‘হোম টেস্ট’ রোমাঞ্চে তাসকিন
স্পোর্টস রিপোর্টার২২ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
‘হোম টেস্ট’ রোমাঞ্চে তাসকিন
একেবারে ঢাকার স্থানীয় ক্রিকেটার বলতে যা বোঝায়, সেই ধরনের ক্রিকেটার এখন জাতীয় দলে খুবই কম। সেই বিরল ঢাকার ক্রিকেটারদের একজন তাসকিন আহমেদ। এর আগে চারটি টেস্ট খেলে ফেললেও বাংলাদেশের মাটিতে এখনও টেস্ট খেলা হয়নি এই ফাস্ট বোলারের। যদি সব ঠিক থাকে, তাহলে ঢাকার মাঠে, নিজের হোম গ্রাউন্ডে ম্যাচ দিয়েই টেস্টে বাংলাদেশ পর্ব শুরু হবে তাসকিনের।

গতকাল সংবাদ সম্মেলনে বলছিলেন, বাংলাদেশের মাটিতে সাদা পোশাকে ম্যাচ খেলার জন্য মুখিয়ে আছেন তিনি। টেস্ট খেলা তার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল। ইনজুরি দফায় দফায় পিছিয়ে দিয়েছে তার টেস্ট অভিষেক। অবশেষে এ বছর জানুয়ারি মাসে নিউজিল্যান্ডে টেস্ট অভিষেক হয়েছে তাসকিনের। তারপর থেকে যে চারটে ম্যাচ খেলেছেন, তাতে বুঝেছেন, এই জগতটা বড় কঠিন। 

 টেস্ট ক্রিকেটে যে ধৈর্য আর নানারকম বৈচিত্র্যের দরকার হয়, সে কথা বলছিলেন তাসকিন, ‘সত্যি কথা বলতে কি, আমি বেশি টেস্ট খেলিনি। চারটা ম্যাচ খেলে আমার মনে হয়েছে এই ফরম্যাট অনেক কঠিন। আগে তো শুধু্ ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি খেলতাম। এখন টেস্টও খেলছি। টেস্টে প্ল্যান অনুযায়ী খেলতে হয়। চেঞ্জ অব পেস দরকার আছে। আশা করি পরিস্থিতি অনুসারে আমরা খেলতে পারবো।’

 শেষ পর্যন্ত মিরপুর টেস্ট খেলা হবে কি না, সেটা সময় বলবে, তবে তাসকিন বলছিলেন, স্কোয়াডে থাকতে পেরেই তিনি খুশি, ‘এখন আল্লাহর রহমতে বাংলাদেশ অনেক ভালো পারফর্মার আছে। কিন্তু টেস্টের স্কোয়াডে থাকার মতো ব্যাপারটা শান্তি পাওয়ার মতো। আমি নিজেকে ভাগ্যমান মনে করি। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট দলে থাকতে পেরে আনন্দিত এবং ভাগ্যমান মনে করছি নিজেকে।’

তাসকিন জানেন যে, বাংলাদেশের মাটিতে টেস্ট খেলাটা পেসারদের জন্য কঠিন ব্যাপার। তারপরও তার লক্ষ্য পরিষ্কার, দলের জয়ের পথে একটা অন্তত ‘উইনিং স্পেল’ করতে চান, ‘টেস্ট ক্রিকেটের প্রত্যেকটি উইকেটই কাউন্টেবল। তাদের টপঅর্ডারে যারা আছে, সবাই খুব ভালো ফর্মে আছি। অভিজ্ঞরা তো আছেই। নতুনরাও ধারাবাহিকভাবে ভালো করছে। আমার স্বপ্নের উইকেট ওয়ার্নার- স্মিথ আছে। নতুনরাও ভালো করছে। আমি সুযোগ পেলে একটা ম্যাচ উইনিং স্পেল করতে চাই।’ এই ম্যাচ জেতানো স্পেলের ব্যাখ্যাও আছে। ম্যাচ জেতানো মানে, পাঁচটা বা সাতটা উইকেট নেওয়া নয়। তিনি একটা উইকেট হলেও প্রয়োজনীয় উইকেটটা নিতে চান, ‘উইনিং স্পেল মানে পাঁচ-সাত উইকেট নেয়া নয়। বরং ভালো কিছু ওভার করা। দেখা গেলো স্পিনাররা পাঁচ-সাতটা উইকেট নিয়েছে। এর মাঝখানে দুইটা উইকেট নিয়ে নিলাম। যা দলকে উপকার করে দিবে। এমন কিছুই করতে চাই। পুরোনো বলে রিভার্স সুইংটা করতে চাই। এ সব নিয়ে কাজ করছি আশা করি ভবিষ্যতে অনেক কাজে দিবে।’

সবচেয়ে বড় কথা হলো, তাসকিন এখন ইনজুরিমুক্ত আছেন। এই সময়টা কাজে লাগাতে চান বাংলাদেশি এই ফাস্ট বোলার, ‘আল্লাহর অশেষ রহমতে আমার ফিটনেস আগে চেয়ে অনেক ভালো। দুই বছরে বড় কোনো ইনজুরি হয়নি। টেস্ট সেশন সেশন ভাগ তো, ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টিতে দেখা যায় একটা বা দুইটা স্পেলেই ম্যাচ শেষ। কিন্তু সাত আটটা স্পেল থাকে টেস্টে। জিনিসটা এতো সহজ নয়। নিউজিল্যান্ডে বোলিং করে যে আনন্দ পেয়েছি, তা শ্রীলঙ্কায় পাইনি। আর বাংলাদেশে আমি এখনো টেস্ট খেলিনি। আমার মনে হয় অনেক ধৈর্য ও দক্ষতার ব্যাপার। আশা করছি সামনে ভালো কিছু হবে- ইনশাল্লাহ।’

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২২ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
ফজর৪:১৮
যোহর১২:০২
আসর৪:৩৫
মাগরিব৬:৩০
এশা৭:৪৫
সূর্যোদয় - ৫:৩৬সূর্যাস্ত - ০৬:২৫
পড়ুন