খেলাধুলা | The Daily Ittefaq

বাংলাদেশের অপেক্ষায় আফ্রিকা

বাংলাদেশের অপেক্ষায় আফ্রিকা
স্পোর্টস রিপোর্টার১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং ০৯:৫৪ মিঃ
বাংলাদেশের অপেক্ষায় আফ্রিকা
 
সাত মাসেরও বেশি সময় হলো দেশের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে না দক্ষিণ আফ্রিকা। বিদেশ সফর আর আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট নিয়েই গত ফেব্রুয়ারির পর থেকে ব্যস্ত আছে দলটি। অবশেষে সেই খরা ঘোচার সময় এসেছে। বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ দিয়ে আবার ক্রিকেট উত্সবে মেতে উঠতে যাচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকা।
 
আফ্রিকানদের কাছে ক্রিকেটটা হয়তো উপমহাদেশীয়দের মতো ‘উত্সব’ নয়। তারপরও দেশটির উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান কুইন্টন ডি কক বলছেন, এই লম্বা বিরতির পর তারা দেশের দর্শককে আনন্দে ভাসার কিছু উপলক্ষ এনে দিতে চান। সেভাবেই প্রস্তুত হচ্ছেন তারা বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলার জন্য, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, আমি খুব ভালো অবস্থায় আছি। প্রতিদিন কঠোর পরিশ্রম করছি। দলের বাকিরাও তাই করছে। দেশের মানুষের সামনে খেলার অপেক্ষায় আমরা রোমাঞ্চিত হয়ে আছি। ক্রিকেট অনেক বেশি দলীয় খেলা। আবার এটা একই সঙ্গে বেশ ব্যক্তিগত খেলাও। ফলে এখানে সবাইকে সমান পারফরম করতে হবে। আশা করি আমরা যখন বাংলাদেশের মুখোমুখি হবো দেশের দর্শককে আনন্দ করার একটা উপলক্ষ এনে দেবো।’ ডি কক কথা বলছিলেন তার একটা পণ্যের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে—একেবারে ক্রিকেটীয় পণ্য।
 
দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটারদের মধ্যে এখন স্পিনের বিপক্ষে সেরা খেলোয়াড়দের একজন ডি কক। কিন্তু তিনিও এক সময় আর দশ জন দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটারের মতো স্পিনের বিপক্ষে বিপাকে পড়তেন। সেখান থেকে নিজেকে বের করে আনতে গিয়েই আবিষ্কার করে ফেলেছেন একটা অনুশীলনের অস্ত্র—স্পিনটেক।
 
স্পিনটেক হলো ডি ককের আবিষ্কার করা একটা ম্যাচ। এই ম্যাটটাতে নানারকম কারিকুরি করে বানানো হয়েছে। এটা ব্যাটসম্যান অনুশীলনের সময়ে সামনে বিছিয়ে নেবেন। এর ওপর বল ফেললে বল এমনিতেই স্পিন করবে এবং বাউন্স পাবে। ফলে এটাতে অনুশীলন করলে স্পিন খেলার দক্ষতা বাড়বে বলে বিশ্বাস ডি ককের।
 
তিনি ম্যাটটা সম্পর্কে বলছিলেন, ‘একটা সময় ছিল, যখন আমি নিজেও স্পিনের বিপক্ষে ভালো করতে পারতাম না। আমি ওপেনার হিসেবে পেস বোলিংয়ের বিপক্ষেই বেশি ট্রেনিং করতাম। তখন আমার স্পিন খেলার জন্য বাড়তি সহায়তা দরকার হলো। আর এই চিন্তা থেকে নিজের জন্য প্রথম এই ম্যাটটা ডিজাইন করলাম। আমি সহজে সন্তুষ্ট হইনি। প্রতিনিয়ত এটাতে পরিবর্তন করে আজকের অবস্থায় নিয়ে এসেছি।’
 
ডি কক মনে করেন এই ম্যাটটা তরুণ ক্রিকেটারদের স্পিন খেলার দক্ষতা অনেক বাড়িয়ে দেবে। এমনকি তার দক্ষিণ আফ্রিকা দলের অনেক সতীর্থও এই ম্যাট এখন ব্যবহার করছেন। সামনেই বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলা। যারা কি না স্পিনেই বিশেষজ্ঞ দল। উইকেট বা কন্ডিশন যেমনই হোক, বাংলাদেশ দল স্পিনে বেশ ভরসা করবে। আর এখানেই হয়ে যেতে পারে ডি ককের ‘স্পিনটেক’ ম্যাটের পরীক্ষা। তাইজুল, মিরাজদের মতো করে স্পিন শেখাতে পারবে তো এই ম্যাট? 
 
ইত্তেফাক/এমআর
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
ফজর৪:৩১
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৫
মাগরিব৫:৫৯
এশা৭:১২
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৪