বিজ্ঞান ও টেক | The Daily Ittefaq

ফেসবুকে ‘স্মার্ট কিডস্ অ্যান্ড হ্যাপি মমস্’ ক্যাম্পেইনে পুরস্কার পেল ১০০ শিশু

ফেসবুকে ‘স্মার্ট কিডস্ অ্যান্ড হ্যাপি মমস্’ ক্যাম্পেইনে পুরস্কার পেল ১০০ শিশু
অনলাইন সংস্করণ১৫ মে, ২০১৮ ইং ১৩:৩৪ মিঃ
ফেসবুকে ‘স্মার্ট কিডস্ অ্যান্ড হ্যাপি মমস্’ ক্যাম্পেইনে পুরস্কার পেল ১০০ শিশু
 
ফেসবুকে স্মার্ট কিডস্ অ্যান্ড হ্যাপি মমস্ ক্যাম্পেইনে পুরস্কার পেল ১০০ শিশু। ফেসবুকে দীর্ঘ ৩ মাস যাবত ‘স্মার্ট কিডস্ অ্যান্ড হ্যাপি মমস্’ ক্যাম্পেইন শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করে দেশের অন্যতম ব্র্যান্ডেড শপ ‘কিডস অ্যান্ড মমস’।
 
প্রাপ্ত ২২ শতাধিক ছবির মধ্য থেকে বাচ্চার সাথে বাবা-মা ও পরিবারের সদস্যের তোলা সেরা ১০০টি ছবিকে চূড়ান্ত বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। এই ১০০টি বিজয়ী ছবির মাঝে সেরা ১১টি ছবিকে জমকালো এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পুরস্কার প্রদান করা হয়।
 
পুরস্কার প্রদান করেন পুরো ক্যাম্পেইনের প্রধান বিচারকের দায়িত্ব পালনকারী জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা মৌসুমি।
 
প্রাথমিক বাছাইয়ের পর ফেসবুকে বন্ধুদের লাইক, কমেন্ট ও শেয়ারের পাশাপাশি বিচারকদের রায়ে নির্বাচন করা হয় বিজয়ীদেরকে। ‘কিডস অ্যান্ড মমস’ দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে সকল বাচ্চাই স্মার্ট বাচ্চা এবং সকল মা-ই সুখী মা। প্রতিযোগিতার নিয়ম মানতেই ১০০ বাচ্চাকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে মাত্র।
 
প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকারী শিশু নাসিম আলসাবাহ পুরস্কার হিসেবে পেয়েছে মা-বাবাসহ ঢাকা-ব্যাংকক-ঢাকার তিনটি এয়ার টিকেট।
 
দ্বিতীয় স্থান অধিকারী গুলাম মুরশেদ তাহমিম পেয়েছে মা-বাবাসহ ঢাকা-কলকাতা-ঢাকার তিনটি বিমান টিকেট।
 
তৃতীয় স্থান অধিকারী জায়ানা জামান পেয়েছে মা-বাবাসহ ঢাকা-কক্সবাজার-ঢাকার তিনটি বিমান টিকেট।
 
বাকি ৮ জন বিজয়ীর প্রত্যেককে পুরস্কার হিসেবে ৫ হাজার টাকার গিফট ভাউচার প্রদান করা হয়েছে এবং ১১ জন বিজয়ীকেই কিডস অ্যান্ড মমসের সদস্য কার্ড ও প্রতিযোগিতার ফ্রেমবন্দী ছবি প্রদান করা হয়েছে।
 
প্রতিযোগিতার অবশিষ্ট ৮৯ জন বিজয়ীকেও ফ্রেমবন্দী ছবি ও সদস্য কার্ড প্রদান করা হবে।
 
পুরস্কার গ্রহণের পর প্রথম বিজয়ী নাসিম আলসাবাহর মা ফারিয়া ইসলাম তাঁর অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, জয়ের অনুভূতি বরাবরই একটু বেশি স্পেশাল। কিডস অ্যান্ড মমসের এই উদ্যোগটিকে আমি স্বাগত জানাই এবং আশা করি ভবিষ্যতে এরকম আরও অনুষ্ঠান আয়োজিত হবে।
 
প্রধান বিচারক চিত্রনায়িকা মৌসুমি তাঁর শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, ‘‘বাচ্চাদের ছবি দেখে সেরা ছবি বাছাইয়ের কাজটি পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিন কাজের মধ্যে একটি। তারপরেও যেহেতু এটি একটি প্রতিযোগিতা, আমাকে আমার দায়িত্ব পালন করতে হয়েছে। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী সকল শিশুর প্রতিই আমার শুভকামনা রইল।’’
 
একই সঙ্গে কিডস অ্যান্ড মমস কর্তৃপক্ষকে এরকম একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করার জন্য অভিনন্দন জানান তিনি।
 
বিগত ১৭ বছর যাবত কার্যক্রম পরিচালনার পর অনেকদিনের পরিকল্পিত এই অনুষ্ঠানটি সফলভাবে আয়োজন করতে পেরে কিডস্ অ্যান্ড মমস্ কর্তৃপক্ষও অত্যন্ত আনন্দিত এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
 
বিজয়ী ১১ বাচ্চা, তাদের বাবা-মা, দেশের প্রথম সারির মিডিয়া এবং কিডস্ অ্যান্ড মমস্ কর্তৃপক্ষ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শেষ সবাইকে সহযোগিতা করার জন্য ধন্যবাদ জানান কিডস অ্যান্ড মমস-কর্তৃপক্ষ।
 
অনুষ্ঠানে বর্ণিল পাপেটশো প্রদর্শন করা হয় এবং ডিনারের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ হয়। এই পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানটি উত্তরা দিয়াবাড়িস্থ ফ্যান্টাসি আইল্যান্ডে ১২ মে অনুষ্ঠিত হয়।
 
ইত্তেফাক/মোস্তাফিজ
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২১ আগষ্ট, ২০১৮ ইং
ফজর৪:১৭
যোহর১২:০২
আসর৪:৩৬
মাগরিব৬:৩০
এশা৭:৪৬
সূর্যোদয় - ৫:৩৬সূর্যাস্ত - ০৬:২৫