অর্থনীতি | The Daily Ittefaq

বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৭ ভাগে নেমে আসতে পারে

বিশ্বব্যাংকের হালনাগাদ পূর্বাভাস
বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৭ ভাগে নেমে আসতে পারে
আলাউদ্দিন চৌধুরী০৭ জুন, ২০১৮ ইং ১০:৩৪ মিঃ
বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৭ ভাগে নেমে আসতে পারে
বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি আগামী বছর, ২০১৯ সালে ৬ দশমিক ৭ ভাগে নেমে আসতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। সংস্থাটির হালনাগাদ বিশ্ব অর্থনীতির পূর্বাভাস প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, এবছর ২০১৮পঞ্জিকা বর্ষে প্রবৃদ্ধি হতে পারে সাড়ে ৬ ভাগ। প্রতিবেদনে অভ্যন্তরীণ ভোগ ব্যয় বৃদ্ধির পাশাপাশি রপ্তানি বৃদ্ধির প্রত্যাশাও করা হয়েছে। ফলে ২০২০ সাল নাগাদ প্রবৃদ্ধি ৭ ভাগে উন্নীত হবার আশা করা হয়েছে। এদিকে সরকারি ভাবে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সাময়িক হিসাবে চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছর প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৬৫ ভাগ প্রবৃদ্ধির হিসাব করেছে। সে হিসাবে বিশ্বব্যাংকের পূর্বাভাস থেকে বিবিএস এর প্রাক্কলনে অনেক ফারাক লক্ষ্য করা যাচ্ছে।
 
চলতি বছর বিশ্ব অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি ৩ দশমিক ১ শতাংশ হবে বলে প্রত্যাশা করছে বিশ্বব্যাংক। অবশ্য পরের দুইবছর এর গতি শ্লথ হয়ে যাবারও আশঙ্কা করা হয়েছে। গতকাল গ্লোবাল ইকনোমিক প্রসপেক্ট প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে। প্রতি ত্রৈ-মাসিক ভিত্তিতে বিশ্বব্যাংক অর্থনীতির সর্বশেষ পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে এমন প্রতিবেদন তৈরি করে। এতে উন্নত, উন্নয়নশীল দেশ ছাড়াও উদীয়মান দেশগুলোর অর্থনীতি পর্যালোচনা করা হয়।
 
প্রতিবেদনের বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম উল্লেখ করেছেন, আমরা যদি এরকমভাবে দৃঢ় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে পারি, তাহলে এবছরই লাখ লাখ মানুষ দারিদ্র সীমার উপরে উঠে আসবে, বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ায়। তবে শুধু প্রবৃদ্ধি দিয়ে বিশেষ অঞ্চলে চরম দারিদ্র্য বিমোচন সম্ভব নয়। এজন্য উত্পাদনশীলতা এবং কর্মসংস্থান বাড়াতে নীতিনির্ধারকদের দীর্ঘমোদে পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।
 
প্রতিবেদনে অগ্রসর বা ধনী দেশগুলোর এবছর প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক ২ শতাংশ হবে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। সেইসাথে উদীয়মান এবং উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশগুলোর সাড়ে ৪ ভাগ প্রবৃদ্ধি হবে বলেও প্রত্যাশা করা হয়েছে। এই প্রবৃদ্ধি ২০১৯ সালে ৪ দশমিক ৯ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে। প্রতিবেদনে কিছু সতর্ক বার্তাও দেওয়া হয়েছে। বিশ্বব্যাপী আর্থিক বাজারে ভঙ্গুরতা ঝুঁকি তৈরি করতে পারে। কিছু উন্নয়নশীল দেশে এ ধরণের লক্ষণ দেখা গেছে।
 
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পূর্ব এশিয়া ও প্যাসিফিক অঞ্চলে এবছর ৬ দশমিক ৩ ভাগ প্রবৃদ্ধি হতে পারে যা ২০১৯ সালে কমে ৬ দশমিক ১ ভাগে নেমে যেতে পারে। এই অঞ্চলে চীনের প্রবৃদ্ধি সাড়ে ৬ ভাগ হতে পারে। ২০১৯ সালে এটি কমে ৬ দশমিক ৩ ভাগ হতে পারে। ইউরোপ ও মধ্য এশিয়ার দেশগুলোতে প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৩ দশমিক ২ ভাগ। ২০১৯ সালে এই হার কমে ৩ দশমিক ১ ভাগে নেমে যেতে পারে। লাতিন আমেরিকা ও ক্যারিবীয় অঞ্চলে প্রবৃদ্ধি এবছর ১দশমিক ৭ ভাগ ও পরের বছর ২দশমিক ৩ভাগ হতে পারে। এই অঞ্চলে বেসরকারি ভোগ এবং বিনিয়োগ বৃদ্ধি পাবার প্রত্যাশা করা হয়েছে।
 
দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে ভারতে এবছর ৭ দশমিক ৩ ভাগ প্রবৃদ্ধির প্রত্যাশা করা হয়েছে। বিশ্বব্যাংক বলছে ২০১৯ সালে ভারতের প্রবৃদ্ধির হার সাড়ে ৭ শতাংশে উন্নীত হতে পারে। ভারতে বিনিয়োগ পরিবেশ উন্নত হওয়াসহ সাধারণ মানুষের ভোগ ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় উচ্চ প্রবৃদ্ধির প্রত্যাশা করা হয়েছে। সাব-সাহারান আফ্রিকায় এবছর প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৩দশমিক ১ ভাগ। পরের বছর এই হার সাড়ে তিন শতাংশে উন্নীত হতে পারে।
 
ইত্তেফাক/কেকে
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৪
মাগরিব৫:৫৮
এশা৭:১১
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫৩