মেসিদের নয়, বার্সেলোনার বিজয়!
স্পোর্টস ডেস্ক২২ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
মেসিদের নয়, বার্সেলোনার বিজয়!
জয়ে শুরু রিয়ালের

প্রত্যেকে হয়ে উঠেছেন বার্সেলোনার প্রতীক। দুর্দান্ত ওয়ান-টু-ওয়ান পাস দিচ্ছে লিওনেল মেসি নয়, বার্সেলোনা; গোল করে উত্সবে মাতছে সার্জিও রবার্তো নয়, বার্সেলোনা। শীতল অন্ধকার কেটে যাক, শান্তির বার্তা ছড়িয়ে পড়ুক কোটি মানুষের প্রাণে।

গত রবিবার রাতে রিয়াল বেটিসের বিপক্ষে খেলেছেন মেসিরা। অসাধারণ ফুটবলে মঞ্চ আলোকিত করেছেন জেরার্ড লাজারো। বেটিসের আত্মঘাতী গোল কিংবা সার্জিও রবার্তোর বল জালে জড়ানো- বার্সার ২-০ গোলের জয়ের নায়ক ২৩ বছর বয়সী স্প্যানিশ খেলোয়াড়টি। গোল না পেলেও দুর্দান্ত খেলেছেন মেসি। কিন্তু মেসিদের জয় ছাপিয়ে বড় হয়ে উঠেছে বিশ্ব শান্তির বার্তা। দানবেরা যতই উন্মত্ত হোক, শান্তির বিজয় অবশ্যম্ভাবী।

ম্যাচ শেষে তাই লাজারোর ভারী কণ্ঠে শোনা গেল, ‘তাদের শ্রদ্ধা নিবেদন করতেই মাঠে নেমেছিলাম আমরা। হামলায় হতাহত এবং তাদের প্রথম গোলটি উত্সর্গ করছি। যা ঘটেছে, তার নৃশংসতা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। আর কখনও এমনটা না ঘটুক। আমরা ভীত নই। কিন্তু এটা থামা প্রয়োজন। আমাদের বিজয় তাদের উত্সর্গ করছি।’ গত বৃহস্পতিবার বার্সেলোনার পর্যটন এলাকা লা র্যামব্লাসে সন্ত্রাসী হামলায় মারা যান ১৩ জন। তাদেরকে শ্রদ্ধা জানাতে আগের ঘোষণা অনুযায়ী বেটিসের বিপক্ষে মেসিরা সবাই ‘বার্সেলোনা’ লেখা জার্সি পরে খেলতে নেমেছিলেন। ম্যাচ শুরু হয় এক মিনিট নীরবতা পালন করে। ৩৬ মিনিটে প্রথমে লাজারোর ক্রস সামলাতে না পেরে নিজেদের জালেই বল জড়িয়ে ফেলেছে বেটিসের আলিন তোসকা। তিন মিনিট পর আবার সেই লাজারোর পরোক্ষ সহায়তায় গোল করেন সার্জিও। মেসি তিনবার বল পোস্টে না লাগালে বার্সার জয়টা আরো বড় হতে পারত।

নেইমারের পিএসজি-তে চলে যাওয়া এবং ইনজুরির কারণে লুইজ সুয়ারেজের না থাকা, সব মিলিয়ে কিছুটা অস্থিতিশীল ছিল বার্সেলোনা। তাই লাজারো জ্বলে ওঠায় একটু বেশিই খুশি বার্সেলোনা কোচ আর্নেস্তো ভালভারদে, ‘দলে কেউ না থাকলে অন্যদের এগিয়ে যেতে হয়। তারা তাদের কাজটি করছে।’

জয় দিয়ে লা লিগা শুরু করেছে ২০০৮ সালের পর টানা দুইবার শিরোপাকে চোখ করা রিয়াল মাদ্রিদও। দেপোর্তিভো লা করুনাকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে কোচ জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা। পাঁচ খেলায় নিষেধাজ্ঞার কারণে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো না থাকলেও গ্যারেথ বেলরা খেলেছেন চ্যাম্পিয়নদের মতোই। ২০ মিনিটে করিম বেনজেমার সহায়তায় গোল করেন বেল। সাত মিনিট পর মার্সেলোর কাছ থেকে বল পেয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ক্যাসেমিরো। ৬২ মিনিটে দেপোর্তিভোর কফিনে শেষ পেরেক ঠুকেন টনি ক্রুস।

রিয়াল ভক্তদের একমাত্র আক্ষেপ হতে পারে, সার্জিও রামোসের লাল কার্ড প্রাপ্তি। খেলার যোগ করা সময়ে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড পেয়ে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন তিনি। খেলার পর সন্তোষ প্রকাশ করে জিদান বলেন, ‘এই দল যেমন আছে, তেমনই চাই। আমি দলটাকে ভালোবাসি। আশা করছি কোনো পরিবর্তন আসবে না। তবে ৩১ তারিখ পর্যন্ত যেকোনো কিছুই ঘটতে পারে।’-সকারওয়ে/সুপার স্পোর্টস 

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২২ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
ফজর৪:১৮
যোহর১২:০২
আসর৪:৩৫
মাগরিব৬:৩০
এশা৭:৪৫
সূর্যোদয় - ৫:৩৬সূর্যাস্ত - ০৬:২৫
পড়ুন