হাবলু প্রেমিক
১১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং
হাবলু প্রেমিক

 

মহল্লার বিলকিসকে আমার দারুণ লাগে। কারণ ওর নামের শেষে কেমন একটা আদর আদর ভাব আছে। যে করেই হোক; তাকে আমার চাই!

আমি কুচকুচে কালো! তাতে কী? মনে মনে শক্তি জোগাই আর টিপ্পনিকাটা ওই সব বে-আক্কেলদের উদ্দেশে বলি; ওরে অধম তোরা কি জানিস না, ‘কালা’ই এ জগতের মালা!

বিলকিসের গায়ের রং দুধ ফর্সা! আমার প্রথম লেখা ‘আলাবিউ’ খুদেবার্তাতেই সে আমাকে বোল্ড আউট করে দিয়েছে। উত্তরে লিখেছে—যেই না কালা কাউয়া তার আবার প্রেম করার শখ! আমার সঙ্গে প্রেম করতে হলে ফর্সা-সুন্দর-স্মার্ট হতে হবে।

পরাজয়ে ডরে না বীর! শুরু হলো আমার ফর্সাচর্চা। পাশের দোকানের যত ফেয়ার অ্যান্ড আভলী আর কেনোলাক্স ক্রিম আমার ঘরে আসতে লাগল। নিয়ম করে রাত-দিন সমানে তা মাখতে লাগলাম। সঙ্গে উপটান তো আছেই!

একমাস... দুইমাস... ধীরে ধীরে আমি উজ্জ্বল কালো (!) থেকে মোটামুটি ফর্সায় উন্নীত হলাম। এবার বিলকিস যাবে কই? প্রেমে তাকে পড়তেই হবে।

অন্যদিকে পোশাকে দৃষ্টি দিই। গুলিস্তানের ফুটপাথ থেকে যুতসই একটা সানগ্লাস কিনলাম। নিউমার্কেট থেকে তন্নতন্ন করে খুঁজে কিনলাম দুটো হাঁটুছেঁড়া প্যান্ট। সঙ্গে দুটো বুককাটা লাল-নীল গেঞ্জি!

এদিকে উল্লেখযোগ্য হারে সেলুনে আসা-যাওয়ার মাত্রা বাড়িয়ে দিলাম। সেখানে ভ্রূ-প্লাগসহ সপ্তাহে অন্তত একদিন ফেসিয়াল করি এবং সৌন্দর্য বর্ধনের নানারকম টিপস গ্রহণ করি!

এমতাবস্থায় মাঝে মাঝে বিলকিসকে নিশিরাতে ফোন দিই। কেটে দেয়। আবার দিই। নাহ্ ধরছে না। ব্যর্থতাই সাফল্যের চাবিকাঠি—এই মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে অবশেষে পুনঃপুনঃ চেষ্টায় সফল হই। প্রথম প্রথম বিরক্ত হলেও আমার চরম হাস্যরস আর কৌতুকপূর্ণ কথাবার্তায় একসময় আমাদের প্রেম জমে উঠল।

—হ্যালো বিলকিস। সুইটহার্ট! কেমন আছ জান? লাল গেঞ্জিটায় আজ আমাকে কেমন লাগল?

—দারুণ! দিন দিন তুমি সুদর্শন হয়ে উঠছ জানো! এই তো চাই!

আমি দ্বিগুণ উত্সাহে চুলে জেল মেরে, জিন্স-সানগ্লাস পড়ে তার আগত রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে লাগলাম। বিলকিস আমাকে দেখে চোখ টিপ মারে; মিটিমিটি হাসে। আমি স্বর্গীয় সুখে ভাসি। আহা... কী আনন্দ আকাশে বাতাসে!

কিন্তু একি! বিলকিসদের বাড়িতে আজ এমন আলোকসজ্জা হচ্ছে কেন? প্রবেশদ্বারেই বা কেন এত বড় তোরণ?

হনদন্ত হয়ে ওকে ফোন করি। ফোন বন্ধ। আমি অস্থির, পাগলপ্রায়। মাথা চুলকাতে চুলকাতে গেটের আশপাশে ঘোরঘোর করি। বিলকিসের দেখা নেই!

সন্ধ্যাবেলায় হঠাত্ আমার হূদয়ে ৪৪০ ভোল্টের শক দিয়ে বিলকিসদের পুরো বাড়িটাই আলোকোজ্জ্বল হয়ে উঠল। এদিকে আমি ঘামছি; ঘনঘন বিড়ি ফুঁকছি। হঠাত্ মোবাইলে টুট্ টুট্ শব্দে একটি ম্যাসেজ—

জান! এখন তুমি যে ফর্সা আর সুদর্শন হয়ে উঠেছ; আমার চেয়ে অনেক সুন্দর মেয়ে তুমি পাবে! মরার ভয়ে ব্লু হোয়েল গেমটা খেলতে না পারলেও প্রেম প্রেম খেলাটা তোমার সঙ্গে ভালোই খেললাম। তুমি খুব বোকা, তাই তো দিলাম ধোঁকা! ভালো থেকো আমার হাবলু প্রেমিক!

...চোখ খুলে দেখি বন্ধুরা আমাকে ঘিরে আছে! আমার মাথা ভেজা। এক ড্রাম পানি ঢেলে ওরা আমার জ্ঞান ফিরিয়েছে!

n ওহাব ওহী

দক্ষিণ শ্যামপুর, হেমায়েতপুর, সাভার, ঢাকা।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং
ফজর৫:১৭
যোহর১২:১৩
আসর৪:১৫
মাগরিব৫:৫৫
এশা৭:০৮
সূর্যোদয় - ৬:৩৪সূর্যাস্ত - ০৫:৫০
পড়ুন