে।

এ প্রসঙ্গে ক্লাবটির এমডি বলেছেন, ‘ওই ছয় কোচের বিরুদ্ধে আমরা পাল্টা অভিযোগ করেছি ফিফার কাছে। তারা আমাদের প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুণ্ন করেছে। আমি অর্থিক ক্ষতিপূরণ দাবি করেছি।’

এই কোচরা লাইসেন্স নিয়েও লুকোচুরি করেছে জানিয়ে নাসির চৌধুরী বলেন, ‘আমরা যখন তাদের কোচিং লাইসেন্স দেখাতে বলেছিল তারা দেখায়নি। সেটা ফিফাকে জানিয়েছি। নকল লাইসেন্স ব্যবহার করছে।’

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৪ আগষ্ট, ২০১৮ ইং
ফজর৪:০৭
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪২
মাগরিব৬:৪৩
এশা৮:০২
সূর্যোদয় - ৫:২৯সূর্যাস্ত - ০৬:৩৮
পড়ুন