রাস্তায় নিরাপদ থাকতে
২১ জুন, ২০১৭ ইং
রাস্তায় নিরাপদ থাকতে
সৈয়দ তাওসিফ মোনাওয়ার

মাহবুবুল হাসানের রোবট নিয়ন্ত্রিত গাড়ির প্রকল্পের নাম ‘অটোমেটিক ভেহিকল সিকিউরিটি সিস্টেম’। মাহবুবুল হাসান সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ের অটোমেশন রিসার্চার হিসেবে আছেন। রোবট, গাড়িসহ বিভিন্ন স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণা করাই তার কাজ। এই প্রকল্পে তার সঙ্গে কাজ করেছেন সোনারগাঁও ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের নওরোজ ইমতিয়াজ, রাজিব প্রধান ও শাকিল হোসেন। এটি অ্যান্ড্রয়েড কার। কোন রাস্তায় যানজট আছে, সেটি গ্রাফের গাড়িতে অবস্থানরত ব্যক্তির মোবাইলে দেখা যাবে। তবে সেজন্য রাস্তায় কতগুলো সেন্সর লাগানো থাকতে হবে। আর গাড়িতে অবস্থানরত ব্যক্তির মোবাইলে থাকবে ‘আরডু’ নামের একটি সফটওয়্যার। এটি অন করলেই কোন রাস্তায় কেমন জ্যাম, সেটি দেখা যাবে।

নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর পাসওয়ার্ডের মাধ্যমে গাড়ির দরজা খোলা ও বন্ধ করা যাবে। গাড়ির মালিকের কণ্ঠস্বরের মাধ্যমে দরজা-জানালা বন্ধ করার জন্য আছে ভয়েস রিকগনিশন সেন্সর। নির্দিষ্ট দূরত্বে গাড়ির গতি-কমানো-বাড়ানোর জন্য আছে আলট্রাসনিক সেন্সর। এ ছাড়া গাড়ি চুরি রোধ করার জন্য এর সামনে-পিছনে ছোট ছোট মিনি ক্যামেরা সংযুক্ত থাকবে। এগুলো আসলে ইন্টারনেট প্রটোকল ক্যামেরা। গাড়ির মালিকের মোবাইল ফোনে জিএসএম সিস্টেমের সঙ্গে সংযুক্ত সফটওয়্যার থাকবে। আর সেই জিএসএম সিস্টেমটি গাড়ির ইঞ্জিনের সঙ্গে সংযুক্ত থাকবে। ফলে তিনি সেটিতে গাড়ি বন্ধ করে দেওয়ার কমান্ড দিলে গাড়িটি বন্ধ হয়ে যাবে। এ ছাড়া এর বিমা, ফিটনেস ইত্যাদি বিষয় গাড়ির মালিককে মনে করিয়ে দিতে ‘ফিটনেস রিমাইন্ডার সিস্টেম’ নামে একটি ডিভাইস গাড়ির লুকিং গ্লাসের পাশে লাগানো থাকবে। এটিও মাহবুবের তৈরি। এছাড়া আপনাআপনি অগ্নিনিরোধক ব্যবস্থাও গাড়িতে রেখেছেন তিনি। তার এই ‘অটোমেটিক ভেহিকল রিমাইন্ডার সিস্টেম’ বিশ্বব্যাংকের স্কিল কম্পিটিশনে দ্বিতীয় হয়েছে।

উল্লেখ্য, যুগোপযোগী চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে এবং সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সোনারগাঁও ইউনিভার্সিটি নিত্যনতুন বিষয় কোর্স কারিকুলামে অন্তর্ভুক্ত করছে। এই অপার সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখে সোনারগাঁও ইউনিভার্সিটি ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়টির ওপর উচ্চশিক্ষা কার্যক্রম চালু করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমনই নানা উদ্ভাবনের অনুপ্রেরণা ও সহযোগিতা করা হয়ে থাকে। এছাড়াও ফ্যাকাল্টি অব ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে রয়েছে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, আর্কিটেকচার, মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং, ফ্যাশন ডিজাইন অ্যান্ড টেকনোলজি। আরও জানতে ০১৭৭৫০০০৮৮৮ নম্বরে যোগাযোগ করতে পারেন। নিজস্ব ক্যাম্পাসে স্থাপিত ডিজাইন স্টুডিও এবং স্টিল অ্যান্ড কংক্রিট ল্যাব, কার্পেন্ট্রি ওয়ার্কশপ, অয়েল্ডিং ওয়ার্কশপসহ ব্যবহারিক শিক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সব সুবিধা রয়েছে। এসইউর স্থাপত্য বিভাগে দেশের স্থাপত্য শিক্ষায় গুণগত পরিবর্তন আনার লক্ষ্যে দেশের প্রতিষ্ঠিত স্থপতি এবং স্থাপত্য বিদ্যার শিক্ষাবিদদের সমন্বয়ে গঠন করা হয়েছে।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২১ জুন, ২০১৮ ইং
ফজর৩:৪৩
যোহর১২:০০
আসর৪:৪০
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৬
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
পড়ুন