বাণিজ্য | The Daily Ittefaq

ঈদের বাজারে দেশীয় কাপড়ের কদর

ঈদের বাজারে দেশীয় কাপড়ের কদর
আবুল কাসেম ভুঁইয়া১৭ জুন, ২০১৭ ইং ১২:১৩ মিঃ
ঈদের বাজারে দেশীয় কাপড়ের কদর
 
ঈদের বাজার বেশ জমে উঠেছে। ক্রেতারা তাদের পছন্দের জিনিসগুলো কেনার জন্য বিভিন্ন মার্কেটে ছুটছেন। ঈদের বাজারে বিশেষ করে ছেলে-মেয়েদের পোশাকের প্রাধান্যই বেশি। এবারের ঈদ প্রচণ্ড গরমের মধ্যে হওয়ায় ঈদের পোশাকের মধ্যেও বিশেষ পরিবর্তন এসেছে। আগে যেখানে সিনথেটিক কাপড়ের চাহিদা বেশি ছিল এবার সেখানে দেশি উন্নতমানের কাপড়ের ব্যাপক চাহিদার সৃষ্টি হয়েছে। ছেলেদের পাঞ্জাবীর ক্ষেত্রে দেশি সুতি প্রিন্টের কাপড়ের পাঞ্জাবী বেশ চলছে। সুতি কাপড়ের পাঞ্জাবী ছাড়াও ভয়েল, খদ্দর, তাঁতের কাপড়ের পাঞ্জাবী বেশ চলছে। রাজশাহী সিল্কের পাঞ্জাবীও চলছে। ছেলেদের শার্ট, টি-শার্ট, প্যান্টের ক্ষেত্রেও সুতির কাপড়ের প্রাধান্য ছিল। বাংলাদেশি গার্মেন্টসের তৈরি সুতির টি-শার্ট, শার্ট, জিন্সের প্যান্ট, গ্যাবাডিন কাপড়ের প্যান্ট তরুণরা তাদের পছন্দ অনুযায়ী ক্রয় করেছে। মেয়েদের পোশাকের ক্ষেত্রে এবার দেশি শাড়ির চাহিদা ছিল বেশ। আগে যেখানে বাইরের দেশের শাড়ি কেনার জন্য মহিলারা আগ্রহী ছিল এবার সেখানে দেশি কাপড়ের শাড়ির ব্যাপারে আগ্রহ বেশি দেখা গেছে। বিশেষ করে টাঙ্গাইলের বিভিন্ন ধরনের সুতির শাড়ি, তাঁতের কাপড়ের শাড়ি, কাতান, জামদানী, মসলিন শাড়ির চাহিদা ছিল বেশ।
 
গরমের মৌসুমে ঈদ হওয়ায় সুতির শাড়ির চাহিদা ছিল বেশি। মেয়েদের সেলোয়ার কামিজের ক্ষেত্রেও একই অবস্থা। গরমের কারণে মেয়েরা সিল্ক, সিনথেটিক, পলিষ্টার কাপড়ের দিকে যায়নি। মেয়েরা উন্নতমানের সুতির কাপড় দিয়ে আকর্ষণীয় ডিজাইনের জামা তৈরি করেছে। বাচ্চাদের পোশাকের ক্ষেত্রেও দেশি সুতির কাপড়ের প্রাধান্য ছিল। তবে লক্ষণীয় যে এবারের ঈদের বাজারে ছেলে-মেয়েদের পোশাকের ব্যাপারে বিভিন্ন ফ্যাশন ডিজাইন হাউস, বুটিক হাউসগুলোর গুরুত্ব ছিল সবচাইতে বেশি। কারণ এসব ফ্যাশন হাউস এবং বুটিক হাউসগুলো সম্পূর্ণ দেশি কাপড় দিয়ে আর্কষণীয় ডিজাইনের জামাকাপড় তৈরি করেছে যে বিদেশি কাপড়কে হার মানিয়ে দিয়েছে।
 
অন্যবারের মত দেশের বাইরের কাপড়ের চাহিদা এবারে তেমন লক্ষ্য করা যায়নি। দেশি কাপড়ের চাহিদা ছিল সবচাইতে বেশি। দেশি কাপড়কে জনপ্রিয় করে তোলার পেছনে দেশের ফ্যাশন হাউস এবং বুটিক হাউসগুলোর অবদান ছিল সবচাইতে বেশি। কারণ ফ্যাশন হাউসগুলো ক্রেতাদের রুচি অনুযায়ী পোশাক তৈরি করাতে দেশি কাপড়ের কদর বহুগুণ বেড়ে যায়। দেশি কাপড়ের পোশাক অপেক্ষাকৃত দাম কম, পড়তে আরামদায়ক হওয়ায় সবাই দেশি পোশাকের প্রতি আগ্রহী হয়। দেশি পোশাকগুলোকে জনপ্রিয় করে তোলার পেছনে দেশের সেরা সেরা ফ্যাশন ডিজাইনারদের কৃতিত্ব ছিল বেশি। দেশের বুটিক শিল্পের তৈরি পোশাক দেশের বাইরেও গেছে। আমাদের দেশের বুটিক শিল্পকে এগিয়ে নিতে হলে এর পৃষ্ঠপোষকতা করা প্রয়োজন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৭ অক্টোবর, ২০১৭ ইং
ফজর৪:৪২
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫৩
মাগরিব৫:৩৪
এশা৬:৪৬
সূর্যোদয় - ৫:৫৭সূর্যাস্ত - ০৫:২৯