বিজ্ঞান ও টেক | The Daily Ittefaq

'ডিজিটাল বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ গড়ে তোলার দর্শন'‌

'ডিজিটাল বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ গড়ে তোলার দর্শন'‌
যশোর অফিস১৯ মার্চ, ২০১৭ ইং ১৮:৫৩ মিঃ
'ডিজিটাল বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ গড়ে তোলার দর্শন'‌
রবিবার বিকেলে যশোর জিলা স্কুল মাঠে লার্নিং এন্ড আর্নিং মেলার উদ্বোধন হয়েছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ মেলা উদ্বোধন করেন। এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের বাংলাদেশ গড়ে তোলার একটি দর্শন। এই দর্শনের পথ ধরেই ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের প্রযুক্তিনির্ভর বাংলাদেশ গড়ে উঠবে। প্রযুক্তিনির্ভর অর্থনীতির ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে বিশ্ব আমাদের চিনবে।
 
তিনি বলেন, লার্নিং এন্ড আর্নিং-এর জন্য ৫০ দিনে দুইশো ঘণ্টা ট্রেনিং-এর মাধ্যমে তরুণ সমাজের জন্য মেধানির্ভর কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করতে চাই। ঘরে বসে হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ ডলার-পাউন্ড আয়ের ব্যবস্থা করতে চাই আমরা।
 
যশোরের জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, লার্নিং এন্ড আর্নিং ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক তপন কুমার নাথ বক্তব্য রাখেন। ডিজিটাল বাংলাদেশ ও আইসিটি ডিভিশন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
 
এর আগে মন্ত্রী নির্মাণাধীন শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের চলমান কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেছেন। তিনি এই পার্কে স্পেস বরাদ্দপ্রাপ্ত দেশি-বিদেশি কোম্পানির প্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময় করেন এবং চলমান কাজের সর্বশেষ অগ্রগতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেন।
 
সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, আইসিটি খাত হতে পাঁচ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয়ের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে সরকার। বর্তমানে ২৮টি আইটি পার্ক ও হাইটেক পার্ক নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। যুবসমাজকে আইটি প্রফেশনাল হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ৭টি শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং ও ইনকিউবেশন সেন্টার নির্মাণের কাজও চলমান রয়েছে।
 
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটি প্রস্তুত করা হয়েছে আন্তর্জাতিক মানের করে। ইতিমধ্যে ৩টি জাপানি কোম্পানিসহ ১৩টি আইটি কোম্পানিকে দখল প্রদান করা হয়েছে। আবেদন করা আরও ২৪টি কোম্পানির আবেদন যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। 
 
প্রতিমন্ত্রী জানান, ৩০৫ কোটি টাকা ব্যয়ে পার্কটি নির্মাণ করা হচ্ছে। এবছরের ৩০ জুন পার্কটি পুরোপুরি আইটি শিল্পের জন্য প্রস্তুত হবে। এখানে ৩০ হাজার আইটি প্রফেশনাল তরুণ-তরুণী কাজের সুযোগ পাবে।  
 
এসময় প্রতিমন্ত্রীর সাথে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. আব্দুস সাত্তার, এ টু আই-এর প্রকল্প পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান, শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের প্রকল্প পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৯ মে, ২০১৭ ইং
ফজর৩:৪৫
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৫
মাগরিব৬:৪৩
এশা৮:০৬
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৮