সারাদেশ | The Daily Ittefaq

ব্যাংক গ্রাহকের টাকা লুণ্ঠন: ছিনতাইকারী গ্রেফতার

ব্যাংক গ্রাহকের টাকা লুণ্ঠন: ছিনতাইকারী গ্রেফতার
কুমিল্লা প্রতিনিধি০৫ নভেম্বর, ২০১৭ ইং ১৮:২৪ মিঃ
ব্যাংক গ্রাহকের টাকা লুণ্ঠন: ছিনতাইকারী গ্রেফতার
প্রতারক চক্রের ৩ সদস্য
 
কুমিল্লা বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের নিমসার বাজার অগ্রণী ব্যাংক শাখা থেকে আবদুর রাজ্জাক নামে এক সবজি ব্যবসায়ীর টাকা কৌশলে লুণ্ঠনের ঘটনায় জড়িত প্রতারকচক্রের আমিনুল ইসলাম সজল খান নামে এক সদস্যকে এক নারীর টাকা ছিনতাইকালে গ্রেফতার করা হয়েছে। রবিবার কুমিল্লা কোটবাড়ী সোনালী ব্যাংক এলাকা থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। তিনি কুষ্টিয়ার মীরপুর থানার রানাখড়িয়া গ্রামের মৃত আবদুর রশিদের ছেলে। 
 
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রবিবার বেলা ১১টা থেকে অপরিচিত কয়েকজন লোক কুমিল্লা কোটবাড়িস্থ সোনালী ব্যাংক শাখা ও এর আশপাশের এলাকায় ঘুরাঘুরি করতে দেখা যায়। এতে ব্যাংকের গ্রাহকসহ স্থানীয় লোকজনের কাছে তাদের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হয়। এদিকে গত ২৯ অক্টোবর জেলার বুড়িচং উপজেলার নিমসার বাজার অগ্রণী ব্যাংক শাখা থেকে আবদুর রাজ্জাক নামে এক সবজি ব্যবসায়ীর ৫ লাখ ৭২ হাজার টাকা কৌশলে লুটে নিয়েছিল প্রতারকচক্র। ওই ঘটনায় ব্যাংকের সিসি ক্যামেরায় ধারণকৃত জড়িতদের ছবি গণমাধ্যমসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে পড়ে। 
 
রবিবার কোটবাড়ি সোনালী ব্যাংক এলাকায় ঘুরাফেরা করা লোকজন ওই প্রতারকচক্রের বলে সন্দেহ হওয়ায় ছবির সঙ্গে মিলিয়ে দেখে। এসময় এক নারীর টাকা ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে তার চিৎকারে ওই ছিনতাইকারী ঘটনাস্থলের অদূরে অপেক্ষমান তাদের ব্যবহৃত প্রাইভেটকারে থাকা অপর সহযোগীদের সঙ্গে পালিয়ে যাওয়ার সময় প্রাইভেটকারের ধাক্কায় আহত হন। এসময় আশপাশের লোকজন ছিনতাইকারীকে ধরে গণপিটুনি দেন। খবর পেয়ে কোতয়ালী মডেল থানার অধীন চাঙ্গিনী ও বুড়িচং থানার অধীন দেবপুর ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং ছিনতাইকারীকে উদ্ধার করে দেবপুর ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ছিনতাইকারী তার নাম আমিনুল ইসলাম সজল খান (৬২) এবং তিনি কুষ্টিয়ার মীরপুর থানার রানাখড়িয়া গ্রামের মৃত আবদুর রশিদের ছেলে বলে জানায়। 
 
দেবপুর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই শাহাদাৎ হোসেন জানান, গ্রেফতারকৃত আমিনুল ইসলাম সজল খানের সঙ্গে নিমসার অগ্রণী ব্যাংক শাখা থেকে গত ২৯ অক্টোবর আবদুর রাজ্জাক নামে এক সবজি ব্যবসায়ীর ৫ লাখ ৭২ হাজার টাকা কৌশলে নিয়ে যাওয়া প্রতারকচক্রের সিসি ক্যামেরার এক সদস্যের ছবির সঙ্গে মিল রয়েছে। এ চক্রটি কখনো পুলিশ, কখনো সেনাবাহিনীর সদস্য, আবার কখনো বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তার ভুয়া পরিচয় দিয়ে প্রাইভেটকারযোগে বিভিন্ন এলাকায় বিচরণের মাধ্যমে প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছিল। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অপর প্রতারকদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। 
 
ইত্তেফাক/কেকে
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩৪
যোহর১১:৫১
আসর৪:১১
মাগরিব৫:৫৪
এশা৭:০৭
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৪৯